রণাঙ্গনের পথে

উইং কমান্ডার (অব) এম হামিদুল্লাহ খান (বীরপ্রতীক)
৫নং প্রভোস্ট এবং সিকিউরিটি ইউনিটের কমান্ডিং অফিসার ১৯৭১-এর মার্চ। আমি তখন পাকিস্তান এয়ার ফোর্সের ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট_ঢাকায় হেড কোয়ার্টার পূর্ব পাকিস্তানে এয়ার ফোর্সের ৫নং প্রভোস্ট এ্যান্ড এ্যাসিসট্যান্ট এয়ার প্রভোস্ট মার্শাল হিসাবে কর্মরত। ধানমণ্ডির ৩২নং সড়কের ৬৬১/বি নম্বর বাড়িতে আমার ইউনিট কাম বাসভবন। ২৫ মার্চের রাতে বাসার ছাদে দাঁড়িয়ে দেখলাম অস্ত্রের ঝলকানি। সঙ্গে আমার দুই ভাই। ছোট ভাই আতিকউলস্নাহ খান মাসুদ আর চাচাতো ভাই কুতুবুদ্দিন খান ঝিলু। ২৭ মার্চ সকালে রেডিওতে মেজর জিয়ার ঘোষণা শোনার পর ওরা দু’জন বেরিয়ে গেল। বাসায় তখন মা, ছোট বোন, স্ত্রী আর আমার তিনটি শিশুসন্তান। নিজে চাকরি করি সশস্ত্র বাহিনীতে। দেশের সামগ্রিক অবস্থা স্বাভাবিকভাবেই আমাকে ভাবিত করলো। বাসার বাইরে ও ভিতরে এনএসআই, এসবি এবং সশস্ত্র মিলিশিয়াদের প্রহরা। এদিকে কোন রাজনৈতিক সিদ্ধানত্মের অভাবে ভুগছিলাম সিদ্ধান্তহীনতায়। সেই অবস্থায় মেজর জিয়ার ঘোষণায় যেন অন্ধকার গুহা অভ্যন্তরে আলোর ঠিকানা খুঁজে পেলাম। ইতোমধ্যেই খোঁজ নিয়ে জেনেছি, বয়সে যারা তরুণ ও নির্ঝঞ্ঝাট, এমন সব ছাত্র-যুবক এবং সামরিক অফিসার ঘোষণা শোনার সঙ্গে সঙ্গে তাৎৰণিক সিদ্ধান্ত নিয়ে যুদ্ধে চলে গেছে। আমরা যারা পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করি, আমাদের ইচ্ছাকে বাস্তাবায়নের আগে তাদের নিরাপত্তার কথা ভাবতে হয়েছিল বৈকি।

এদিকে হানাদারদের অত্যাচার যতই বাড়তে লাগলো, বুকের ভিতর প্রতিশোধের ইচ্ছা ততই তীব্রতর হতে লাগলো। সশস্ত্র প্রহরার ফাঁক দিয়ে পরিবারের সদস্যদের নিরাপদ স্থানে রাখার সুযোগ খুঁজতে থাকলাম। আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করলাম। মুখ ফিরিয়ে নিল সবাই। কেউ ঝুঁকি নিতে চায় না। শেষ পর্যন্ত মা এবং ছোট বোনকে রাখার একটি জায়গা পাওয়া গেল। আমারই এক আত্মীয়ের বাসা। ভদ্রলোক সবকিছু জেনেও যে ঝুঁকি নিয়েছিলেন তা আমার চিরকাল মনে থাকবে। মা ও বোনকে রেখে এলাম আমার ফুপা বশিরউদ্দিন আহমদ (শিক্ষক ও লেখক) সাহেবের বাড়িতে। ফুপা আজ বেঁচে নেই। মা ও বোনকে ফুপার বাসায় রাখার পর স্ত্রী ও দুগ্ধপোষ্য সন্তান তিনটিকে নিরাপদ স্থানে রাখতে পারলেই নিশ্চিত হতে পারি আমি।

বাসা থেকে বের হওয়া তখন রীতিমতো ঝুঁকিপূর্ণ ব্যাপার আমার জন্য। কেবলই শুনছি বাঙালী অফিসারদের তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এবং হচ্ছিলও তাই। এদের অনেককেই হত্যা করা হয়। যারা বেঁচে ছিলেন, স্বাধীনতার পর মুক্তি পান তারা।

আমার বাসভবনটি ছিল কবি সুফিয়া কামালের বাসার ঠিক উল্টো দিকে। তাঁর বাড়িতে আমার স্ত্রীর যাওয়া-আসা ছিল। উনার দুই মেয়ে টুলু-লুলুর সঙ্গে ওর হৃদ্যতা গড়ে উঠেছিল। লুলু-টুলুই একদিন প্রস্তাব দিল যে, আমি যুদ্ধে যেতে চাইলে ওরা ব্যবস্থা করে দেবে। আমি যেন আবারও অন্ধকারে আলোর দিশা পেলাম। রাজি হয়ে গেলাম সঙ্গে সঙ্গে। ওরা দু’বোন আমাকে যা বলল তা শুনে আমি বিস্ময়াভিভূত হয়ে পড়লাম। আমার মনে হলো ঢাকা শহরে ভীতুদের সংখ্যা যেমন বেশি তেমনি বীর এবং সাহসীদের সংখ্যাও কম নয়। লুলু-টুলু জানালো এই কয়েক দিনের মধ্যেই সাহসী এই বীর সন্তানরা সারা ঢাকায় গেরিলা মুভমেন্টের জন্য একটি সুশৃঙ্খল নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে। সংবাদ আদান-প্রদান, গেরিলাদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল নিশ্চিত করা এবং মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণেচ্ছুদের সুবিধামত বিভিন্ন সেক্টরে পাঠানো_এই ছিল নেটওয়ার্কের কাজ।

ওদের কথামতো পরদিন বিকাল চারটায় স্টেডিয়ামের প্রভিন্সিয়াল বুক ডিপোর সামনে দাঁড়িয়ে থাকলাম একটি বাংলা সাপ্তাহিক কাগজ হাতে নিয়ে। ওটাই ছিল পরিচিতি সংকেত। কিছুৰণের মধ্যেই এক তরম্নণ এসে জিজ্ঞেস করল, আপনি কি হামিদুলস্নাহ ভাই? সায় দিলাম। আমাদের পস্ন্যান তৈরি হয়ে গেল। কথা হলো_পরদিন রাত ৯টায় ধানম-ির ২৬ নম্বর সড়কে একটি হালকা সবুজ রঙের গাড়ি আমার অপেৰায় থাকবে। ফিরে এলাম বাসায়। সবকিছু খুলে বললাম আমার স্ত্রীকে। বুকের ভিতরে চাপা উত্তেজনা। পরদিন সন্ধ্যা থেকেই স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে বাসার লনে পায়চারী করা শুরু করলাম। মাঝেমধ্যেই বাসার বাইরে বেরিয়ে এলাম। আস্তে আস্তে দূরত্ব বাড়িয়ে দিলাম। রাত ন’টা বাজতে কয়েক মিনিট বাকি। গেট থেকে চিৎকার করে কাজের লোককে বললাম টেবিলে খাবার দিতে। আবার হেঁটে এলাম রাস্তায়। আর একটু এগিয়ে গেলেই ২৬নং সড়ক। এগিয়ে গেলাম। সবুজ রঙের টয়োটা দাঁড়িয়ে আছে। আমাদের দেখতে পেয়েই গাড়ির দরজা খুলে গেল, উঠে বসলাম গাড়িতে। দ্রুতবেগে বেরিয়ে গেল গাড়িটি। আমাদের নিয়ে যাওয়া হলো মগবাজারের একটি বাড়িতে। সামনের গেট দিয়ে ভিতরে ঢুকলো গাড়িটি। ঐ বাড়িরই পিছন দিকের গেট দিয়ে বেরিয়ে আর একটি গাড়িতে উঠলাম এবার। আমাদের নিয়ে যাওয়া হয় হাটখোলার একটি বাড়িতে। ঐ বাড়িতে স্ত্রী-সন্তানদের রেখে একটি জীপে করে বর্ডার ক্রস করার উদ্দেশ্যে ডেমরার পথে রওনা হই। সময় তখন ভোর চারটা। কাঁচপুর ঘাটের আগেই দেখি দূর থেকে একটি মিলিটারি কনভয় এগিয়ে আসছে। ওখানেই গাড়ি ছেড়ে দিয়ে মাঠের মধ্যে নেমে দৰিণ দিকে হাঁটতে শুরু করি। দলে আমরা চারজন। আমি, জিয়া, ফতেহ আলী এবং জগন্নাথ কলেজের অধ্যাপক শৈলেন ভদ্র। বেশ কিছুদূর হেঁটে নৌকায় নদী পার হই। নদী পার হয়ে আবারও হাঁটা শুরু হলো। বেশ কিছুদূর হেঁটে পাওয়া গেল একটি টেম্পো। ঐ টেম্পোতে চড়ে গেলাম কুমিলস্নার চান্দিনায়। সময় তখন বিকাল সাড়ে চারটা। চান্দিনা থেকে হেঁটে রাত সাড়ে বারোটায় খালেদ মোশাররফের ২নং সেক্টর হেড কোয়ার্টারে পৌঁছলাম। রাতটুকু বিশ্রাম নিয়ে পরদিন সকালে আগরতলা যেয়ে পৌঁছলাম।

