খান ভাই, এভাবে না বলে চলে গেলেন

মহিউদ্দিন খান মোহন
উইং কমান্ডার এম. হামিদুল্লাহ খান (অব) বীরপ্রতীকের সঙ্গে আমার পরিচয় ১৯৭৯ সালের জানুয়ারি মাসে। সে বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি তারিখে জাতীয় সংসদের যে নির্বাচন হয়েছিল, সে নির্বাচনে তিনি আমাদের নির্বাচনী এলাকায় বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। বিমানবাহিনীর চাকরি থেকে সদ্য অবসর নিয়ে আসা এ তরুণ ব্যক্তিকে দেখে আমার বেশ ভাল লেগেছিল। তিনি কথা বলছিলেন স্থানীয় বিএনপি নেতৃবৃন্দের সঙ্গে। বিএনপি তখন নবগঠিত রাজনৈতিক দল। বয়স চার মাস পেরিয়েছে মাত্র। সাংগঠনিক কাঠামো বলতে আহ্বায়ক কমিটি। পূর্ণাঙ্গ কমিটি তখনও হয়নি। আমার বড় ভাই গিয়াসউদ্দিন খান বাদল ন্যাপ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং বৃহত্তর ঢাকা জেলার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পরে তিনি শ্রীনগর থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েছিলেন। তিনিই আমাকে পরিচয় করিয়ে দেন এম. হামিদুলস্নাহ খানের সঙ্গে। করমর্দন করে বললেন_ ‘ইয়াংম্যান, সাহস নিয়ে কাজ করতে হবে।’

সেদিন তিনি যা বলেছিলেন এখন সেটা হুবহু মনে নেই। তবে এটুকু মনে পড়ছে যে, তিনি নির্বাচনী প্রচারাভিযানের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের রাজনৈতিক কর্মসূচীর কথা জনগণের কাছে পৌঁছে দেয়ার কথা বলেছিলেন। তিনি আরও বলেছিলেন_ ‘আগামী সংসদ নির্বাচন কেবলই মাত্র একটি নির্বাচন নয়, একটি যুদ্ধ। এ দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বকে একটি দেশের গোলামীর জিঞ্জির থেকে মুক্ত করার যুদ্ধ। এ যুদ্ধে আমাদের জিততে হবে।’ এম. হামিদুলস্নাহ খানের কথার মধ্যে ‘ডিটারমিনেশন’ এবং ‘কমান্ডিং ভয়েসে’র অস্তিত্ব লক্ষ্য করলাম। তাঁকে বিএনপি প্রার্থী করার কথা শোনার পর আমাদের অনেকেরই সন্দেহ জেগেছিল নির্বাচনে জয়লাভের ব্যাপারে। কেননা, এলাকায় রাজনৈতিকভাবে তিনি পরিচিত ছিলেন না। তিনি যে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে একজন সেক্টর কমান্ডার ছিলেন, তাও বেশিরভাগ লোক জানত না। বরং তাঁর ছোট ভাই (বর্তমানে দৈনিক জনকণ্ঠ সম্পাদক) আতিকউল্লাহ খান মাসুদ ও চাচাত ভাই কুতুবউদ্দিন খান ঝিলুকে এলাকার মানুষ বেশি চিনত। কারণ ‘৭১ সালের নবেম্বর মাসে মুন্সীগঞ্জের পশ্চিমাঞ্চল (শ্রীনগর, লৌহজং ও সিরাজদিখান থানা) শত্রুমুক্ত হবার পর মাসুদ ভাই ও ঝিলুভাইয়ের নেতৃত্বাধীন মুক্তিযোদ্ধারা শ্রীনগরে ক্যাম্প করেছিল। তাঁদের সঙ্গে আমার সাক্ষাত হয়েছিল ওই ক্যাম্পেই। শ্রীনগর বাজারের দক্ষিণ পাশে হাসান মিঞার একতলা বিল্ডিংয়ে ছিল সেই ক্যাম্প। আমার বড় ভাইয়ের নেতৃত্বে আমাদের গ্রামের একদল যুবক তখন হাতে লেখা অর্ধসাপ্তাহিক একটি পত্রিকা বের করতেন। নাম ছিল ‘বাংলার ছবি।’ সপ্তাহে দু’বার বেরুত পত্রিকাটি। বেশি নয়, ৮/১০ কপি। রেডিওর সংবাদ শুনে তা হাতে লেখা হতো। ১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীন হওয়ার পর দু’টি সংখ্যা বেরিয়েছিল। সেই পত্রিকা ‘মুক্তিবাহিনী’র ক্যাম্পে পৌঁছে দেয়ার দায়িত্ব ছিল আমার ও আমার চাচাত ভাই লিটনের। তো ওই পত্রিকা দিতে গিয়েই মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার মাসুদ খান ও ঝিলু খানের সঙ্গে পরিচয় হয়।

যা হোক, জানতে পারলাম হামিদুলস্নাহ খান কমান্ডার মাসুদ খানের বড় ভাই। মজার ব্যাপার হলো, সে সময় কেউ যদি প্রশ্ন করত_ এই হামিদুলস্নাহ খান কে? জবাব আসত_ ‘মাসুদ কমান্ডারের বড় ভাই।’ তবে অল্পদিনের মধ্যেই এম. হামিদুলস্নাহ খান ব্যাপক পরিচিতি লাভ করলেন। এর দু’টি কারণ আমার চোখে ধরা পড়েছে। এক. তিনি খুব দ্রুত সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে যেতে পারতেন। দুই. তিনি বেশ বাকপটু ছিলেন, বাচনভঙ্গি ছিল চমৎকার। ১৯৭৯-এর নির্বাচনে হামিদুলস্নাহ খানের সঙ্গে বেশ কয়েকটি জনসভায় আমি বক্তৃতা করেছি। প্রথম দিনের বক্তৃতা শোনার পরেই তিনি আমাকে বললেন_ ‘এরপর থেকে তুমি আমার সঙ্গে সব জনসভায় যাবে।’

নির্বাচনী প্রচার চালাতে আমরা এক মঙ্গলবার গোয়ালীমান্দ্রা হাটে গেলাম। সেখানে আমরা আওয়ামী লীগ কর্মীদের হামলার শিকার হই। বলা দরকার, সেবার ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনে (লৌহজং থানার ১৪টি ও শ্রীনগর থানার ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত) আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন এম. কোরবান আলী। প্রবীণ রাজনীতিবিদ এবং সাবেক মন্ত্রী হিসেবে তিনি ছিলেন এলাকায় খুবই সুপরিচিত। তাঁর কর্মী বাহিনীও ছিল বেশ বড়। আমরা প্রথম দিকে একটু ভড়কে গেলেও পরিস্থিতি সামলে নিয়ে ওদের প্রতিরোধ করলাম।

গোয়ালীমান্দ্রা হাটের মারামারির খবর এম. হামিদুল্লাহ খানের কানে পৌঁছার পর তিনি বেশ উত্তেজিত হন এবং ঘটনা শোনার জন্য আমাকে তাঁর মেদিনীম-লের বাড়িতে দেখা করতে বলেন। তবে আমাকে মেদিনীম-লে যেতে হয়নি। কারণ পরদিন নির্বাচনী প্রচারাভিযানে আমরা কুকুটিয়া হয়ে লৌহজংয়ের নাগেরহাট বাজার পর্যনত্ম যাই। স্থানীয় বিএনপি নেতারা আমাদের বলেন, বিকেলে হামিদুলস্নাহ সাহেব আসবেন, আপনারা থাকুন। তিনটার দিকে লৌহজংয়ের দিঘলী ইউনিয়ন পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান (এবার আবার তিনি চেয়ারম্যান হয়েছেন) গিয়াসউদ্দিন বেপারীর মোটরসাইকেলে চড়ে হামিদুল্রাহ খান নাগেরহাট এলেন। আমাকে দেখেই জিজ্ঞেস করলেন_ কি হয়েছিল গোয়ালীমান্দ্রায়? সবিস্তারে ঘটনা বললাম। জবাবটা দিলেন তিনি বক্তৃতায়।

কয়েকদিন পরে আরও একটি জনসভা ছিল কুকুটিয়া হাইস্কুল মাঠে। সেখানেও ছাত্রকর্মী হিসেবে আমি বক্তৃতা করি এবং আওয়ামী লীগের কঠোর সমালোচনা করে বক্তব্য দিই। সভায় সভাপতিত্ব করেছিলেন স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তি মোসলেমউদ্দিন মাস্টার। সভাপতির বক্তৃতা দিতে গিয়ে তিনি বললেন, ‘আজকের এ সভায় অনেক সমালোচনা করা হয়েছে, নিন্দা করা হয়ছে। এতে কেউ কষ্ট পেয়ে থাকলে আমি ক্ষমাপ্রার্থী।’ সভাপতির এ বক্তব্য শুনে ক্ষিপ্ত হলেন হামিদুল্লাহ খান। কড়া ভাষায় সভাপতিকে কিছু বলতে যাচ্ছিলেন তিনি। আমার বড় ভাই এবং স্থানীয় মুরবি্ব আব্দুল হান্নান খান তাঁকে নিরসত্ম করেন এই বলে যে, এখন কিছু বললে ভোটের ক্ষেত্রে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে। হামিদুলস্নাহ খান থামলেন। তবে নির্দেশ দিলেন_ “এ ধরনের ‘আপোসকামী’ ব্যক্তি যেন আমার সভায় আর না আসে।”

সে নির্বাচনে এম. হামিদুল্লাহ খান বিপুল ভোটের ব্যবধানে এম. কোরবান আলীকে পরাজিত করে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নির্বাচনের পরে শ্রীনগর বাজারে পার্টি অফিসে দেখা হতেই এক নতুন নামে আমাকে সম্বোধন করলেন। ডাকলেন_ ‘এই যে দসু্য মোহন, আসো আসো।’ বলে রাখি এই দসু্য মোহন নামে আমাকে দু’জন লোক ডাকেন। একজন এম. হামিদুলস্নাহ খান, যিনি আর কখনও ডাকবেন না, অন্যজন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, নিউজ টুডে সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ।

‘৭৯-এর নির্বাচনের পর আমি এলাকা থেকে কিছুটা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ি। পারিবারিক এবং পেশাগত প্রয়োজনে আমাকে চলে যেতে হয় জয়পুরহাটে। সেখান থেকে ঢাকায় আস্তানা গাড়ি ১৯৮২ সালের জানুয়ারিতে। মার্চেই ক্ষমতা দখল করে এরশাদ। রাজনীত বন্ধ হয়ে যায়। সে সঙ্গে নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগও। পুনরায় রাজনৈতিক তৎপরতা শুরম্ন হলে এম. হামিদুলস্নাহ খানের সঙ্গে আবার দেখা হয়। সম্ভবত ১৯৮৫ সালে ডা. বি. চৌধুরীর মগবাজারের বাসায়। দেখা হতেই স্বভাবসুলভ রসিকতা মেশানো প্রশ্ন_ ‘কি খবর দসু্য মোহন, কাগজে দেখি, বাসত্মবে নাই?’ বুঝলাম দৈনিক দেশ-এ প্রকাশিত আমার লেখা পড়েন তিনি।

এরশাদের পতনের পর ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনে তিনি মুন্সীগঞ্জ-২ আসন থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে (প্রায় ৩০ হাজার) আওয়ামী লীগ প্রার্থী নজরুল ইসলাম খান বাদলকে হারিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রম্নয়ারির নির্বাচনেও তিনি এমপি নির্বাচিত হন।

১৯৯৬ সালের ১২ জুন সপ্তম সংসদ নির্বাচনে হামিদুলস্নাহ খানের আসনে মনোনয়ন পান শিল্পপতি মিজানুর রহমান সিনহা (পরবর্তীতে প্রতিমন্ত্রী)। মনোনয়নবঞ্চিত হামিদুল্লাহ খান পরদিনই যোগ দেন আওয়ামী লীগে। পত্রিকার পাতায় শেখ হাসিনার পাশে ফুলের তোড়া হাতে এম. হামিদুল্লাৈহ খানকে দেখে আমি যুগপৎ বিস্মিত এবং ব্যথিত হই। হামিদুলস্নাহ খান দলত্যাগ করতে পারেন এটা আমার ধারণায় ছিল না। ঠিক করে রাখলাম কখনও দেখা হলে তাঁকে প্রশ্নটা করব_ কেন তিনি বিএনপি ত্যাগ করলেন। মাস ছয়েক পরে একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে দেখা। সেই স্নেহার্দ্র সম্ব্বোধন_ দসু্য মোহন, খবর কি? রাখঢাক না রেখেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বললাম_ ‘খান ভাই, (আমি তাঁকে এ সম্বোধনই করতাম) আপনি আওয়ামী লীগে কেন গেলেন? প্রয়োজনে রাজনীতি ছেড়ে দিতেন। আমরা আপনার ভক্তরা কষ্ট পেয়েছি। কিন্তু আওয়ামী লীগে আপনি টিকবেন কি করে ?’
মস্নান হেসে তিনি বললেন, ‘মানুষেরই ভুল হয় রে। আমিও তো মানুষ। দেখি ভুল সংশোধন করা যায় কি-না।’

