মহাপ্রয়াণে এক বীর মুক্তিযোদ্ধা

শাহজাহান মিয়া
গত ৩০ ডিসেম্বর শুক্রবার চলে গেলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এম হামিদউল্লাহ খান বীরপ্রতীক। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানী আমাদের প্রিয় বিক্রমপুরের গৌরব অবসরপ্রাপ্ত উইংকমান্ডার হামিদউল্লাহ খানের জীবনাবসান অকস্মাৎই ঘটল। ১৯৪০ সালে জন্মগ্রহণকারী এই বীরের ২০১১ সালে মৃতু্য তাঁর পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজন ও শুভাকাঙ্ৰীদের কাছে স্বাভাবিকভাবে মেনে নেয়া কঠিনই হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি ছিলেন বিক্রমপুরের লৌহজং থানাধীন মেদিনীম-ল গ্রামের ঐত্যিবাহী খান সাহেবের বাড়ির একজন অমিততেজ, সাহসী ও স্পষ্টভাষী পুরুষ। ঢাকা-মাওয়া সড়কে চলার পথে মাওয়া গোলচক্কর পৌঁছার সামান্য আগে প্রধান সড়কের ডান পাশেই ঐ বিখ্যাত বাড়িটির সাইনবোর্ড অনেকেরই দৃষ্টি আকর্ষণ করে। হামিদউল্লাহ খান ছিলেন পাঠকপ্রিয়, মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে সদা সোচ্চার ও জঙ্গীবাদ মৌলবাদের বিরুদ্ধে বজ্রকণ্ঠ জাতীয় দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের আরেক বীর সেনানী মোহাম্মদ আতিকউলস্নাহ খান মাসুদের বড় ভাই। দুই সহোদর ও আপন চাচাত ভাই কুতুবউদ্দিন খান ঝিলুসহ একই পরিবারের তিনজন এত বড়মাপের মুক্তিযোদ্ধা এ দেশের খুব কম পরিবারেই আছে। অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক বলে উলেস্নখ না করে পারছি না যে, বড় ভাই হামিদউলস্নাহ খানের সঙ্গে আমার পরিচয় ঘটার আগেই ছোট ভাই অতিকউলস্নাহ খান মাসুদ সাহেবের ‘মাসুদ’ নামটির সঙ্গে আমি পরিচিত হয়েছিলাম সম্ভবত একাত্তরের আগস্ট মাসেই। মাসুদ সাহেবদের বাড়ি লৌহজং থানার পশ্চিম প্রান্তে মেদিনীম-ল গ্রামে। আর আমার গ্রাম কাজিরগাঁও একেবারেই পূর্বপ্রান্তে টঙ্গিবাড়ি থানার সীমানত্মে। দুই থানার মাঝখান দিয়ে তালতলা ডহরী খাল প্রবাহিত। ১৯৭১ সালে আমি তৎকালীন ইংরেজী দৈনিক ‘দ্য পিপল’ পত্রিকায় শিফট ইনচার্জ ছিলাম। ২৫ মার্চের সেই ভয়াল বিভীষিকাময় রাতে কোনমতে প্রাণে বেঁচে ২৯ মার্চ নিজ গ্রামে পৌঁছি। ২৫ মার্চ রাতে তৎকালীন ইপিআরের (বর্তমানে বিজিবি) পিলখানা ও রাজারবাগ পুলিশ ব্যারাকের সঙ্গে পিপল পত্রিকাটিও বর্বর পাকিস্তৈানী বাহিনী উড়িয়ে দিয়েছিল। গান পাউডার ছিটিয়ে পুরো পত্রিকা অফিসটি জ্বালিয়ে দিয়েছিল। পত্রিকার ছয় সাংবাদিক-কর্মচারী পুড়ে অঙ্গার হয়ে গিয়েছিল। পূর্ণ ইউটিসি ট্রেনিং থাকার পরও ওপার থেকে হেদায়েতুল ইসলাম কাজলের নেতৃত্বে ফিরে আসা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে প্রয়োজনীয় ট্রেনিং নিয়ে আমি মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিই। প্রাণের টানে দেশ মাতৃকার প্রয়োজনে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ি। আমাদের গ্রম্নপে আখতার হোসেন নামে এক অসীম সাহসী যোদ্ধা ছিল। তাঁর কাছেই দুর্ধর্ষ ‘মাসুদ’ ও তাঁর বীরত্বগাথার কথা আমি প্রথম শুনতে পাই। গোয়ালনিমান্দ্রা হাঁটের পূর্ব পাশ দিয়ে প্রবাহিত খালে পাকিস্তানী সৈন্য বোঝাই একটি লঞ্চে গ্রেনেড মেরে উড়িয়ে দিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার হামিদউল্লাহ খানের অনুজ দুরন্ত সাহসী আতিকউলস্নাহ খান মাসুদ। সেই থেকেই মুক্তিযোদ্ধা মাসুদ নামটির সঙ্গে আমার পরিচয় ঘটে। উলেস্নখ্য, গোয়ালনিমান্দ্রা এলাকায় পাকবাহিনীর সঙ্গে আরও একটি বড় যুদ্ধে ঢালী মোয়জ্জেম ও মীর মোশাররফসহ অনেকেই বীর বিক্রমে যুদ্ধ করে অনেক পাক-সেনা খতম করেছিলেন এবং বেশ কয়েকজনকে বন্দী করতে সমর্থ হয়েছিলেন। অবশ্য এর কিছুদিন পর হায়েনার দল শক্তি সঞ্চয় করে ভারি অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আবারও দুই লঞ্চ বোঝাই করে গোয়ালনিমান্দ্রা হাঁটে এসে আশপাশের এলাকার বাড়ি-ঘরে আগুন জ্বালাতে থাকে। খবর পেয়ে বিক্রমপুরের চারদিক থেকে ঢালী মোয়াজ্জেমের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা হলদিয়া গ্রামের দু’পাশে জড়ো হতে শুরু করে। ১৯৭১ সালের অক্টোবরে পবিত্র রমজান মাসের শুরম্নতে প্রায় একশত মুক্তিযোদ্ধা হানাদার বধের উদ্দেশ্যে খালের দু’পাশে জমায়েত হয়েছিল। সমগ্র বিক্রমপুরে এক সঙ্গে এত মুক্তিযোদ্ধার সমাবেশ আর হয়েছিল বলে আমার জানা নেই। বীর মুক্তিযোদ্ধা ইকবাল হোসেন ও সেন্টু সাহেবও সে সময় গুরম্নত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। চর মারফত নিশ্চয়ই হানাদার পাকিস্তানীরা খালের দু’পাশে মুক্তিযোদ্ধাদের বিরাট সমাবেশের খবর পেয়ে গিয়েছিল। গোয়ালনিমান্দ্রা হাঁটে নোঙ্গর করা লঞ্চ থেকে ওদের একটি দলের সদস্যরা গাম বুট পরে খালের পূর্ব পার দিয়ে কাদাপানি ভেঙ্গে গ্রামের দিকে আসতে থাকে। ওরা একসময় আমাদের রাইফেলের রেঞ্জের মধ্যে চলে আসে। তবুও আমরা গুলি ছুড়িনি। কারণ ততক্ষণে ওদের সাপোর্টে আকাশে পাকিস্তানী যুদ্ধ বিমান চক্কর দেয়া শুরু করে দেয়। নিতান্ত অনিচ্ছা সত্ত্বেও কমান্ডারের নির্দেশে তিন দিন এ্যামবুশ করে থাকার পর আমরা এলাকা ত্যাগ করতে বাধ্য হই। আমরা চলে গেলে ওরা খালের দু’পাশের অনেক বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দিয়ে লঞ্চ নিয়েই লৌহজং থানার দিকে অগ্রসর হয়।