আগরতলা থেকে চারদিকে যোগাযোগ শুরু করলাম। ক’দিন বাদে আমারই অনুরোধে আরেকটি গেরিলা অপারেশন গ্রম্নপ ঢাকার অপারেশন শেষ করে আমার স্ত্রী ও সন্তানদের এখানে নিয়ে এলো। সেই গ্রম্নপে ছিল জুয়েল, আবু সাঈদ খান, লুলু, বুলু এবং আরও কয়েকজন দুর্ধর্ষ মুক্তিযোদ্ধা। যারা যুদ্ধে প্রথম প্রহরেই হানাদার বাহিনীর হৃদকম্পের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। নরসিংগড় আশ্রয় শিবিরে আশ্রয় মিলল। এখানে এসে দেখা হলো মীর শওকত আলীর (বর্তমান খাদ্যমন্ত্রী) সাথে। একটি স্কুলের ছোট একটি ঘরে সংসার পাতলাম আমি। প্রতিদিন আগরতলা যাই যোগাযোগের চেষ্টা করি। একদিন ব্যারাকপুরের এয়ারবেস-এ কথা বললাম। জানলাম ঢাকার অনেকেই আছেন। কলকাতায় আমার জন্য একটি ডিসি-৩ এয়ার ক্রাফটের ব্যবস্থা করা হলো। পরদিন বিমানে করে কলকাতা রওয়ানা হলাম। প্রায় চার ঘণ্টা পর যখন ব্যারাকপুর পেঁৗছলাম তখন বিকাল। বিমানবন্দরে এক ভারতীয় অফিসার আমাকে রিসিভ করতে এসেছিলেন। ওকে সাথে নিয়ে কলকাতা নিউমার্কেটের পাশে লিটন হোটেলে গেলাম। ওখানে জনাব একে খোন্দকারসহ বেশ কিছু অফিসারের সাথে দেখা হলো। তাঁরা ক’দিন আগে এসেছেন।

হোটেলে রাতটা কাটিয়ে পরদিন গেলাম ৮নং থিয়েটার রোডের বাড়িতে। দেখা করলাম মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল ওসমানীর সাথে। খুলে বললাম সব। পরদিন দেখা করতে বললেন। দেখা করলাম, মুভমেন্ট অর্ডার মিলল। সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও গনত্মব্যস্থলের টিকেট। হোটেলে ফিরে স্ত্রী-সন্তানদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে পরদিন ট্রেনে চাপলাম। তখনও গন্তব্য স্থানের নাম জানি না! পরদিন সকালে পৌঁছালাম বিহারের চাকুলিয়ায়। এখানে সিইনসি স্পেশাল কমান্ডারদের ট্রেনিং শুরু হতে যাচ্ছিল। আমাকে এখানেই বদলি করা হয়েছে। ডিফেন্স কো-অর্ডিনেটর বাংলাদেশ ফোর্সেস ইনচার্জ হিসাবে। কিন্তু এখানকার ভারতীয় সামরিক বাহিনীর এক কর্মকর্তার সঙ্গে কোন অবস্থাতেই খাপখাওয়াতে পারছিলাম না। তাই স্পেশাল গ্রুপের ট্রেনিং শেষ হবার পরপরই কলকাতা ফিরে এলাম।

কলকাতায় ফিরে আবার দেখা করলাম জেনারেল ওসমানীর সঙ্গে। বললাম, আমি সম্মুখ সমর ৰেত্রে যেতে চাই। মেজর চৌধুরীকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিলেন। আমাকে মুভমেন্ট অর্ডার দেয়া হলো। বিমান, বাস এবং পায়ে হাঁটা পথে একদিন রাত সাড়ে তিনটায় আমি পেঁৗছালাম। তেলঢালা, মেজর জিয়ার ব্রিগেড হেডকোয়ার্টারে। শুরু হলো রোমাঞ্চ ও উত্তেজনায় ঠাসা নতুন জীবন।

(দৈনিক জনকণ্ঠের ১৯৯৩ সালের বিজয় দিবস সংখ্যা থেকে পুনর্মুদ্রিত)

জনকন্ঠ

Leave a Reply