মুখ খুলবেন ফখরুদ্দীন!

দুলাল আহমদ চৌধুরী: সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ২০০৭ সালের আগস্ট মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনায় নিজের ভূমিকা সম্পর্কে মুখ খুলতে পারেন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকারী সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ। তার ঘনিষ্ঠ সূত্র এমন আভাস দিয়েছে। তিনি এর আগে জবাবদিহির জন্য সংসদীয় কমিটির ডাকেও সাড়া দেননি। বক্তব্য ই-মেইলে বক্তব্য পাঠালে চাইলে কমিটি রাজি হয়নি।

গত ৮ ডিসেম্বর সংসদীয় উপকমিটি ড. ফখরুদ্দীন আহমদ, উপদেষ্টা জেনারেল জেনারেল (অব.) এমএ মতিন, তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল মইন উ আহমেদসহ তৎকালীন বিভিন্ন সংস্থার একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তাকে আইনের আওতায় এসে শাস্তির সুপারিশ করেছে।

সূত্রমতে, এই সুপারিশের পর ড. ফখরুদ্দীন আহমদ তার ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে কথা বলেছেন। কেউ কেউ তাকে পরামর্শ দিয়েছেন, এ বিষয়ে আর নিশ্চুপ না থেকে মিডিয়ার কাছে তার বক্তব্য তুলে ধরতে। কমিটি তার লিখিত বক্তব্য আমলে না নেওয়ায় ঘনিষ্ঠদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেছেন, এই ঘটনার সঙ্গে তার সম্পৃক্ততার অভিযোগ মোটেও ঠিক নয়। এটা দিবালোকের মতো স্পষ্ট ছিল যে, দেশে আগে জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে। পরবর্তীতেই গঠিত হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার। সেনাসমর্থিত অনির্বাচিত সরকারের পক্ষে তৎকালীন সময়ে সেনাবাহিনীর কার্যক্রম কতটুকু নিয়ন্ত্রণ রাখা সম্ভব ছিল তা সর্বমহলেই অবহিত। সূত্র আরও জানায়, ঘনিষ্ঠমহলের পরামর্শে তিনিও চিন্তা-ভাবনা করছেন পুরো বিষয়টি নিয়ে মিডিয়ার কাছে কোনও বক্তব্য দেওয়া যায় কি না।

উল্লেখ্য, নির্বাচিত সরকারের হাতে দায়িত্ব তুলে দেওয়ার প্রায় ৬ মাস পর সস্ত্রীক যুক্তরাষ্ট্র চলে যান ড. ফখরুদ্দীন। থাকেন ওয়াশিংটনের কাছাকাছি মেরিল্যান্ডে। সময় কাটে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে। গত ৩ বছরে তিনি একবারও তার সরকারের দুবছরের কর্মকাণ্ড নিয়ে দেশে-বিদেশ কোনও কথা বলেননি।

জেনারেল মতিন : এদিকে সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছেন তৎকালীন উপদেষ্টা অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল এমএ মতিন। তিনি বলেছেন, ‘ঘটনার সময় আমি স্বরাষ্ট্র উপদেষ্টা ছিলাম না। ঘটনার কয়েক মাস পর ২০০৮ সালের ১৫ জানুয়ারি আমি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাই। তখন আমি যোগাযোগ, নৌপরিবহন, বেসামরিক বিমান পরিবহন এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলাম। এসব মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা হিসেবে সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনার সঙ্গে আমার সম্পৃক্ততার প্রশ্নই আসে না।’ রোববার চট্টগ্রামের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের কার্যালয়ে পাঠানো লিখিত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

লিখিত বক্তব্যে মতিন বলেন, ‘সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনা তদন্তে নিয়োজিত সংসদীয় উপকমিটি আমাকে আত্মপক্ষ সমর্থন কিংবা এ বিষয়ে বক্তব্য প্রদানের কোনও সুযোগ দেয়নি। বরং বলা চলে, মিথ্যাচারের আশ্রয় গ্রহণপূর্বক সংসদীয় উপকমিটি আমার অজান্তেই ঢাবিতে ২০০৭ সালের আগস্ট মাসে সংঘটিত সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আইনের আওতায় এনে শাস্তির সুপারিশ করে।’

মতিন দাবি করেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপদেষ্টা হিসেবে তিনি সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার কারণে আটক ছাত্র-শিক্ষকদের অনতিবিলম্বে মুক্তি প্রদানসহ তাদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা তুলে নেওয়ার জন্য উপদেষ্টা পরিষদের দুটি সভায় জোর সুপারিশ করেছিলেন। তারই ফলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্তির অল্প সময়ের মধ্যে তৎকালীন সরকার এ সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে একটি গ্রহণযোগ্য সমাধানে পৌঁছে।

আমাদের সময়

Leave a Reply