ধলেশ্বরী নদী এখন লাশের হাটে পরিনত : মুন্সীগঞ্জে বিরাজ করছে অজানা আতঙ্ক

হাসপাতাল মর্গে ও থানায় নিখোঁজ থাকা স্বজনদের ভীড়
কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে : এক সপ্তাহের ব্যবধানে ধলেশ্বরী নদীতে ৫ লাশ উদ্ধারসহ ৮ লাশ উদ্ধারের পর থেকে মুন্সীগঞ্জে অজানা এক আতঙ্ক বিরাজ করছে। একের পর এক লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ধলেশ্বরী নদীতে ভেসে আসা লাশের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। দৃশ্যত ধলেশ্বরী নদী যেন এখন লাশের হাটে পরিনত হয়েছে। যেসব লাশ উদ্ধার করা হচ্ছে এরা সকলেই গুপ্ত হত্যার শিকার বলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ধারনা করছে। রাজধানী ঢাকা ও আশপাশে যে সব গুপ্ত হত্যা হচ্ছে সেই লাশ ভেসে আসছে ধলেশ্বরী নদীর তীরের জেলা মুন্সীগঞ্জে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে এর আগে এতো লাশ ভেসে আসতে দেখেনি নদীর তীরের লোকজন। এই অবস্থায় ধলেশ্বরী তীরের বাসিন্দারা এখন উদ্বেগ ও উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছে। অন্যদিকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে নিখোঁজ থাকা ব্যক্তিদের স্বজনদের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে ও সদর থানায় ভীড় জমাতে লক্ষ্য করা গেছে। স্বজনরা অনেকেই প্রিয়জনকে সনাক্ত করতে না পেরে হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন।

ধলেশ্বরী নদীর তীরের বাসিন্দারা জানান, বিগত দিনে নদী থেকে লাশ উদ্ধার হলেও এক সপ্তাহের ব্যবধানে ৫ লাশ উদ্ধারের ঘটনা এবারই প্রথম। এ কারনে সকলের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে।

গত ২৮ নভেম্বর ঢাকার হাতিরপুল থেকে নিখোঁজ হওয়া ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের সূর্যসেন হল শাখার ছাত্রদলের সাহিত্য সম্পাদক শামিম হাসান সোহেলের বাগদত্ত্বা মনিকা জানান, গত ৮ ও ১৩ ডিসেম্বর ধলেশ্বরী নদী থেকে ৫ লাশ উদ্ধারের পর সোহেলের বন্ধু ঢাকা ৫০ নং ওয়ার্ড ছাত্রদল সভাপতি ইসমাইল হোসেন আলামিনের লাশ সনাক্ত করা হয়। এতে মনে হয়েছে, সোহেলের লাশও এর মধ্যে থাকতে পারে। কিন্তু পরিবারের লোকজন নিয়ে মুন্সীগঞ্জে কয়েক দফা গেলেও শামিম হাসান সোহেলের লাশ সনাক্ত না হওয়ায় মনকষ্ট নিয়ে বুধবার দুপুরে সকলে ঢাকায় ফিরেছে। ৬ ডিসেম্বর ভেদেরগঞ্জ থেকে নিখোঁজ হওয়া ৫ যুবকের স্বজনরাও প্রিয়জনকে সনাক্ত করতে না পেরে মুন্সীগঞ্জ থেকে ফিরে গেছেন।

এদিকে ১৩ ডিসেম্বর উদ্ধার হওয়া ৩ যুবকের লাশ গতকাল বুধবার ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। তবে তাদের কারো পরিচয় সনাক্ত হয়নি বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। মুক্তারপুর নৌ পুলিশ ফাঁিড়র ইনচার্জ এস আই মিজানুর রহমান জানান, লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে নিখোঁজ থাকা ব্যক্তিদের স্বজনরা গত দুই দিন ধরে মুন্সীগঞ্জে অবস্থান নিয়ে মর্গ ও থানায় একাধিকবার ধর্না দিলেও সনাক্ত করতে পারেনি। তিনি আরো জানান, উদ্ধারকৃত লাশগুলো সিমেন্টের বস্তা দিয়ে বাধাঁ ছিল। তাদের হত্যার পর বস্তা দিয়ে বেধেঁ নদীতে ডুবিয়ে দেয়া হয়েছিল বলে ধারনা করা হচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই সুলতানউদ্দিন আহমেদ জানান, উদ্ধার করা ৩ লাশের পরিচয় সনাক্ত করা না গেলে পৌরসভার মাধ্যমে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হবে। গত ৮ ডিসেম্বর উদ্ধার হওয়া ২ লাশের মধ্যে একজনের পরিচয় সনাক্ত না হওয়ায় তা বেওয়ারিশ হিসেবে স্থাণীয় কাটাখালী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, পরিচয় সনাক্ত হওয়া ঢাকা ৫০ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি ইসমাইল হোসেন আলামিনের লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ বাদী হয়ে সদর থানায় হত্যা মামলা রুজু করা হয়েছে। অগ্রগতির জন্য এই মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তর করার জন্য পুলিশ হেড কোয়ার্টারে চিঠি প্রেরন করা হলেও গতকাল পর্যন্ত কোন নির্দেশনা পাওয়া যায়নি।

আলামিনের পরিবারের দাবী, ঢাকার হাতিরপুল থেকে আলামিনসহ ৩ ব্ন্ধুকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন তুলে নিয়ে যায়। আলামিনের লাশ পাওয়া গেলেও অপর দুই জনের কোন সন্ধান এখনো পাওয়া যায়নি। তারা আরো জানান, অপরহরনের ঘটনা যেহেতু ঢাকার হাতিরপুল এলাকা, ওই হিসেবে হত্যা মামলা কলাবাগান থানায় রুজু হওয়ার কথা থাকলেও মুন্সীগঞ্জ থানায় পুলিশ বাদী হয়ে হত্যা মামলা রুজু করায় বিচার পাওয়া নিয়ে তারা সন্দিহান হয়ে পড়েছেন।

উল্লেখ্য, ধলেশ্বরী নদী থেকে এক সপ্তাহে ৫ জন ও মুন্সীগঞ্জের পৃথক স্থান থেকে আরো ৩ জনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এর মধ্যে ৩ টি লাশের পরিচয় পাওয়া গেলেও শিশুসহ অপর অজ্ঞাত ৫ লাশের পরিচয় সনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। এমনকি হত্যার কারণ উদঘাটনে পুলিশ ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে।#

Leave a Reply