মুন্সীগঞ্জে এক সপ্তাহে ৮ লাশ উদ্ধার, পুলিশের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ

মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদী থেকে মঙ্গলবার তিন যুবকের উদ্ধারকৃত লাশের কোনো পরিচয় পায়নি পুলিশ। এদিকে গুলি করে হত্যা করা হয়নি বলে বুধবার বিকেলে লাশ ময়না তদন্তের পর মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গের ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ ডা. এহসানুল করিম জানিয়েছেন।

তিনি জানান, এক যুবকের মাথায় ও বাকি দুজনের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

এদিকে, সকাল থেকে মর্গে ভিড় জমায় দূর-দুরান্তের নিখোঁজ হওয়া লোকজনের আত্মীয়-স্বজনরা। অজ্ঞাত লাশ পাওয়া নিয়ে জেলাবাসীর মধ্যে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। দেশে গুপ্তহত্যার মাত্রা ব্যাপকভাবে বেড়েছে বলে অনেকের অভিমত।

গত এক সপ্তাহে শিশুসহ আটজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে হত্যার কারণ উদঘাটনে পুলিশ ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে। এছাড়া উদ্ধার হওয়া আট লাশের মধ্যে তিনটি লাশের পরিচয় পাওয়া গেলেও শিশুসহ অপর অজ্ঞাত চারজনের লাশের পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

জানা গেছে, স্থানীয় এলাকাবাসীর খবর পেয়ে মঙ্গলবার বিকেলে পুলিশ মুন্সীগঞ্জ শহরের অদূরে ধলেশ্বরী নদীর পড়ে নয়াগাওঁ, হাটলক্ষিগঞ্জ ও মোল্লাচর এলাকা থেকে অজ্ঞাত তিন যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে গত ১০ ডিসেম্বর মিরকাদিমের গোপপাড়া গ্রামের বাশঁ ঝাড়ের নিচ থেকে একদিন বয়সী নবজাতকের, ৮ ডিসেম্বর ধলেশ্বরী নদীর মোল্লারচর এলাকা থেকে ঢাকার ৫০ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রদল সভাপতি ইসমাইল হোসেন আলামিনের লাশসহ দুই জনের লাশ এবং ৬ ডিসেম্বর সদররের চরবেশনাল এলাকা থেকে অলিদ হোসেন ও শ্রীনগরের হরপাড়া জামে মসজিদের টয়লেট থেকে শামিম নামের এক যুবকের আগুনে ঝলসানো লাশ উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, উদ্ধার হওয়া আটটির মধ্যে পাঁচটি অজ্ঞাত যুবকের লাশ ধলেশ্বরী নদী থেকে উদ্ধার হওয়ার পর স্বজনরা এক যুবকের লাশ শনাক্ত করলেও অপর চারজন ও এক শিশুর পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। এছাড়া সদরের বেশনাল ও শ্রীনগরের হরপাড়া থেকে উদ্ধার হওয়া দুই লাশের পরিচয় পাওয়ার এক সপ্তাহে হত্যার কারণ উদঘাটনে ব্যর্থ হওয়ায় পুলিশের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, মুন্সীগঞ্জ জেলাটি নদীবেষ্টিত এবং দুটি মহাসড়ক এ জেলার ওপর দিয়ে যাওয়ায় আশপাশ জেলার লাশ সহজে এ জেলায় ফেলে যায় ঘাতকেরা।

পুলিশ জানায়, পরিচয় শনাক্ত হওয়া দুই লাশের হত্যার কারণ উদঘাটন ও শিশুসহ পাঁচজনের পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে তারা।

বার্তা২৪

Leave a Reply