মুক্তিযোদ্ধার জবানবন্দি

শাখাওয়াত সরকার, গজারিয়া থেকে: একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের অনেক স্মৃতিই মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মুছে যাবে না। এর একটি স্মৃতিই আমার হৃদয়কে ব্যথিত করে। ৯ই ডিসেম্বর বালুয়াকান্দি গ্রামবাসীর সকালে ঘুম ভাঙেনি তখন। এ সময় ভাটেরচর ব্রিজের কাছে শোনা যাচ্ছিল গোলাগুলির শব্দ। গ্রামবাসী কিছু বুঝে ওঠার আগেই কয়েকশ’ হানাদার বালুয়াকান্দি গ্রামে হোয়াইট ফসফরাস ছিটিয়ে ১০০/১২০টি ঘর জ্বালিয়ে দেয়। এরপর তারা ভাটেরচরের দিকে এগিয়ে গেলে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে টানা ৬ ঘণ্টা যুদ্ধ হয়। যুদ্ধ চলাকালে ১টি গুলি আমার বাম হাতে বিদ্ধ হয়। তখনও রক্ত ঝরছিল। এ অবস্থা দেখে সহযোদ্ধা শওকত ওসমান চিৎকার করে ওঠে। আধঘণ্টা পর আমার বাম হাত অবশ হয়ে যায়। সহযোদ্ধারা চিকিৎসার জন্য নৌকাযোগে মেঘনার রামপুরা বাজারে নিয়ে যায়। সেদিনের স্মৃতি মনে করে কেঁদে ওঠেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সাত্তার। মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামে আবদুস সাত্তারের জন্ম। ছোটবেলায় বাবা মারা যাওয়ায় পড়াশোনা তেমন না করে ১৯৬২ সালে সড়ক ও জনপথ বিভাগ, রাঙ্গামাটিতে চাকরি নেন তিনি।

২ বছর চাকরি করার পর ১৯৬৪ সালে সেনাবাহিনী ই.এ.ই কোরে চাকরি নেন। ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধে বিভিন্ন স্থানে যুদ্ধ করেছেন আ. সাত্তার। ১৯৭১ সালের জানুয়ারি মাসে ছুটিতে আসেন। মার্চে যখন স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হয় তখন তিনি পাকিস্তানে না গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। তার কমান্ডার ছিলেন হোমনার গিয়াস ও গজারিয়ার কমান্ডার রফিকুল ইসলাম (বীর বিক্রম)। যুদ্ধকালীন বিভিন্ন স্মৃতি নিয়ে দীর্ঘ এক ঘণ্টা কথা বলার সময় তিনি কয়েকবারই কেঁদে ওঠেন। বলেন, ‘টানা ৩ দিন না খেয়ে যুদ্ধ করে এক রাতে শ্রীনগরে খালার বাড়িতে আমি যাই রাত ২টায়। খালা খাবারের আয়োজন করলেও হানাদারের ভয়ে না খেয়েই ঘর থেকে বের হয়ে চলে যাই। ৯ই ডিসেম্বর বাউশিয়া ঘাটে হানাদারদের সঙ্গে মুখোমুখি যুদ্ধে বিএলএফের কমান্ডার নজরুল শহীদ হন। ওই সময় আমি ছিলাম নজরুলে উত্তর পাশে। আহত নজরুলকে হাসপাতালে নেয়ার পথেই মারা যান তিনি। সেদিন দেখেছি মৃত্যুর কত যন্ত্রণা, কত আর্তনাদ। ওইদিনই ভাটেরচর ব্রিজের ঢালে মুক্তিযোদ্ধা সাত্তার তার বাহিনী নিয়ে টানা ৬ ঘণ্টা যুদ্ধ করে। সেদিন হানাদারদের গুলিতে তিনি আহত হন। ওই সময় ২ দিন না খেয়ে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হয়েছে তাকে। না খেয়ে যুদ্ধ করার সংবাদ পেয়ে ভবেরচরের বাচ্চু মাস্টার খাবার নিয়ে আসেন। কিন্তু হানাদারের আক্রমণের আশঙ্কায় খাবার খেতে পারিনি’।

স্বাধীনতার পর আবারও তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। ১৯৭৩ সালে ৫ই জুলাই চাকরি থেকে অবসরে আসেন। তখন থেকেই তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত গীতিকার, সুরকার ও লেখক হিসেবে সুপরিচিত। তার সম্পাদনায় ভাবতরঙ্গ ইসলামী গানের বই প্রকাশের পথে রয়েছে।

মানবজমিন

Leave a Reply