অরক্ষিত হয়ে পড়েছে মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী

মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীর ২ কিলোমিটার এলাকার নৌপথ অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। গত আড়াই মাসের ব্যবধানে শহরের উপকণ্ঠ কাঠপট্টি, মুক্তারপুর, নয়াগাঁও, লঞ্চঘাট ও মোল্লারচর এলাকার ধলেশ্বরী নদীর ২ কিলোমিটার এলাকা থেকে ৮টি লাশ উদ্ধার ঘটনায় এ নৌপথ অরক্ষিত হয়ে পড়ার বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়ে। এদিকে নৌপথ অরিক্ষত হয়ে পড়ায় একের পর এক হত্যা, গুপ্ত হত্যা, চাঁদাবাজি, চোরাকারবারীসহ বিভিন্ন অপরাধ প্রতিনিয়ত সংঘটিত হচ্ছে। নদীপথে একের পর এক সংঘটিত অপরাধ কর্মকাণ্ডে মুন্সীগঞ্জ পুলিশের প্রতি আস্থা হারাচ্ছে সাধারণ মানুষ।

অন্যদিকে গুপ্ত হত্যা ও একের পর এক লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ধলেশ্বরী নদী আলোচনায় চলে আসায় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিতে পুলিশের ডিআইজি মো. আসাদুজ্জামান মিয়া গতকাল দিনভর স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে একাধিক বৈঠক করেছেন। এ বৈঠকে গুপ্ত হত্যা ও লাশ উদ্ধারের প্রসঙ্গই মূল আলোচ্য ছিল বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম বলেন- পুলিশ ধলেশ্বরীতে লাশ উদ্ধারের ঘটনা সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খতিয়ে দেখছে। হত্যার কারণ উদঘাটনে পুলিশের টিম এখন তৎপর। কোথা থেকে লাশগুলো ধলেশ্বরীতে এসেছে ও হত্যার সঙ্গে কারা জড়িত রয়েছে সেদিকেও নজরদারি করা হচ্ছে। হত্যার ক্লু উদঘাটন ও ঘাতকদের চিহ্নিত করতেও পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে।

ধলেশ্বরী নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা জানান, ধলেশ্বরী নদীর মোল্লারচর, শাহ সিমেন্ট এলাকা ও শীতলক্ষ্যা-ধলেশ্বরী মোহনা রাতের বেলায় বেশ নিরিবিলি থাকে। এখানে রাত ৮টার পর পুলিশের টহলও থাকে না। দূরপাল্লার লঞ্চ চলাচল ছাড়া স্থানীয় ট্রলার, ভলগেট বা অন্য নৌযান চলাচল রাতের বেলায় অনেকটা কম থাকে। আর মধ্যরাত কিংবা গভীর রাতে একেবারেই ভুতুড়ে হয়ে পড়ে ধলেশ্বরী নদী। এতে ঘাতকরা নিরাপদ ভেবেই ধলেশ্বরীকে লাশ গুমের আস্তানা বানিয়ে ফেলছে এবং জাহাজ থেকে চোরাই মালামাল খালাস করছে বলে বাসিন্দারা জানিয়েছেন।

আমাদের সময়

Leave a Reply