তবে ছোট ভাই মাসুদ খানের আগেই ব্যক্তিগতভাবে তাঁর বড় ভাই হামিদউলস্নাহ খানের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের পরে আমার তৎকালীন কার্যালয় বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার বার্তাকক্ষে পরিচয় হয়েছিল। অফিসে আমার সিনিয়র এবং বয়সেও প্রায় চার বছরের বড় এক কলিগের সঙ্গে দেখা করতে হামিদউলস্নাহ ভাই কমপক্ষে দু’বার বাসস অফিসে এসেছিলেন। একজন বড়মাপের মুক্তিযোদ্ধা ও বিক্রমপুরের লোক বলে আমি তাঁর সঙ্গে পরিচিত হই। ‘রণাঙ্গনের পথে’ শিরোনামে ১৯৯৩ সালে জনকণ্ঠে প্রকাশিত ও গত ১ জানুয়ারি পুনমর্ুদ্রিত লেখাটিতে তিনি ঠিকই বলেছেন যে, পাকিস্তান বিমানবাহিনীর একজন পদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে ধানমণ্ডিতে তাঁর অফিস-কাম-রেসিডেন্সটি ছিল। বাসার উল্টো দিকেই ছিল সর্বজন শ্রদ্ধেয় কবি সুফিয়া কামালের বাসভবন। ঐ বাসায় আমি নিজেও বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকবার গিয়েছি। আমি ধানমণ্ডি এলাকায় বসবাসরত একজন ঘনিষ্ঠ ব্যক্তির কাছ থেকে আগেই জানতে পেরেছিলাম যে, হামিদউল্লাহ সাহেবের পরিবার ও কবি সুফিয়া কামালের পরিবারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল অত্যনত্ম হৃদ্যপূর্ণ। তিনি আরও বলেছিলেন যে, মুক্তিযুদ্ধে যোগদানের জন্য হামিদউলস্নাহ খানকে সীমানত্মের ওপারে যাওয়ার ব্যাপারে জননী সাহসিকা কবি সুফিয়া কামালের পরিবারের সদস্যদের ভূমিকা ছিল অনন্য। যাই হোক, পরবর্তীতে তাঁর সঙ্গে আমার সম্পর্ক তেমন ঘনিষ্ঠ না হলেও আমরা একবার একই মঞ্চে উঠেছিলাম। ১৯৭৮ সালে বিমানবাহিনী থেকে অবসর নেয়ার পর তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। হামিদউল্লাহ সাহেব মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর জেলার লৌহজং-সিরাজদিখান আসন থেকে তিনবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি এলাকায় উলেস্নখযোগ্য উন্নয়ন কাজও করেন। তবে ১৯৯৬ সালের ১২ জুন অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন লাভে বঞ্চিত হন। তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন। অবশ্য এক বছরের মধ্যেই তিনি পুনরায় বিএনপিতে ফিরে যান। একই এলাকার লোক হিসেবে ১৯৯১ সালের নির্বাচনে প্রয়াত নজরুল ইসলাম খান বাদল তাঁর বিভিন্ন নির্বাচনী সভায় আমাকে বক্তৃতা করার অনুরোধ জানাতেন। বাদল খান সাহেব ১৯৯৬ সালেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তখনও তিনি আমাকে একই অনুরোধ করেন। ১৯৯৬ সালে এ রকম এক নির্বাচনী সভায় প্রয়াত হামিদউলস্নাহ খান সাহেব এবং আমি বক্তব্য রাখি। তিনি একজন ভাল বক্তাও ছিলেন। গত ২৯ ডিসেম্বর আমার মেঝো শ্যালক মারা যায়। ২০১১ সালের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর গ্রামের বাড়িতে আমার শ্যালকের কুলখানিতে যোগ দিতে গেলে ঐদিন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জননেতা হামিদউল্লাহ সাহেবের গ্রামের বাড়িতে জানাজায় যোগদানের জন্য মাইকিং করা হয়। তিনি নিজ এলাকার যে মাঠে নির্বাচনী সভা করতেন সে মাঠেই তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। বহু মানুষ জানাজায় অংশগ্রহণ করেন। রাষ্ট্রপতি মোঃ জিল্লুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ বিভিন্ন গুরম্নত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যক্তি ও সংগঠন বীর মুক্তিযোদ্ধা হামিদউলস্নাহ খানের মৃতু্যতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন। আমার তরফ থেকেও থাকল এই বীরের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও ভালবাসা। তাঁর শোকসনত্মপ্ত পরিবারের প্রতি বিনম্র সমবেদনা ও সহমর্মিতা।

লেখক : মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক ও কলামিস্ট

জনকন্ঠ

Leave a Reply