আধারা ইউনিয়নে আ’লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চল আধারা ইউনিয়নের সোলারচর ও বকুলতলা গ্রামে শুক্রবার আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় কমপক্ষে শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। মিছির আলী নামের এক ব্যক্তিকে মারধরকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। গুরুতর আহতাবস্থায় অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে পুলিশি গ্রেফতার এড়াতে অপর আহতরা গোপনে অন্যত্র চিকিৎসা নিচ্ছে।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ কর্মী রুবেল হত্যা মামলার আসামিরা জামিন নিয়ে এলাকায় ফিরলে বাদি পক্ষের লোকজন অতর্কিত হামলা চালালে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

বাদি পক্ষে আধারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সুরুজ মেম্বার ও আসামি পক্ষে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আলী হোসেন নেতৃত্বে রয়েছেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয়পক্ষকে ধাওয়া দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করলেও থেমে থেমে ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটছে বলে স্থানীয় সূত্র দাবি করেছে।

এলাকার আধিপত্য নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে গত বছর আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে রুবেল নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হয়।

এ ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেতা সুরুজ মেম্বারের লোকজন থানায় হত্যা মামলা রুজু করলে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ গ্রুপ এলাকা ছাড়া হয়ে পড়ে। সম্প্রতি তারা ওই মামলায় জামিন নিয়ে এলাকায় ফিরলে বাদি পক্ষের লোকজন তা স্বাভাবিকভাবে মেনে নিতে পারছে না। এতে গত দুই দিন ধরে এলাকায় উত্তেজনা চলছিল।

কাশেম নামের এক গ্রামবাসী জানান, আসামি পক্ষ ও আওয়ামী লীগ নেতা আলী হোসেন গ্রুপের লোকজন শুক্রবার বিকেলে বকুলতলা এলাকায় অবস্থান নিলে প্রতিপক্ষ নেতা সুরুজ মেম্বারের লোকজন প্রায় ২০০ ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে অর্তকিত হামলা চালায়। এতে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বেধে যায়।

সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই পক্ষকে ধাওয়া দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। সংঘর্ষে ককটেল বিস্ফোরণে কথা পুলিশ স্বীকার করেছে।

বার্তা২৪

Leave a Reply