এর মাস ছয়েক পরে তিনি পুনরায় বিএপিতে ফিরে আসেন। সম্ভবত ১৯৯৮ সালে ২৯ মিন্টু রোডে বিরোধীদলীয় নেত্রীর বাসভবনে ইফতার মাহফিলে তাঁর সঙ্গে আমার দেখা হয়। তাঁকে জিজ্ঞেস করলাম_ কিভাবে ফিরলেন বিএনপিতে? বললেন, ‘একদিন ফোন করলাম ম্যাডামকে। বললাম, ম্যাডাম, আমাকে নমিনেশন দেন নাই ঠিক আছে। কিন্তু দলের পক্ষ থেকে মহাসচিব তো আমকে অন্তত বলতে পারতেন যে, দলের স্বার্থে এবার আপনাকে নমিনেশন দেয়া গেল না। এই সৌজন্যটুকু তো আমি দাবি করতে পারি। রাগেদুঃখে আমি দল ছেড়ে চলে গিয়েছিলাম। কিন্তু যেখানে গিয়েছি, দেখলাম জায়গা ওটা আমার জন্য নয়। আমি আবার দলে ফিরতে চাই। ম্যাডাম হেসে বললেন_ দলের দরজা তো খোলাই আছে, চলে আসুন। আমিও এক সুন্দর সকালে চলে এলাম।’ এম. হামিদুলস্নাহ খান দলে শুধু ফিরেই আসেননি, বিএনপিকে শক্তিশালী করতে যথেষ্ট অবদান রেখেছেন।
সাহসী যোদ্ধা ছিলেন এম. হামিদুল্লাহ খান। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ছিলেন ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট। মুক্তিযুদ্ধের অনেক গল্প শুনেছি তাঁর মুখে। রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠতা মুক্তিযুদ্ধ থেকেই। সে সময় জিয়াউর রহমান জেড ফোর্সের অধিনায়কের পাশাপাশি ১১ নং সেক্টরও দেখাশোনা করতেন। এম. হামিদুল্লাহ খান জিয়াউর রহমানের অধীনে যুদ্ধ করেছেন।

সভা-সমাবেশে দেখা হওয়া ছাড়াও এম. হামিদুলস্নাহ খানের সঙ্গে আমার যোগযোগ ছিল। প্রায়ই টেলিফোনে কথা বলতাম। সর্বশেষে গত নবেম্বর মাসের শেষের দিকে তাঁর সঙ্গে কথা হয়। আমার ভাতিজির বিয়ের দাওয়া দিতে তাঁর বাসায় যেতে চেয়েছিলাম। বললেন, ‘কষ্ট করে আসার দরকার নেই। কার্ডটি ডাকে পাঠিয়ে দাও। শরীরটা ভাল যাচ্ছে না। শরীর ভাল থাকলে অবশ্যই যাব।’ না, খান ভাই যেতে পারেননি।

৩১ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে তাঁর নামাজে জানাজায় অংশ নিতে গিয়ে ভাবছিলাম, এমন হঠাৎ কেন চলে গেলেন এম. হামিদুলস্নাহ খান? এ সময় তো তাঁর মতো একজন সাহসী মানুষের খুবই প্রয়োজন ছিল। এমন একজন প্রাণবন্ত মানুষের আকস্মিক চলে যাওয়াকে সহজে মেনে নেয়া যায় না। প্রচ- ভিড়ের জন্য তাঁর কফিনের কাছে যেতে পারছিলাম না। দূরে দাঁড়িয়ে স্মৃতি হাতড়ে বেড়াচ্ছিলাম। ১৯৭৯ সালে একদিন আমাকে তিনি প্রশ্ন করেছিলেন_ ‘না বলে চলে এলে কেন?’ আমার খুব ইচ্ছে করছিল তাঁকে বলি_ ‘খান ভাই, এভাবে না বলে চলে গেলেন!’

[লেখক : সাংবাদিক ও কলামিস্ট
mohon91@yahoo.com

জনকন্ঠ

Leave a Reply