আমার মেঝ দা বাড়ি আইছে রে…

হামিদুল্লাহ খানের লাশ বাড়িতে পৌছার পর কান্নার রোল
মোহাম্মদ সেলিম, লৌহজং থেকে ফিরে ॥ ‘আমার মেঝ দা বাড়ি আইছে রে…’ সেক্টর কামান্ডার ইউং কমান্ডার (অব)এম হামিদুল্লাহ খান বীর প্রতীকের লাশ নিজ বাড়িতে পৌছার পর চাচাতো বোন নিশু বেগমের এই কান্নায় হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। আরেক চাচাতো বোন শামিমা খান রুমা গলাগলি ধরে কান্নায় ভেঙ্গে পড়লে উপস্থিত কারও চোখের জল ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। শনিবার বেলা আড়াইটায় লৌহজং উপজেলার ঐতিহ্যবাহী মেদিনীমন্ডল খানবাড়িতে এই কান্নার রোল পরে। মহুর্তের মধ্যে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে তাদের বীর সন্তানকে শেষ বারের মত শ্রদ্ধা জানাতে। চাচাতো ভাই লিঙ্কন খান ডালুর একমাত্র পুত্র সাদী খানের সুন্নতে খাতনার অনুষ্ঠানে অংশ নিতে শনিবার তাঁর (হামিদুল্লাহ খান) নিজ বাড়িতে আসার কথা ছিল। সেই অনুষ্ঠানও হলো, তিনি আসলেন ঠিকই। তবে লাশ হয়ে, চির বিদায় নিতে..। প্রায় ১১ মাস আগে গত ৪ ফেব্র“য়ারি ভাগ্নে আসিম খানের বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে তিনি এসেছিলেন নিজ বাড়িতে। পার্শ্ববর্তী দোগাছি গ্রামের ভাগ্নের বিবাহ বার্ষিকী অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন ছাড়া দিনের বাকী সময় প্রিয় মাতৃভুমিতে কাটান।

দীর্ঘদিন পর ভাই বাড়ি যাচ্ছেন, সংবাদ পেয়ে অনুজ মোহাম্মদ আতিকউল্ল াহ খান মাসুদ বাড়ির কেয়ার টেকার রাজা মিয়াকে নির্দেশ দেন যাতে বাড়ি পরিচ্ছন্ন করে তাঁর উপযোগী করে রাখি হয়। রাজা মিয়া সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে অপেক্ষা করতে থাকেন কখন তিনি আসবেন। তাঁকে রিসিভ করার প্রহর আর শেষ হলো না। তিনি আর কখনওই জীবিত ফিরবেন, আসলেন মৃত অবস্থায়। তিনি বাড়িতে আসলে যে ডাইনিং টেবিলে বসে সাবাইকে নিয়ে খাওয়া দাওয়া করতেন, যে চেয়ারে তিনি বসতেন, যে বিছানায় রেস্ট নিতেন, ঘুমাতেন সবই তার জন্য উপযোগী করে রাখা হয়। কিন্তু…এখন সবই স্মৃতি। ঘরের দেয়ালে ভাইদের সাথে তাঁর ছবিও সোভা পাচ্ছে আগের মতই। তিনি বাড়িতে আসলে বাসভবনটি মুখরিত থাকতো, কিন্তু সেই প্রিয় বাসভবন খালি পড়ে আছে। বাড়ি প্রতিটি কনা, আর প্রকৃতি, যেন তাঁর শোকে মুহ্যমান।

চাচাতো ভাই ডালু কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার দাওয়াত গ্রহন করে মেঝ দা আমার কথা রাখলেন ঠিকই, বাড়িতে আসলেন, কিন্তু শেষ বিদায় নিতে আসলেন লাশ বাহী গাড়িতে করে! এই কষ্ট আমি কেমনে সইবো…। অন্যান্য স্বজনরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। বেলা আড়াই টা থেকে পৌনে চার সোয়া ঘন্টা ধরে তাঁর লাশ বাড়িতে রাখা হয়। খান বাড়িতে এই সোয়া ঘন্টার শ্বাসরুদ্ধকর শোকাবহ পরিবেশের মধ্য দিয়েই মাতৃভূমি থেকে শেষ বিদায় জানানো হয়। পরে জানাজার জন্য নেয়া হয় কালীরখিল মাঠে। এই অঞ্চলের মানুষ তিন তিন বার তাঁকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করে জাতীয় সংসদের পাঠান। এলাকার মানুষের জন্য তিনি সাধ্যমত করেও গেছেন। নানা কারণেই কালীর খিল মাঠটি ছিল তাঁর নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ স্থান। এই কালীর খিল মাঠে নির্বাচনের আগে বহু জনসভায় ভাষণ দেন জননেতা এম হামিদুল্লাহ খান। কিন্তু শনিবার বিকালে সেই মাঠেই তাঁর জানাজা হলো, এই অঞ্চলের হাজারো মানুষ শেষ শ্রদ্ধা জানালেন এই মাঠেই। পরে এখান থেকেই সরাসরি তাঁর লাশ ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালের মরচুয়ারিতে নিয়ে আসা হয়। তাঁর বড় পুত্র তারেক হামিদ খান কনিসহ আত্মীয় স্বজনরা লাশের সাথে ছিলেন। আজ রবিবার ঢাকার বনানী কবরস্থানে মায়ের পাশে তিনি চির নিদ্রায় শায়িত হবেন। হামিদুল্লাহ খান বাঙালি কাছে বেঁচে থাকবেন মহান মুক্তিযুদ্ধের এক বীর যোদ্ধা হিসাবে, এই অঞ্চলের মানুষের প্রিয় নেতা হিসাবে…।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply