ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ রুটে নৌ ধর্মঘট প্রত্যাহার

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ রুটে বাল্কহেড (বালুবাহী ইঞ্জিন চালিত ছোট জাহাজ)সহ বালুবাহী সকল নৌ যান চলাচলে ৩ দিন ধরে চলা ধর্মঘট মঙ্গলবার রাতে প্রত্যাহার করা হয়েছে। বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ধর্মঘট আহ্বানকারী শ্রমিকদের বৈঠকের পর ধর্মঘট প্রত্যাহারের এ সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় নৌ পথে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসীদের তৎপরতা ও ইজারাদারদের বিরুদ্ধে নৌ শ্রমিক শ্রমিকেরা বক্তব্য দিলে ইজারাদারদের লোকজন এর প্রতিবাদ করে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কয়েক দফা বাকবিতণ্ডার ঘটনা ঘটে। তবে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে রাত সোয়া ৮টা পর্যন্ত টানা এ বৈঠক চলে। পরে রাত সাড়ে ৯টায় নারায়ণগঞ্জ শহরের ৫ নম্বর খেয়া ঘাট এলাকায় বাংলাদেশ জাহাজী ফেডারেশন ও বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়ন এর কার্যালয়ে এক সভা করে শ্রমিক নেতারা ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন।

রাতে এ ঘোষণার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন ঘাটে ৩দিন ধরে নোঙ্গর করে রাখা শত শত বাল্কহেড ও বালুবাহী জাহাজ চলাচল আবারো শুরু হয়।

বাংলাদেশ জাহাজী ফেডারেশন ও বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়ন এর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বাংলানিউজকে বলেন, জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় প্রশাসন আমাদের নিরাপত্তা প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বুধবার নারায়ণগঞ্জের মেঘনা সেতু থেকে মুন্সিগঞ্জের মুক্তারপুর সেতু পর্যন্ত শীতলক্ষ্যা, বুড়িগঙ্গা ও মেঘনা নদীতে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের যৌথ সমন্বয়ে একটি মনিটিরং কমিটি নিয়মিত নদীতে টহল দিবে।

কোনো বাল্কহেড কিংবা বালুবাহী জাহাজ সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ কিংবা ইজারাদারদের লোকজনদের আক্রান্তের শিকার হলে ম্যাজিস্ট্রেটদের এ দলকে জানাতে বলা হয়েছে।

তারা এ ব্যাপারে দ্রুত ও কঠোর ব্যবস্থা নিবে বলে আমাদের আশ্বস্ত করা হয়েছে।

এছাড়া পুলিশ, কোস্টগার্ড সদস্য সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা নদীপথে কঠোর নজরদাবি রাখাবে।

জাহাঙ্গীর জানান, নদী পথে প্রায় সময়েই জাহাজে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে সন্ত্রাসীরা চাঁদা দাবি করে। শ্রমিকেরা চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তাদের তাদের মারধর করে নগদ টাকা, মোবাইলসহ মূল্যবান সামগ্রী ছিনিয়ে নিত।

সভায় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনোজ কান্তি বড়াল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান, মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আতিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর উপ পরিচালক সাইফুল ইসলাম, কোস্টগার্ড পাগলা স্টেশনের কমান্ডার ফেরদৌস প্রমুখ।

নদী পথে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, বালু মহালের ইজারাদার ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপ বন্ধের দাবিতে শনিবার দুপুর থেকে এ ধর্মঘট শুরু হয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply