মাওয়া-কাওড়াকান্দি লঞ্চ রুট কতিপয় মালিকের কাছে জিম্মি

মাওয়া-কাওড়াকান্দি ও মাওয়া-মাঝিকান্দি রুটে চলাচলকারী লঞ্চ মালিকদের একাংশ ধর্মঘট ডাকে বুধবার। সোনালী নামের নতুন একটি লঞ্চ চলাচলকে কেন্দ্র করে মালিক সমিতি ধর্মঘটের ডাক দিলেও অধিকাংশ লঞ্চ চলাচল করছে বলে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো.তারিফুজ্জামান জানান।

অবৈধ লঞ্চ, রুটপারমিট, টাইমটেবল, সার্ভেসনদ, ফিটনেস ,বিকনবাতি ও অদক্ষ চালকদের দিয়ে লঞ্চ চালানোর ফলে লঞ্চ দুর্ঘটনা ছাড়াও যাত্রী সেবা বিঘ্নিত হচ্ছে। মাওয়া থেকে ২টি নৌ পথে (মাওয়া-কাওড়াকান্দি ও মাওয়া-মাঝিকান্দি) মোট ৮১টি লঞ্চ চলাচল করলেও এর অধিকাংশই অবৈধ। মাত্র ৩৪টি লঞ্চের বৈধ কাগজপত্র থাকলেও বাকি ৪৭টি লঞ্চই অবৈধভাবে চলাচল করছে।

মাওয়া নদী বন্দরের বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা বাবু লাল বৈদ্দ এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, একাধিকবার লঞ্চমালিক সমিতিকে চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে, বৈধ কাগজপত্র বিহীন কোন লঞ্চ এ নৌরুটে না চালানোর জন্য, বৈধ কাগজপত্র বিহীন লঞ্চের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে উল্লেখ করে তিনি জানান, সোনালী নামের নতুন লঞ্চটির কাগজপত্র বৈধ, কিন্তু টাইমটেবল দিচ্ছে না।

লঞ্চটির মালিক লিপু খান জানান, এটি ৩ ডিসেম্বর থেকে ঘাটে অপেক্ষমাণ রয়েছে। ১৫ ডিসেম্বর চলাচল করলেও মালিক সমিতি ধর্মঘটের হুমকি দিয়ে বন্ধ করে দেয়। আবার বুধবার থেকে লঞ্চটি চলাচল করছে এখনও ধর্মঘটের হুমকি দিচ্ছে।

এব্যাপারে মাওয়া লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ভাস্কর চৌধুরীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

গত শনিবার ও রবিবার রাতে পর পর ২টি লঞ্চ দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৪০ যাত্রী আহতসহ নিখোঁজ হয়েছে ৮ যাত্রী।

ইত্তেফাক

Leave a Reply