ছাত্রদল নেতা আল আমিনের লাশ দাফন, দুজনের খোঁজ মেলেনি

গোলাম সাত্তার রনি ও সাজ্জাদ মাহমুদ খান: ঢাকা থেকে খুলনাগামী বিএনপির লংমার্চে অংশ নিয়ে ঢাকায় ফেরার পরই গত ২৮ নভেম্বর হাতিরপুল থেকে অপহƒত হন ছাত্রদলের ৩ নেতাকর্মী। এদের মধ্যে ৫০নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি ইসমাইল হোসেন আল আমিনের লাশ উদ্ধার হলেও অপর দুজন শামীম ও মাসুম হোসেন এখনও নিখোঁজ। শুক্রবার মুন্সিগঞ্জের ধলেশ্বরী নদী থেকে উদ্ধার হওয়া ২টি লাশের মধ্যে একটি আল আমিনের বলে তার পরিবার শনাক্ত করলেও অপর লাশের পরিচয় পাওয়া যায়নি। আল আমিনের লাশ গতকাল আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে তার পরিবার মামলা করার কথাও জানিয়েছেন।

আল আমিনের সঙ্গে উদ্ধার হওয়া অপর লাশটি অপহƒত মাসুমের ধারণা করে তার পরিবারের সদস্যরা ঢাকা থেকে মুন্সিগঞ্জ যান। লাশটি পচন ধরায় গতকাল পর্যন্ত তারা পরিচয় শনাক্ত করতে পারেননি। এদিকে অপহƒত অপর ছাত্রদল নেতা শামীমের সন্ধান পায়নি তার পরিবার।

নিহত ইসমাইল হোসেন আল আমিনের মামা আবদুল খালেক বলেন, ইসমাইল অপহরণ হওয়ার পরের দিন কলাবাগান থানায় একটি জিডি করা হয়। অপহরণের পর টুণ্ডা রফিক নামে র‌্যাবের এক সোর্স তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। অপহƒতদের উদ্ধারে ৭ লাখ টাকা মুক্তিপণও দাবি করেন। সেক্ষেত্রে অপহƒতদের র‌্যাব-৩-এর কার্যালয়ে হাজির করা হবে। পরে কোর্টের মাধ্যমে তাদের মুক্ত করতে হবে। কিন্তু তিনি ১ লাখ টাকা দিতে রাজি হন। পরে তাকে টোলারবাগ এলাকার একটি বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মতো ছোট ছোট করে চুলকাটা এক ব্যক্তির সঙ্গে তাকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। ওই লোক সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বলে টুণ্ডা রফিক তাকে জানায়। লোকটি তাকে বলেন, টাকা দিলে তোমার ভাগনেকে উদ্ধার করা হবে। এরপর টুণ্ডা রফিক তার সঙ্গে কয়েকবার যোগাযোগ করেন। কিন্তু তার চাহিদা মতো টাকা দিতে পারেননি তিনি। পরে শুক্রবার মুন্সিগঞ্জ ধলেশ্বরী নদী থেকে দুটি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরমধ্যে একটি লাশ ইসমাইলের বলে শনাক্ত করা হয়। তিনি আরও বলেন, ঘটনার ব্যাপারে একটি মামলা দায়ের করা হবে।

অপহƒত মাসুমের স্ত্রী হাওয়া বেগম বলেন, মাসুমের লাশ মনে করে তারা গতকাল শনিবার মুন্সীগঞ্জ গিয়েছিলেন। কিন্তু লাশটি পচে যাওয়ায় পরিচয় শনাক্ত করতে পারেননি। পরিচয় শনাক্ত করতে না পেরে মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালে লাশটি রেখে গতকালই তারা ঢাকায় ফিরে আসেন।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম বলেন, উদ্ধার হওয়া লাশ দুটি একইভাবে হত্যা করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের লাশ তার পরিবার নিয়ে গেছে। অপরজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

অপহƒতদের পরিবারের সদস্যরা জানান, অপহƒত ৩ জনই বিএনপির খুলনামুখী লংমার্চে অংশ নিয়ে ২৮ নভেম্বর বিকালে ঢাকায় ফেরেন। সন্ধ্যার দিকে ইসমাইল, শামীম, মাসুম ও র‌্যাবের সোর্স টুণ্ডা রফিকের সঙ্গে হাতিরপুলে ‘সুরুচি’ নামে একটি রেস্টুরেন্টে নাস্তা করেন। টুণ্ডা রফিক চলে গেলে রাত ১০টার দিকে অন্যরা হোটেলের পাশে রাস্তায় দাঁড়িয়ে কথা বলার সময় একটি সাদা মাইক্রোবাস এসে তাদের পাশে থামে। এ সময় মাইক্রোবাস থেকে সাদা পোশাকের ৬-৭ জন অস্ত্রধারী লোক নেমে তাদের ঘিরে ধরে। তারা ছাত্রদলের ওই নেতাকর্মীদের শরীর তল্লাশি করে চোখ বেঁধে ফেলে। এরপর মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। অপহƒত শামীম সূর্যসেন হল শাখার ছাত্রদলের সাহিত্য সম্পাদক, ইসমাইল হোসেন ৫০ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি ও মাসুম হোসেন ছাত্রদলের কর্মী।

আমাদের সময়

Leave a Reply