পদ্মা সেতু: বিশ্ব ব্যাংকের জবাবের অপেক্ষায় অর্থমন্ত্রী

পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নের ব্যাপারে সংস্থাটির জবাবের অপেক্ষায় আছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি-বেসরকারি অংশিদারিত্ব (পিপিপি) উদ্যোগে পদ্মা সেতু নির্মাণের যে কথা বলেছেন সে ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি নন অর্থমন্ত্রী।

পদ্মা সেতুর ব্যাপারে সরকারের সর্বশেষ অবস্থান কী- এ সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা (সরকার) বিশ্বব্যাংকের জবাবের (রেসপন্স) অপেক্ষায় আছি। তাদের জবাব পাওয়ার পরই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।”

প্রধানমন্ত্রী পিপিপি উদ্যোগে পদ্মা সেতু নির্মাণের কথা বলেছেন- এ সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তরে মুহিত বলেন, “এ বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করবো না।”

পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নের ব্যাপারে শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করতে সংস্থাটির আবাসিক প্রতিনিধি এলেন গোল্ডস্টেইন শনিবার ওয়াশিংটন গেছেন।

ওয়াশিংটন যাওয়ার আগে তিনি অর্থমন্ত্রী ও নতুন যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক করেন।

যোগাযোগমন্ত্রী পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটে পদ্মা সেতু নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা শিগগিরই খুলবে বলে আশা করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও বিশ্ব ব্যাংক প্রতিনিধি এলেন গোল্ডস্টেইন।

বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) এক অনুষ্ঠান শেষে অ্যালেন গোল্ডস্টেইন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আজ দুপুরে (বুধবার) আমি নতুন যোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছি। বৈঠকে পদ্মা সেতু ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আগামী সপ্তাহে আমি ওয়াশিংটন যাচ্ছি। সেখানে বিশ্বব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাদের আমি পদ্মা সেতু নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের সর্বশেষ অবস্থান ব্যাখ্যা করবো।”

এডিবি’র ওই অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রীও উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে প্রায় ২০ মিনিট এই দুজন একান্তে বৈঠক করেন।

এদিকে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী পিপিপি’র অধীনে পদ্মা সেতু নির্মাণের কথা জানিয়ে বলেছেন, “পদ্মা সেতু নির্মাণে বিভিন্ন দেশের প্রতি আহ্বান জানানো হবে। বড় বড় প্রকল্পগুলো বেশিরভাগই পিপিপি উদ্যোগে হয়ে থাকে।

“পদ্মা সেতুও তৈরি করতে যে দেশ আসবে, দুই দেশের সরকারের মধ্যে আলোচনা হবে। যে সেতু তৈরি করবে সে অর্থ ওঠাবে। এ জন্য ১০ বছর, ২০ বছর, ৫০ বছর লাগুক অসুবিধা নেই- সেতু হবেই।”

প্রকল্পের জন্য ইতোমধ্যে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিয়োগ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের তোলা দুর্নীতির অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন করেন, “যেখানে টাকাই ছাড় করা হয়নি সেখানে দুর্নীতি হয় কীভাবে।”

বিশ্ব ব্যাংককে দুর্নীতি প্রমাণ করতে হবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে মন্তব্য করেন তিনি।

প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন স্থগিত রেখেছে। ২৯০ কোটি ডলার ব্যয়ে এ সেতু নির্মাণে এ সংস্থাটির ১২০ কোটি ডলার দেওয়ার কথা।

সেতু নির্মাণ কাজ পর্যবেক্ষণের জন্য পরামর্শক নিয়োগের ক্ষেত্রে একটি কানাডীয় কোম্পানি নীতিবহির্ভূত কাজ করেছে বলে বিশ্ব ব্যাংকের তদন্তে উঠে এসেছে, যা কানাডা সরকার তদন্ত করছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে জটিলতা দেখা দিলে গত ২০ অক্টোবর এক প্রেসনোটে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে সরকার। এতে বলা হয়, প্রকল্পে দুর্নীতির প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে এ প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন স্থগিতের সিদ্ধান্ত সরকার যথাযথ বলে মনে করছে না। সংস্থাটিকে তাদের এ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আহ্বান জানানো হয়েছে।

দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে দুর্নীতি দমন কমিশনকে দায়িত্ব দিয়েছে সরকার। এতে বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতাও প্রত্যাশা করা হয়েছে।

এ সব বিষয় জানিয়ে ২০ অক্টোবরই অর্থমন্ত্রী বিশ্বব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে একটি চিঠি পাঠান। ৪ নভেম্বর বিশ্বব্যাংক ওই চিঠির জবাব দেয়।

কিন্তু ওই চিঠিতে আশাবাদী হওয়ার মতো কিছু ছিলো না।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্ব ব্যাংকের মূল অর্থায়নের পাশাপাশি এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৪ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে। বাকি অর্থ দেবে সরকার।

পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন স্থগিতের জন্য সরকারের ‘দুর্নীতিকে’ দায়ী করে বক্তব্য দিয়ে আসছেন বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া। এর পাল্টা জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি আমলে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতির জন্য পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন স্থগিত করেছে বিশ্বব্যাংক।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply