যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সফল করতে একসঙ্গে কাজ করতে হবে

মুন্সীগঞ্জের থানারপুলে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য উদ্বোধন
যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সফল করতে সর্বস্তরের মানুষকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। মুন্সীগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের কাঙ্ক্ষিত মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্যের মোড়ক উন্মোচনকালে গতকাল এ কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুত্, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীরবিক্রম। শহরের থানারপুল গোলচত্বরে বিজয়ের ৪০ বছর পূর্তিতে এই ভাস্কর্যের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে এ ভাস্কর্যের উদ্বোধন করেন ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার আনিছুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এম ইদ্রিস আলী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মমতাজ বেগম এমপি, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের সভাপতি মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বীরবিক্রম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ লুত্ফর রহমান, জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম, পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোফাজ্জেল হোসেন, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক জয়নাল আবেদীন, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মনসুর আহমেদ কালাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জামাল হোসেন, সদর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার এমএ কাদের মোল্লা প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. তৌফিক-ই-ইলাহী বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পৃথিবীর ইতিহাসে একটি অনন্য ঘটনা। ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে। প্রধামন্ত্রীর ভিশন টুয়েন্টি-টুয়েন্টি ওয়ান সফল করতে নতুন প্রজন্মের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সফল করতে সর্বস্তরের মানুষকে একসঙ্গে কাজ করতে হয়ে। মুক্তিযুদ্ধের সময় যারা হত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুণ্ঠন, মা-বোনদের ইজ্জত নষ্ট করেছে তাদের বিচার বাংলার মাটিতে হবেই হবে। তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলে মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে বিদ্যুত্ সরবরাহ বৃদ্ধির ব্যবস্থা নেব। এছাড়া গ্যাস সংকট নিরসনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সকালের খবর

=======================

মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ভাস্কর্য উন্মোচন

মুন্সীগঞ্জে সুপার মার্কেট সংলগ্ন র‌্যাংগস চত্বরে ‘অঙ্কুরিত যুদ্ধ ১৯৭১’ ভাস্কর্যের ফলক উন্মোচন করা হয়েছে। উন্মোচন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী।

এ সময় তিনি বলেন, “বাংলাদেশের ইতিহাস পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যন্য ইতিহাস। ভাষা আন্দোলন, গণ অভ্যুত্থান ও দীর্ঘ নয় মাস স্বাধীনতা যুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস রচিত হয়েছে বলেই তা অন্যন্য।”

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ মুন্সীগঞ্জ জেলা ইউনিট কমান্ড এর কমান্ডার সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আনিছুজ্জামান আনিছের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন এম.ইদ্রিস আলী এমপি, মমতাজ বেগম এম.পি, মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম, পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী মোফাজ্জেল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা জামাল হোসেন, অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান প্রমুখ।

বার্তা২৪
====================

মুন্সীগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য উদ্বোধন

মুন্সীগঞ্জে বৃহস্পতিবার মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য ‘অঙ্কুরিত যুদ্ধ ১৯৭১’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম। এই উপলক্ষে ভাস্কর্য প্রাঙ্গণ শহরের সুপার মাকেট চত্বরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এক আলোচনাসভার আয়োজন করে। এতে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার আনিস-উজ-জামানের সভাপতিত্বে ড. তৌফিক-ই ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম ছাড়াও বক্তব্য রাখেন, আলহাজ মমতাজ বেগম এমপি, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের সভাপতি মাহবুবউদ্দিন আহম্মেদ বীর বিক্রম, জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলম, পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোফাজ্জেল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শেখ লুৎফর রহমান, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আলী আহম্মেদ বাচ্চু, সদর উপজেলা কমান্ডার এমএ কাদের মোলস্না, মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জামাল হোসেন ও মোঃ শহিদুল ইসলাম।

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার অর্থায়নে ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেন শিল্পী বিন্দু সরকার। মুক্তিযুদ্ধে গুরম্নত্বপূর্ণ অবদান রাখা মুন্সীগঞ্জ তথা বিক্রমপুরে এটিই মুক্তিযুদ্ধের প্রথম ভাস্কর্য। তাই এটির উদ্বোধনকে ঘিরে মফস্বল শহর মুন্সীগরঞ্জ ভিন্ন রকমের এক উৎসব আমেজ বিরাজ করে।

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুত, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদবিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম প্রধান অতিথির ভাষণে বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিকাশের মাধ্যমে দেশের সার্বিক উন্নয়ন চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাধীনতার এই সুফল প্রতিটি নাগরিক ভোগ করছে। ইতোমধ্যেই বিদু্যত সঙ্কট সমাধান হয়েছে। বর্তমান সরকারের এই অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে সকল দেশপ্রেমিক জনগণকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।

সভায় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাস্তবায়নের জোর দাবি জানান উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধাগণ। ভাস্কর্য উদ্বোধন উপলক্ষে পরে এক মনোঞ্জ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

জনকন্ঠ

Leave a Reply