ঝুঁকি নিয়ে চলছে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ

শেখ সাইদুর রহমান টুটুল, লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) থেকে: রুটপারমিট, টাইম-টেবিল, সার্ভে সনদ, ফিটনেস, বিকনবাতি ছাড়া অবৈধভাবে অদক্ষ চালকদের দিয়ে মাওয়া-কাওড়াকান্দি ও মাওয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটে ঝুঁকি নিয়ে চলছে লঞ্চ। ফলে লঞ্চ দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি পরপর দুই দিন এখানে দুইটি লঞ্চ দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৪০ যাত্রী আহতসহ নিখোঁজ হয়েছে আট যাত্রী। দুর্ঘটনাকবলিত এমভি খান এক্সপ্রেস, প্রিন্স অব তালতলা ও এমভি কান্দিপাড়া নামের তিনটি লঞ্চই অসম্পূর্ণ কাগজপত্র নিয়ে অবৈধভাবে চলাচল করছিল। মাওয়া থেকে দুইটি নৌপথে মোট ৮১টি লঞ্চ চলাচল করলেও এর অধিকাংশই অবৈধ। ৩৪টি লঞ্চের বৈধ কাগজপত্র থাকলেও বাকি ৪৭টি লঞ্চই অবৈধভাবে চলাচল করছে। পাশাপাশি মাওয়া বন্দর কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রয়েছে ব্যাপক চাঁদাবাজির অভিযোগ। নিয়মিত মাসোহারা পাওয়ায় তিনি এসব অবৈধ লঞ্চের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। সার্ভে সনদ, ফিটনেস, সময়সূচি বা টাইম-টেবিল, মাস্টারদের বৈধ কাগজপত্র, বিকনবাতি, যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য লাইফ বয়াসহ জীবনরক্ষাকারী জিনিসপত্র ছাড়াই চলছে অবৈধ এসব লঞ্চ। আবার কাগজপত্র থাকা সত্ত্বেও মালিক সমিতির চাহিদা পূরণ না করায় চলতে দেয়া হচ্ছে না বৈধ লঞ্চকেও।

অথচ সমিতির নেতাদের লঞ্চ চলছে টাইম-টেবিল ও বৈধ কাগজপত্র ছাড়াই। চলছে অভিনব প্রতারণা। অনুমানের ওপর ভিত্তি করে ঢাকায় বসে লঞ্চের সার্ভে সনদ দেয়ায় এ দুইটি নৌরুটের যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বৈধ সময়সূচি বা টাইম-টেবিল রয়েছে মাত্র ৩৪টি লঞ্চের। তার মধ্যে মেসার্স মার্কুলি শিপিং লাইন্সের এমভি শাহ পরাণ (এম-২১৯৭) নামের একটি লঞ্চের বৈধ কাগজপত্র থাকা সত্ত্বেও লঞ্চ মালিক সমিতি এ রুটে চলাচল করতে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৪৭টি লঞ্চের কোন টাইম-টেবিল ও সময়সূচি নেই। এসব সময়সূচিবিহীন লঞ্চগুলোর মধ্যে রয়েছে আমজাদ, রাজিব-১, রাজিব-২, মুনমুন, শ্রেষ্ঠ, আশিক, নিপ্পণ, কান্দিপাড়া, তৈহিদ, খান এক্সপ্রেস, ইসলা, তাজমহল, হারিদিয়া, মাসুম, জুবলি, শামীম একপ্রেস,আয়ুব,বিসমিল্লাহ ইত্যাদি। কয়েকটি লঞ্চে গিয়ে দেখা যায়, লঞ্চের তলা দিয়ে পানি উঠে, আর তা বন্ধ করতে সিমেন্ট ঢেলে লেপে দেয়া হয়েছে। এসব ফিটনেস ও সময়সূচিবিহীন লঞ্চের টপছাদেও যাত্রী বহন করা হচ্ছে।

কখনও কখনও লঞ্চের ধারণ ক্ষমতার তিন থেকে চারগুণ যাএী নেয়ার ফলে লঞ্চ একদিকে হেলে পড়ে এবং পানি থেকে মাত্র ৩-৪ ইঞ্চি জায়গা ওপরে জেগে থাকে। আবার কখনও কোন কোন লঞ্চের ভেতরে পানি উঠে যায়। এরকমভাবে চলতে থাকলে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে এ নৌরুটে। অপর দিকে অনেক লঞ্চেরই কনভেন্সি ফি দীর্ঘদিন ধরে বাকি থাকায় সরকার এ খাত থেকে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অবৈধ লঞ্চে বৈধ লঞ্চের টিকিট দেয়া হচ্ছে যাত্রীদের। এতে অবৈধ লঞ্চটি দুর্ঘটনায় পতিত হলে বৈধ লঞ্চের টিকিট কাজে লাগিয়ে ঝামেলা থেকে বেঁচে যায় কর্তৃপক্ষ। মাওয়া নদীবন্দরের বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা বাবু লাল বৈদ্দর বিরুদ্ধে রয়েছে ব্যাপক অভিযোগ। বন্দর কর্মকর্তা লঞ্চ মালিকদের কাছে থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করায় এসব অবৈধ লঞ্চের বিরুদ্ধে কোন ধরনের মামলা দায়ের করেন না। ভুয়া বিল ভাউচার দেখিয়ে অফিসের বাথরুমের ক্লিনিং সামগ্রীসহ অন্য জিনিসপত্রের বিল করে নগদ টাকা পকেটে ভরার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সপ্তাহের অধিকাংশ দিনই তিনি স্টেশনে থাকেন না। পরিবারের সদস্যের সঙ্গে ঢাকায় বসবাস করেন। দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে এ পদে থাকায় লঞ্চ মালিকদের সঙ্গে তার রয়েছে বিশেষ সখ্যতা। তার অবহেলার কারণে এসব অবৈধ লঞ্চ নির্ধারিত লঞ্চ টার্মিনালে না ভিড়িয়ে ফেরি পল্টুনে লঞ্চগুলো নোঙর করে যাত্রী উঠা-নামা করালেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেন না।

যুগান্তর

Leave a Reply