প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়া

দেলওয়ার হোসাইন
গতকাল প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত দুই বোনের খবর দেখলাম একটি বাংলাদেশী চ্যানেলে। প্যারানয়েড শব্দটি আমার স্মৃতিতে ভীষণ আলোরণ তুললো।কারণ,বছর পনর আগে আমি এক সিজোফ্রেনিয়া রোগী নিয়ে ভীষণ বিপদে পড়েছিলাম। তাকে সামলাতে গিয়ে আমার এক মাসের রাতের ঘুম হারাম হয়ে গিয়েছিলো।

দেশ থেকে প্রায় ১২/১৪ হাজার মাইল দূরে ব্রাজিলের কেন্দ্রস্থলে , দেশটির রাজধানী ব্রাসিলিয়ায় এ ঘটনা ঘটে।আর সেখান থেকে বিশদ বিবরণ দিয়ে রিপোর্ট পাঠাতে হয়েছিলো পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে তাকে ফেরত পাঠানোর অনুমতি চেয়ে।আমি তার রোগটির নাম দিয়েছিলাম “প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়া”।তার সন্দেহ বাতিকতা এত চরমে পৌচেছিলো যে তা মানুষ খুন করার পর্যায়ে চলেগিয়েছিল। আমি তার ওই অবস্থাকে নিশ্চিত না হয়েই ‘প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়া “বলে সজ্ঞায়িতকরেছিলাম। সত্যি বলতে কি আজো আমি নিশ্চিত নই যে সিজোফ্রেনিয়া বলতে কি বোঝায়। বিভিন্ন লেখায় প্যারানয়েড ও সিজোফ্রেনিয়া পড়তে পড়তে আমার মাথায় গেথে গিয়েছিলো ‘প্যারানয়েড ‘মানে সন্দেহ বাতিকতা এবং সিজোফ্রেনিয়া অর্থ পাগলামী। একজন পরিচিত ডাক্তার বললেন-এ শব্দটির পরিধি বিশাল। বাংলা ভাষায় এক কথায় এটিকে বোঝানো সম্ভব নয়।

এবার গল্পে আসি। বৈদেশিক বিষয়ক সার্ভিসের নিয়মানুযায়ী অন্য সার্ভিসের ক্যাডারভূক্ত কোন কর্মকর্তাপররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে প্রেষণে কাজ করলে তিন-চার বছর পর তার ঐ মন্ত্রনালয়ের বিদেশস্থ মিশনে একটি পোস্টিং পাওয়ার যোগ্যতা জন্মায়।কিন্তু বিদেশে তার পোস্টিংটি হবে সমপর্যায়ের ফরেন সার্ভিসের কর্মকর্তার এক ধাপ নিচে।সেই নিয়মে আমি ও ব্রাজিলস্থ বাংলাদেশ মিশনে তৃতীয় ধাপে পদায়ন পাই। অবশ্য দ্বিতীয় ধাপটিতেকোন অফিসার না থাকায় আমিই দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ধাপের কাজের দায়িত্ব পাই।কিছুদিন পর প্রথম ধাপের কর্মকর্তা(রাষ্ট্রদূত) দীর্ঘ মেয়াদী ছুটিতে দেশে চলে গেলে আমি মন্ত্রনালয়ের আদেশে অন্তর্বর্তীকালীন ভার-প্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করি। এ দায়িত্বের জন্য বেতনের বিশ শতাংশ ভাতা পাওয়া যায়।এ দায়িত্বে থাকা অবস্থায মিশনের একজন স্টাফ প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হন। বলা যায় এ রোগটি তার পূর্ব হতেই ছিল। প্রায় একমাস তার পাগলামী আমাকে সামাল দিতে হয়েছিল। অবশ্য অন্যান্য স্টাফরা এ ব্যাপারে আমাকে প্রয়োজনীয় সহযোগীতা দিয়ে আমার বোঝা অনেক লাঘব করেছিল। তার পাগলামীর সূত্রপাত থেকে তাকে সপরিবারে প্লেনে উঠায়ে দেয়ার ঘটনা ক্রমান্নয়ে ব্যক্ত করবো। এর পূর্বে তার ব্যক্তিগত কিছু বিবরণ দেয়া প্রয়োজন মনে করছি। সে এখন ও পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে চাকরি করছে। তাই তার নাম বলছি না।

ধরি তার নাম “এম”।রোগটি তার আশৈশব সংগি। সে মতিঝিল মডেল স্কুলের ব্রিলিয়ান্ট ছাত্র হ ওয়া সত্বেও তার এই রোগটির কারণে সম্ভবত:আই এ পাশ করার পর আর এগুতে পারেনি। গরিব ঘরের ছেলে ।তাই বৈদেশিক মন্ত্রনালয়ে স্টেনোগ্রাফার হিসেবে চাকুরিতে যোগদান করে।ওই মন্ত্রকের বিধি অনুসারে প্রতিটি কর্মচারী হতেপ্রত্যেক অফিসার সবাই একটি নির্দিষ্ট ব্যবধানে বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশনগুলোতে পোস্টিং পেতে পারেন। ওই মন্ত্রনালয়ের চাকরিতে এই পদায়ণগুলো কর্মচারী/কর্মকর্তাদের জন্য এক একটি বিরাট পুরস্কার। পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে প্রেষণে চাকরি করার সুবাদে অনেক অদ্ভূত অদ্ভূত অভিঞ্জতার সম্মুখীন হয়েছি এবং অর্জণ করেছি। সে সম্পর্কে আর একদিন বলার আশা রইলো।

ভাল ইংরেজি জানা,ভাল ডিকটেশন নেয়া ও নিখুঁত শিল্পিত টাইপের জন্য ‘এম’ সব অফিসারের প্রিয় ছিল। যতদূর মনে পড়ে ,কলকাতা উপ-মিশনে ও সে একবার পোস্টিং পেয়েছিল। আমি যখন ওই মিশনে যোগদান করি তখন তার পরিবারে ছিল তার স্ত্রী ও তিন বছরের এক মেয়ে। সুস্থ অবস্থায় তার ব্যবহার এত অমায়িক ,মার্জিত ও পরিমিত বিনয়ী ছিল যে ভাবা ও যেত না যে ,সে সিজোফ্রেনিয়ার মতো একটি মারাত্মক ব্যধিতে ভুগছে। আমি সপরিবারে ব্রাজিল পৌছলে সে আমাদের রিসিভ করতে এয়ারপোর্টে যায়। ৫/৬ জন স্টাফের মধ্যে তার বুদ্ধিদীপ্ত কথা বলার কায়দা এবং গলার ভয়েজ সবাইকে ছাড়িয়ে তার দিকে আমার মনোযোগ আকর্ষণ করেছিল। প্রথম পরিচয়ে একজন অদেখা মানুষকে বহু দিনের অন্তরংগ বসের মত গ্রহন করার এমন কায়দাটি জীবনে আর কারোর মধ্যে দেখেছি বলে মনে পড়ে না।

এক পর্যায়ে আমাকে বললো -স্যার,শুনেছি আপনি একজন নরম মনের মানুষ। দেখতে রুক্ষ ও লাল মাটির দেশটিতে সবুজ অরণ্যানী ঘেরা এই শহরের মানুসগুলোকে দেখবেন নিষ্পাপ ,সরল এবং গাছগুলোর মতো অকপট।তারা প্রতারণা,মিথ্যা বলা বা কাউকে ঠকানো কি জিনিস তা জানেনা। সাদা-কালো উভয় শ্রেণীর মধ্যেই এরূপ মানুষ পাবেন। তার এই কবিত্বে প্রথম দিন থেকেই আমি তার প্রতি দুর্বল হয়ে পড়ি।

আমাদের জন্য নির্ধারিত বাসায় পৌছে দিয়ে সে চলে গেল। বলে গেল আমরা হাত-মুখ ধুয়ে ফ্রেশ হলে রাতের ডিনার খাব একজন স্টাফের বাসায়। সেখানে সবার দাওয়াত । আমাদের আগমন উপলক্ষে।রাত দশটা এগারটার দিকে মিশনের ড্রাইভার আমাদেরকে একাউন্টেনের বাসায় নিয়ে গেল । এক উড়ন্ত ঈগলের মতো বিশাল আকৃতির হ্রদের অপর তীরে, রাজধানীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের পাশেই। অবসন্ন দেহে ছেলে-মেয়েসহ সবাই গেলাম। সেদিন সবাই এক সাথে রাতের খাবার খেলাম প্রায় মধ্যরাতে।

কাছাকাছি সব স্টাফদের এপার্টমেন্ট। সেদিন আর কারো বাসায় যাওয়া হলো না।

এরপর আরম্ভ হলো আমার দৈনন্দিন কাজ। একটি নিভৃত দেশ হলে ও দৈনিক চিঠি-পত্র ও মিনিস্ট্রি থেকে ফ্রাক্স-বার্তামিলে শ’-এর মতো ডাক পেতে লাগলাম। এসব চিঠি পড়া ও জবাব দেয়া সহজ কাজ ছিল না। তদুপরি ছিল মিশনের রুটিন প্রশাসনিক কাজ। দ্বিতীয় প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে এ সব কাজ আমাকেই করতে হতো। প্রয়োজনে রাস্ট্রদূতের পরামর্শ নিতে হতো। আমার আসার পর এ মিশন সচল হয়ে উঠলো। আমার পূর্বে যারা ভার-প্রাপ্ত রাস্ট্রদূত হিসেবে কাজ করেছেন তাদের দু’জন ছিলেন বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশের প্রথম রাস্ট্রপতির মহান হত্যাকারীবৃন্দ।একজনের নাম এ টি এম নূর(বর্তমানে কানাডায় পলাতকআছে। সরকার চেষ্টা করছেন উকিল লাগিয়ে তাকে দেশে ফেরত এনে ফাঁসিতে ঝুলাতে।) আর একজন হলেন এ এম রাশেদ চৌধুরী।(। সে বর্তমানে যুক্তরাস্ট্রে পলাতক।)

মি: ‘এম’-এর পদবী ব্যক্তিগত সহকারী।(মন্ত্রনালয়ের উচ্চমান সহকারী এবং ব্যক্তি-গত সহকারী পদদ্বয় বর্তমানে যথাক্রমে প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও পারসোনাল অফিসারে রূপান্তরিত) অদ্ভূত দ্রুততায় ডিকটেশন গ্রহন ও ইলেকট্রিক টাইপ-রাইটারে ঝকঝকে চিঠি তৈরি হতে লাগলো।এগুলোর বারো আনা যেত স্থানীয় যোগাযোগকারী অফিসগুলোতে।বাকীগুলো ফ্যাক্সের মাধ্যমে বাংলাদেশে।

এই এম আমাকে গ্রামাটিক্যালি শুদ্ধ পর্তুগিজ ভাষা শিখাতে লাগলো। ওর কৃপায় ছয় মাসেই আমি কথা বলার মতো স্থানীয় একমাত্র ভাষাটিকে রপ্ত করে ফেললাম।সে আমার তিন চার বছর আগে থেকে এখানে আছে।। সে অনর্গল পর্তুগীজ ভাষায় কথা বলতে পারতো। আর ব্রাজিল এমন এক দেশ। হাজারে একজন ও পাওয়া যেত না যে ইংরেজি পুকু পুকু (সামান্য সামান্য )বলতে পারে।
অতি অল্প দিনেই এম এর সাথে আমার সম্পর্কটা অনেকটা সমপর্যায়ের কলিগের মতো হয়ে গেল।একদিন তাকে বললাম-এম তুমি সত্যিই বৈদেশিক মন্ত্রনালয়ের এ্যাসেট। ইতিপূর্বে আমি পাচটি মন্ত্রনালয়ে আমলা হিসেবে কাজ করেছি। ওর মতো এমন ব্রিলিয়ান্ট স্টাফ পাইনি। তাকে সে কথাও বললাম। কিন্তু সে আমাকে উত্তরে বললো-স্যার,আমাকে এত প্রশংসা করবেন না। তা হলে একদিন ভীষণ আঘাত পেতে হবে। জিঞ্জেস করলাম -কেন?বললো -দেখবেন সময় এলে।

তার সে কথায় আমল দেইনি।আমার ব্রাজিলের চাকরির ৯ মাসের মাথায় খুব জরুরি প্রয়োজনে একদিন আট-দশটি চিঠি তৈরি করতে হবে। বিকেলের দিকে বাধ্য হয়ে আমি আর এম ছুটির পর অফিসে থেকে গেলাম। আর একজন ছিল যে ফ্যাক্স পাঠাতো।

চার-পাচটি চিঠি টাইপ হ ওয়ার পর ‘এম’ এর মেজাজ চড়া হতে লাগলো। ওর রূমে দাঁড়িয়ে একটি চিঠি দেখে যেই বলেছি-এই চিঠিটি খুব চমৎকারভাবে তৈরি করেছো। সাবাস ‘এম’। হঠাৎ সে প্রায় চিৎকার করে উঠলো। -যান ,আমার রুম থেকে যান।আমাকে দিয়ে কাজ বাগাতে আমাকে তেল দেয়া হচ্ছে? আপনার মতলবটা কি?যান,আমি আর একটি চিঠি ও টাইপ করবো না ।তার এই অকারণ আকস্মিক ক্ষেপে উঠার কারন বুঝতে না পেরে বললাম’এম’ হঠাৎতুমি এমন আচরণ করছো কেন?তার চিৎকার শুনে ফ্যাক্স প্রেরক দৌড়ে এসে বললো-স্যার, আজকে ওকে ছুটি দিয়ে দিন।বছর খানেক আগে সে তার এরূপ অকারণে ক্ষেপে উঠার ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে।মেজাজ বিগড়ে গেলে সে সবার সাথে মারমুখো আচরণ করে।

চিঠিগুলো খুব জরুরী। ভাবলাম আমিই বাকি চিঠিগুলো টাইপ করে পাঠাবো। ’এম’কে বললাম-তুমি ছুটি চাও? তা হলে চলে যাও।এতে সে আরো ক্ষেপে গেল।আমাকে শুয়োরের বাচ্চা বলে সম্বোধস করে জানতে চাইলো তাকে এই দয়া দেখাবার কারণ কি।

মহা মুস্কিলে পড়া গেল ।সে যাবে ও না আবার শুধু শুধু ক্ষেপে ও যাবে।চিঠি টাইপ করবে না। কি করবো ভেবে পাচ্ছিলাম না।

আমিই তখন মিশনের সর্বময় দায়িত্বে।চতুরতার আশ্রয় নিয়ে বললাম- চল আমরা সবাই চলে যাই।আজ আর কাজ করবো না।দারোয়ানকে ইংগিতে জানালাম-আর একটু পর আমরা আসছি।অফিস আংশিক বন্ধ করলেই চলবে।

পরদিন এম অফিসে এলো না। টেলিফোনে বিনীত ভাবে জানালো-সে অসুস্থ।গত দিনের খারাপ আচরন সম্পর্কে কিছুই বললো না।

দুই দিন পর তার নিকট প্রতিবেশী এক কলিগ জানালো তার অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে। বৌ-বাচ্ছাকে কাছে ঘেষতে দি্চ্ছে না।পরের দিন খবর পেলাম রাতে বৌকে আঘাত করেছে। বাচ্চাটিকে ও মারতে উদ্ধত হয়েছিলো।এ ব্যাপারে তার বৌকে যতবার ফোন করা হয়,সে জানায় এম ভাল আছে।পরে জেনেছি এর কারণ।সে কাউকে জানতে দিতে চায় না যে তার স্বামী পাগল।চতুর্থ দিন তার বউ পালিয়ে নিকটস্থ তার এক কলিগের বাসায় উঠেছে।দু’দিন ধরে তাদের খাওয়া-দাওয়া নেই। ঘরে কিছু পাক করতে দিচ্ছে না।এম কিছু খাবে না,বউ -বাচ্ছাকে কিছু খেতে দিবে না।ওর সন্দেহ খাবারের সাথে কেউ বিষ মিশাতে পারে।খবর শুনে কয়েকজন স্টাফ নিয়ে তার বাসায় গেলাম। গিয়ে দেখি সে তার ফ্ল্যাটের দরজা বন্ধ করে ভিতরে চিৎকার করে গান গাইছে।কোন বিরহের গান নয়,যা মনে আসছে তাই।

প্রধান দরজার বাইরে দীর্ঘ বারান্দা ছিল। সেখানে ঘরের হাড়ি-পাতিল,খাদ্য-দ্রব্যের টিন-কৌটা অযত্নে স্তুপ করা। অনেক অনুনয়-বিনয় করে দরজা খোলা হলো। আমাদের দেখে সে জানতে চাইলো কেন এসেছি। এ অবস্থায় কি করবো ভাবছি।নিকটস্থ এক হাসপাতালে যোগাযোগ করা হলো। তারা জানালো -রোগী নিয়ে আসতে হবে।আমরা তাকে হাসপাতালে নিতে চাইলে সে কিছুতেই যাবে না।বরং জানতে চাইলো -আমাদের হাতে কোন ছুড়ি-কাঁচি আছে কিনা। অগত্যা পুলিশের স্মরনাপন্ন হলাম। ব্রাজিলিয়ান পুলিশ খুনির ও বন্ধু।খুনিকে ধরে নিয়ে জেলখানায় জামাই আদরে রাখবে।কোর্টে হাজিরা দেওয়াবে।কোন পরিস্থিতিতেই আসামীকে একটা ফুলের টোকা দিবে না। এ ব্যাপারে নালিশ হলে তাদের চাকরি যাবে। বিচারকরাই তাৎক্ষনিক আদেশ দিবে পুলিশের বিরুদ্ধে তদন্ত করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে। এই ভয়ে পুলিশ কোন অপরাধীর গায়ে হাত তোলে না।কিন্তু কিছুতেই তারা পাগলের বন্ধু হতে চাইলো না। পরিশেষে বরিশালের এক তাগড়া স্টাফ বললো-ধরেন স্যার,আমরাই ওকে হাসপাতালে নিয়ে যাই।তাই করা হলো। জোর প্রয়োগ করে তাকে হাসপাতালে হাজির করা হলো। ভর্তি করা হলো বিপদজনক রোগীদের ক্যাবিনে।ঔষধ দেয়া হলো। খাওয়ানো হলো দিন দু’ই। তিন দিন পর সে পর্তুগিজ ভাষায ওয়ার্ডের সেবক-সেবিকা ও পাহাড়াদারদের মিষ্টি কথায় এমন মুগ্ধ করে ফেললো যেন তার মতো সুস্থ ও স্বাভাবিক মানুষ এ জগতে দ্বিতীয়টি নেই। আমরাই সবাই পাগল।ষড়যন্ত্র করে দেশে পাঠাবার জন্যে তাকে পাগল বানাতে চাই।

একদিন বিকেলে সে পাগলদের দর্শনার্থীর বেশে সেখান থেকে পালালো। পালিয়ে সে লুকিয়ে রইলো তার বাসার কাছে একটি দীর্ঘ আন্ডার পাসের ভিতর।

অফি সে খবর দেয়া হলো। আমরা সবাই বেরিয়ে গেলাম তার খোঁজে।রাজধানী শহরের কেন্দ্রস্থলের আনাচে-কানাচে,এমন কি স্ট্রিপটিজ নাচের হলেও । মহা ভাবনায় পড়ে গেলাম। তাকে নিয়ে আরেক বিপদ ছিল যে, সে পাগলামীর ঘোরে দ্রুত চলন্ত গাড়ির রাস্তা আগে-পাছে না তাকিয়ে অবলীলায় পার হয়ে যায়। সারারাত ঘুম এলো না। পরদিন সকালে গাড়ি নিয়ে তার বাসায় যাব। বাসার অদূরে আন্ডার পাস। ভাবলাম আন্ডার পাসের ভিতর একবার দেখে যাই। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছিল।গাড়ি এক নিরাপদ জায়গায় রেখে হেঁটে ঢুকলাম আন্ডার পাসের ভেতর। কোয়ার্টার কিলোমিটার এর মতো দীর্ঘ আন্ডার পাস পাশাপাশি দুইটি ভয়ানক ব্যস্ত রাস্তা অতিক্রমকরেছে। কিছুদূর যেতেই দেখি জনাব ‘এম’ দাঁড়িয়ে কোন ;দিকে যাবার জন্য ইতস্তত করছে। আমি তাকে দেখিনি। সেই আমাকে দেথে ডাক দিয়েছে অত্যন্ত ভাল মানুষের মতো।।যেন কিছুই হয়নি।তার অবস্থা যাচাই করার জন্য আমি ও নির্ণিপ্তভাবে প্রশ্ন করলাম-কোথায় যাচ্ছো? আমি যেন এই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মধ্যে হাওয়া খেতে বেড়িয়ে ছিলাম। হঠাৎ তার সাথে দেখা। সে উত্তর দিল-স্যার,সামনেই দোকান আছে। দু’টি ডাব খাব।আপনি খাবেন? চলেন ভাল লাগবে।তার সাথে গিয়ে শীতের মধ্যে ডাব খেলাম।শীতের দিন না হলে ও বর্ষায় ভীষণ শীত নেমেছে। এমন শীতে কেমন পিয়াসী ডাব খায় জানিনা। খেতে ও পারে।ব্রাজিলিয়ানরা তো জন্ম থেকেমৃত্যু পর্যন্ত অবধি পানি পান করে না। যে দেশে পানির চাইতে বিয়ার সস্তা, সে দেশে পয়সা দিয়ে পানি কে খায়?।তাই বোধহয় শীতে ও দোকানে ডাব বিক্রি হচ্ছে।

তাকে বলতেই বিনা বাক্যে বাসায় চলে এলো। বাসায় বিছানাপাতি উলোট-পালট , হাড়ি-পাতিল সব বাইরে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছে। ইলেকট্রিক ওয়েয়ারিং সম্পূর্ণ খুলে ফেলা হয়েছে।ওয়েয়ারিং খুলতে গিয়ে ওয়াল ভেংগে গেছে্। এ কাজ করার পিছনে তার সন্দেহ ইলেকট্রিক শক দিয়ে তাকে মেরে ফেলা হতে পারে। হাসপাতালে খাওয়ানো ঔষধে কিছু কাজ হয়েছে মনে হলো। তবু কোর্স কম্প্লিট করার জন্য সেখানে রাখা দরকার ।তাকে বুঝিয়ে-শুনিয়ে আবার হাসপাতালে ভর্তি করা হলো। এবার জেনারেল ওয়ার্ডে।

ডাক্তাররাই বললেন-তার পাগলামীর সাইক্লোন তাকে অতিক্রম করে গেছে। কয়েক দিনের নির্ঘুম ও নিরাহার তাকে দুমরে-মুচড়ে দিয়ে গেছে্।তার বউ-বাচ্চাকে তার ওয়ারর্ডেরাখা হলো তাকে সংগ দেয়ার জন্য। ঝড়ের মাঝখানে মন্ত্রনালয়ে রিপোর্ট পাঠানো হয়েছিল তার অবস্থা জানিয়ে এবং তাকে দেশে পাঠাবার অনুমতি চেয়ে। যথাসময়ে অনুমতি এসে গেল। মুস্কিল হলো হাসপাতাল থেকে তার রিলিজ অর্ডার নিয়ে।হাসপাতাল কতৃপক্ষ কিছুতেই লিখবে না যে তার এখন প্লেনে চড়তে অসুবিধা নেই।আমরা ও তাকে এ অবস্থায় প্লেনে পাঠাতে ভরসা পাচ্ছিলাম না। সে আট-নয় দিন পর ছাড়া পেলে । আমাদের রিস্কেই তাকে টিএ-ডিএ এ্যাডভান্স দিয়ে টিকেট কেটে প্লেনে উঠিয়ে দিলাম। সে ও তার পরিবার দেশে আসার জন্য উদগ্রীব হয়ে পড়েছিলো। প্রসংগত উল্লেখ্য ,হাসপাতাল থেকে পালিয়ে এসে সে তার ফ্ল্যাটের নিচে রক্ষিত গাড়ি ভাংচুর করেছে। এক মহিলাকে নাকি আক্রমন করেছিল মারার জন্য। তার স্বামী ঘর থেকে বন্দুক এনে তাকে গুলি করার প্রস্তুতি নিয়েছিল।অন্যান্য প্রতিবেশিরা সে একজন ডিপ্লোম্যাটিক মিশনের স্টাফ বলে গুলি করতে ওই প্রতিবেশিকে নিবৃত করেছিল। এরূপ ক্ষেত্রে ব্রাজিলিয়ানরা আগ্নেয়াস্ত্র প্রয়োগ করে অনায়াসেই আত্মরক্ষার ব্যবস্থা নিতে পারে।এতে খুন-খারাবি হলেও আত্মরক্ষাকারী পার পেয়ে যায়।

প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়া তাই আমার মগজে উজ্জ্বল ডাটাব্যাজ হয়ে আছে।
সমাপ্ত।

2 Responses

Write a Comment»
  1. আমার লেখা দুইটির উপর দু’একজন পাঠকের মন্তব্য আশা করেছিলাম। কিন্তু হতাশ হরাম।

    1. আমি নিজেও গত ৬ বছর যাবৎ হতাশ…

Leave a Reply