ঘন কুয়াসা আর মেঘাছন্ন আবহাওয়ার কারনে বিপাকে টঙ্গিবাড়ীর আলু চাষিরা

আলুচাষীদের মধ্যে চরম হতাশা দেখা দিয়েছে
শামীম বেপারী: মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া আর ঘন কুয়াসার কারনে দ্রুত রোগবালী সংক্রামনের আশংঙ্কায় মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার আলু চাষিরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। কিছু কিছু জমিতে পাতা পচাঁ ও নাবিধসা রোগ দেখা দিয়েছে। আবহাওয়ার এ অবস্থায় ঘন ঘন ছত্রাকনাশক স্প্রে করার পরমর্শ দিচ্ছে কৃষি কর্মকর্তরা।

বিগত কয়েক বছরে আলুচাষে লোকসানভোগী কৃষকদের পক্ষে দামী এ সমস্ত ছত্রাকনাশক ব্যবহার করা কষ্টকর হয়ে দারিয়েছে। আলুর নিন্মমূল্যের এ সময়ে ব্যায়ভার বৃদ্ধি পাওয়ায় আলুচাষীদের মধ্যে চরম হতাশা দেখা দিয়েছে।

এ বছর আলু রোপনের পর হঠৎ করে সারা দেশে শৈত প্রবাহ দেখা দেওয়ায় সূর্যের আলো না পাওয়ায় আলু গাছ বেশ দূর্বল ও পাতা কুচঁকানো অবস্থায় গজিঁয়েছে। গাছকে সবল ও রিষ্টপুষ্ট করার জন্য কৃষক ব্যাপক হারে জমিতে ইউরিয়া সার ও পানি প্রয়োগ করছে। গাছগুলো একটু সবল হতে শুরু করলে এ অবস্থায় মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া আর ঘন কুয়াসার কারনে ব্যাপকহারে রোগবালাই ছড়িয়ে পড়ার আশংঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কৃষকরা জানান, এ বছর তাদের প্রতিকেজি আলু উৎপাদন করতে ৮-৯ টাকা খরচ হবে।

কিন্তু বর্তমানে প্রতিকেজি আলু পাইকারী ৭-৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ উপজেলার আলু উত্তোলনের সময় আলুর দাম আরো হ্রাস পাবে । অন্যদিকে হিমাগারে গত বছরের সংরক্ষিত আলু সম্পূর্ন বিক্রি না হওয়ায় মজুদকৃত আলু এ বছর উৎপাদিত আলুর সাথে যোগ হওয়ায় হিমাগারগুলো আলু উত্তোলনের শুরুতেই ভরে যাওয়ার আশংঙ্কা করছে তারা । ফলে এ বছরও উৎপাদিত আলু তাদের মাঠের মধ্যে সংরক্ষন করে রাখতে হবে বলে ধারনা করছে তারা। গত বছর মাঠের মধ্যে সংরক্ষন করে রাখা অনেক আলু বিক্রি করতে না পারায় বর্ষার পানিতে তা তলিয়ে যায়। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলার ২৪ হাজার একর জমিতে আলু আবাদ করা হয়েছে। এতে ৩ লক্ষ ১২ হাজার টন আলু উৎপাদন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। গত বছর এ উপজেলায় প্রায় ৩ লক্ষ টন আলু উৎপাদিত হয়েছিলো ।#

Leave a Reply