চিকিৎসক সহ লোকবলের সংকটে দূর্ভোগে রোগীরা

সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স উপজেলার ২লাখ লোকের একমাত্র সরকারী হাসপাতাল। চিকিৎসক সহ লোকবলের তীব্র সংকটের কারণে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রোগীদের। ৫০ শয্যার হাসপাতালে উন্নীত করা হলেও চিকিৎসক ও লোকবলের অভাবে সেবা থেকে বঞ্চিত রোগীরা। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৩য় ও ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীর শূন্য পদের সংখ্যা ৩৯টি। আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) পদ শূন্য। এ্যানেস্থেশিয়ার পদে রয়েছেন একজন মেডিকেল অফিসার। এ্যানেস্থেশিয়া ডাক্টার না থাকায় প্রসূতিদের অপারেশন হচ্ছে না। এছাড়া ৬টি উপ-স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৭টি পদ শূন্য। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও উপ-স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সব মিলিয়ে ৪৬ টি পদ শূন্য রয়েছে। প্রতিদিন হাসপাতালে আউটডোরে ৩০০/৩৫০ জন রোগী আসে। ইনডোরে ৫০ শয্যার হাসপাতালে ৮০/১০০ রোগী ভর্তির জন্য আসে। প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা দিতে না পারার কারণে অনেক রোগীকে ঢাকাসহ বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়। আবার অনেকে হাসপাতালের বেহালদশা দেখে প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হয়। সাধারণ গরীব রোগীদের ভরসা এই সরকারী হাসপাতাল, অনেকের প্রশ্ন তারা কোথায় যাবে? প্রয়োজনীয় নার্স, স্বাস্থ্য পরিদর্শক, চিকিৎসা সহকারী, মেডিকেল টেকঃ, ড্রাইভার, নিরাপত্তা প্রহরী, এম এল এস এস, ঝাড়–দার, সুইপার না থাকায় রোগীরা এইসব সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

রোগীদের বেডে বিড়াল শুয়ে থাকে, টয়লেটগুলো নোংড়া, বাথরুমে অনেক সময় পানি পাওয়া যায় না। রোগীদের ঔষধ ঠিকমত পাওয়া যায় না। বেশির ভাগ রোগীর ঔষধ বাহির থেকে কিনতে হয়। সব ধরনের পরীক্ষা বাহির থেকে করতে হয়। হাসপাতালের দক্ষিণের পরিবার পরিকল্পনা ভবনের বৈদ্যুতিক মেইন বোর্ডে উলুর মাটিতে ভরা, যে কোন সময় শর্ট সার্কিট থেকে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ কাজী শরীফুল ইসলাম জানান, আমি এসেছি মাত্র দুই মাস হয়। লোকবলের অভাবে সবকিছু ঠিক রাখা যাচ্ছে না। উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে জানিয়েছি।

১. উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সিরাজদিখান।

২. পরিবার পরিকল্পনা ভবনের বৈদ্যুতিক মেইন বোর্ডে উলুর মাটিতে ভরা।

৩. পুরুষ ওয়ার্ডের একটি বেডে বিড়াল শুয়ে আছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

One Response

Write a Comment»
  1. so sad!
    I some times go there & see the same weather as it described.
    so plese,
    I propose The UP chairman Mr. MOhiuddin Ahmed to be responsibility about that as a father of Shirajdikhan.

Leave a Reply