সামরিক মর্যাদায় সমাহিত হামিদুল্লাহ খান

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সমর নায়ক অবসরপ্রাপ্ত উইং কমাণ্ডার এম হামিদুল্লাহ খানকে পূর্ণ সামরিক মর্যাদায় বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বনানী কবরস্থানে মা ও বড় ছেলের কবরের পাশে হামিদুল্লাহ খানকে সমাহিত করা হয়। এ সময় তার স্ত্রী রাবেয়া সুলতানা, বড় ছেলে তারেক আহমদ খান, ছোট ছেলে মুরাদ হামিদ খানসহ স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেলা ১১টায় মরহুমের কফিন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘর থেকে ঢাকা সেনানিবাসে বিমান বাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিমান বাহিনীর মসজিদে তার সর্বশেষ জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় বিমান বাহিনীর কর্মকর্তারা অংশ নেয়।

এরপর বিমান বাহিনীর গাড়িতে করে জাতীয় পতাকা ও বিমান বাহিনীর পতাকায় আচ্ছাদিত কফিনটি বনানী কবরস্থানে আনা হয়। সেখানে বিমান বাহিনীর একটি চৌকশ দলসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তার প্রতি রাষ্ট্রীয় সালাম জানায়।

সামরিক আনুষ্ঠানিকতা শেষে সেনাবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইকবাল করীম ভূঁইয়া, বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার মার্শাল এস এম জিয়াউর রহমান ও নৌ বাহিনী প্রধানের পক্ষে উপ-নৌ প্রধান রিয়ার এডমিরাল ফরিদ হাবিব এই বিএনপি নেতার কবরে পুস্পমাল্য অর্পণ করেন এবং সালাম জানান।

এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ড কাউন্সিলের পক্ষ থেকে এই মুক্তিযোদ্ধার কবরে পুস্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

বিএনপির মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক হামিদুল্লাহ খান শুক্রবার দুপুরে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মারা যান। তার বয়স হয়েছিলো ৭৪ বছর। তিনি উচ্চ রক্তচাপে ভুগছিলেন।

দাফনের সময়ে উপস্থিত ছিলেন হামিদুল্লাহ খানের ছোট ভাই দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক আতিকুল্লাহ খান মাসুদ, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম, সহসভাপতি আলতাফ হোসেন চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রুহুল আলম চৌধুরী, সাবেক হুইপ শহীদুল হক জামাল, মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারণ সম্পাদক শফিউজ্জামান খোকন, মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের সভাপতি শ্যামা ওবায়েদ।

শুক্রবার রাতে ও শনিবার সকালে ঢাকা সেনানিবাসে আল্লাহু জামে মসজিদ দুটি, নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে, সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় ও মুন্সিগঞ্জের লৌহজং থানায় গ্রামের বাড়িতে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

কুলখানি সোমবার

হামিদুল্লাহ খানের ঢাকা সেনানিবাসের ৩ নং সড়কের ১৫/১ এর বাসায় সোমবার বাদ মাগরিব কুলখানি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন তার ছোট ছেলে মুরাদ হামিদ খান। এতে সবাইকে অংশ নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর
=====================

পূর্ণ রাষ্ট্রীয় ও সামরিক মর্যাদায় হামিদুল্লাহ খান সমাহিত

মায়ের কবরের পাশেই চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার, বিএনপির মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক ও দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদের মেজো ভাই উইং কমান্ডার (অব) এম হামিদুল্লাহ খান বীরপ্রতীক। সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে ছয় দফা জানাজা শেষে রবিবার পূর্ণ রাষ্ট্রীয় ও সামরিক মর্যাদায় বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধে রণাঙ্গনের এই বীর যোদ্ধাকে। আজ সোমবার বাদ মাগরিব ঢাকা সেনানিবাস আবাসিক এলাকার ৩নং সড়কের ১৫/১ নং বাড়িতে মরহুমের কুলখানি অনুষ্ঠিত হবে।

রবিবার বেলা ১১টায় মরহুমের কফিন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘর থেকে ঢাকা সেনানিবাসে বিমানবাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিমানবাহিনী ঘাঁটি বাশারের কেন্দ্রীয় মসজিদে তাঁর সর্বশেষ (৬ষ্ঠ) জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার মার্শাল শাহ মোঃ জিয়াউর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তা অংশ নেন।
এরপর বিমানবাহিনীর গাড়িতে করে জাতীয় পতাকা ও বিমানবাহিনীর পতাকায় আচ্ছাদিত বীরযোদ্ধার মরদেহ বনানী কবরস্থানে আনা হয়। ৩০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পূর্ণ সামরিক রীতিতে শ্রদ্ধা জানানো হয় সামরিক বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত উইং কমান্ডার হামিদুল্লাহ খানকে। এরপর সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনীর একটি চৌকস দলসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা গার্ড অব অনার প্রদান করে এই সেক্টর কমান্ডারের প্রতি রাষ্ট্রীয় সালাম জানান।

সামরিক আনুষ্ঠানিকতা শেষে সেনাবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইকবাল করীম ভূঁইয়া, বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার মার্শাল এসএম জিয়াউর রহমান ও নৌবাহিনী প্রধানের পক্ষে উপ-নৌপ্রধান রিয়ার এডমিরাল ফরিদ হাবিব তাঁর কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন এবং সালাম জানান।

সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষে শোকাবহ পরিবেশে দুপুর ১টার দিকে বনানী কবরস্থানে মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয় হামিদুল্লাহ খানকে। এ সময় তাঁর ছোট ভাই দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক মোহাম্মদ আতিকউলস্নাহ খান মাসুদ, স্ত্রী রাবেয়া সুলতানা খান, বড় ছেলে তারেক হামিদ খান কনি, ছোট ছেলে মুরাদ হামিদ খান সানি, বড় ছেলের স্ত্রী রাইসা রিপা খান, ছোট ছেলের স্ত্রী আলিজা খানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্য, আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহীরা উপস্থিত ছিলেন।

দাফনের সময় বনানী কবরস্থানে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ এমপি, বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রুহুল আলম চৌধুরী, সাবেক হুইপ শহীদুল হক জামাল, সাবেক বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল সুলতান মাহমুদ, এয়ার ভাইস মার্শাল জামাল উদ্দিন আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারণ সম্পাদক শফিউজ্জামান খোকন, মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের সভাপতি শ্যামা ওবায়েদ প্রমুখ। দাফনের পর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের পক্ষ থেকে এই মুক্তিযোদ্ধার কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

দাফন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা তোফায়েল আহমেদ সেক্টর কমান্ডার হামিদুলস্নাহ খানের বীরত্বের কথা স্মরণ করে সাংবাদিকদের কাছে প্রতিক্রিয়ায় বলেন, হামিদুলস্নাহ খানের মৃতু্যতে সমগ্র জাতি আজ শোকাভিভূত। তিনি শুধু একজন মুক্তিযোদ্ধাই ছিলেন না, মুক্তিযুদ্ধকালীন ১১ নম্বর সেক্টরের প্রধান ছিলেন। সেক্টর কমান্ডার হিসেবে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে মরহুম হামিদুল্লাহ খান অনন্য ভূমিকা রেখেছেন। দেশ মাতৃকার স্বাধীনতার জন্য তিনি যে অবদান রেখে গেছেন তা সকলে চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।
দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহকর্মী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম বলেন, মরহুম হামিদুলস্নাহ খান দেশের জন্য যা করে গেছেন তা চিরকাল জাতি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন তাঁর নাম স্বর্ণাৰরে লেখা থাকবে।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল (অব) আলতাফ হোসেন চৌধুরী প্রয়াত এই বীরযোদ্ধার অবদানের কথা স্মরণ করে বলেন, তাঁর মতো একজন ব্যক্তিত্বকে হারিয়ে আমরা অত্যনত্ম শোকাভিভূত। আলস্নাহর দরবারে প্রার্থনা করি তাঁর সকল গুনাহ যেন তিনি মাফ করে দেন।

মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার হামিদুল্লাহ খান গত ৩০ ডিসেম্বর শুক্রবার দুপুরে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) মারা যান। শুক্রবার রাতে এশার নামাজের পর ঢাকা সেনানিবাসের আলস্নাহু জামে মসজিদে প্রথম, শনিবার সকাল সোয়া ১০টায় একই মসজিদে দ্বিতীয়, বেলা ১১টা ২২ মিনিটে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তৃতীয়, দুপুর সাড়ে ১২টায় জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ পস্নাজায় চতুর্থ জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এখানে জানাজা শেষে পুলিশের একটি চৌকস দল তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। বাদ আসর নিজ গ্রাম মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মেদিনীম-ল গ্রামে কালিরখিল মাঠে এম হামিদুলস্নাহ খানের পঞ্চম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ১১নং সেক্টরের অধিনায়ক হিসেবে বিভিন্ন রণাঙ্গনে বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেন। তিনি দেশ ও বিমানবাহিনীর জন্য দুর্লভ গৌরব অর্জন করেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ নেতৃত্বের জন্য তাঁকে বীরপ্রতীক উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

আজ কুলখানি

মরহুম এম হামিদুলস্নাহ খানের কুলখানি আজ সোমবার মরহুমের ঢাকা সেনানিবাসের ৩নং সড়কের ১৫/১ নং বাসায় বাদ মাগরিব অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন তাঁর ছোট ছেলে মুরাদ হামিদ খান। এতে সবাইকে অংশ নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

জনকন্ঠ

Leave a Reply