অতীশ দীপঙ্কর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়ে জটিলতা

রাজধানীর অতীশ দীপঙ্কর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে ইমতিয়াজ আহম্মেদকে ক্যাম্পাসে মারধর করা হয়েছে। আহত ইমতিয়াজকে পুলিশ উদ্ধার করে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করে। তবে তাকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধক কবির হোসেন নিজেকে নতুন উপাচার্য দাবি করে ইয়াজউদ্দিনের স্ত্রী সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ারা বেগমকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণার পর এ হাঙ্গামার সূত্রপাত হয়।

অতীশ দীপঙ্কর বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধককে মারধর করেছেÑ এ অভিযোগে ক্যাম্পাসে হাঙ্গামা হওয়ার পর গতকাল দুপুরে ইমতিয়াজকে হেফাজতে নিয়েছিল পুলিশ। তাকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার লুৎফুল কবির গতরাত সাড়ে ১১টায় জানিয়েছেন, ইমতিয়াজের ওপর থেকে পুলিশি হেফাজত উঠিয়ে নেয়া হয় বলে। তবে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধক কবির হোসেন তালুকদার বা তার পক্ষে লিখিত কোনো অভিযোগ পেলে পরবর্তীতে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে ইমতিয়াজের সঙ্গে আরো দুজনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হলেও সন্ধ্যার পর তাদের থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়।

বনানীতে অতীশ দীপঙ্কর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে গতকাল দুপুরের পর হাঙ্গামার মুখে পড়েন ইমতিয়াজ, তার মা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়ারা বেগম। ‘উপাচার্য পদ জটিলতায়’ তাকে সকালে রাষ্ট্রপতির বাসায় মারধর করা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধক কবির হোসেন তালুকদারের এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ক্যাম্পাসে গিয়ে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের মুখে পড়েন সাবেক রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিনের ছেলে ও স্ত্রী।

সে সময় পুলিশ জানায়, ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে ইমতিয়াজ আহম্মেদ বিশ্ববিদ্যালয় গেলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাকে মারধর করে। একপর্যায়ে তাকে ধাওয়া করলে তিনি দৌড়ে পাশে একটি কক্ষে আত্মরক্ষা করেন। পরে পুলিশ গিয়ে তাকেসহ সবাইকে উদ্ধার করে নিরাপদে নিয়ে যায়। ইমতিয়াজ গতকাল রাতে বলেন, তার ডান পায়ের হাঁটুতে বেশ আঘাত লেগেছে। চিকিৎসক তাকে চলাফেরা করতে নিষেধ করেছেন। তিনি বলেন, কবিরকে মারধরের কথা ঠিক নয়। তার শরীরে সে ধরনের কোনো চিহ্ন নেই। তাছাড়া আন্তরিক পরিবেশে বাসার সবাই মিলে দুপুরের খাবার খাই।

যে কারণে হাঙ্গামা : কবির হোসেন তালুকদার বলেন, আনোয়ারা বেগম গত শনিবার চলতি দায়িত্বে থাকা উপাচার্য আবুল হোসেন সিকদার বরাবর একটি চিঠি দেন। চিঠিতে বলা হয়, রোববার তিনি (আনোয়ারা বেগম) ও সংশ্লিষ্ট কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয়ে আসবেন। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে চিঠিতে বলা হয়। এই চিঠির সূত্রে গতকাল টেলিফোনে অনুমতি নিয়ে আনোয়ারা বেগমের সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে কবির হোসেন তার বাসায় যান। কবির হোসেন বলেন, এখানে কথা বলার একপর্যায়ে তার ছেলে ইমতিয়াজ আহম্মেদ আমাকে টাই ধরে টানাহেঁচড়া এবং মারধর করে প্রায় তিন ঘণ্টা জিম্মি করে রাখে। পরে ইমতিয়াজ ও তার মা ক্যাম্পাসে ঢোকা মাত্র তাদের সঙ্গে আরো কয়েকজন অপরিচিত লোক ঢোকেন উল্লেখ করে নিবন্ধক বলেন, তাকে মারধরের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানানোর পর ক্যাম্পাসে উত্তেজনা দেখা দেয়। সাবেক উপাচার্য আনোয়ারা বেগম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাকে সরাতে ‘ষড়যন্ত্রমূলকভাবে’ তার ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে ‘অপপ্রচার’ চালানো হচ্ছে। তিনি বলেন, এখনো এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে আমার সম্পৃক্ততা আছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য আমি চিঠি দেব কেন। কবিরের মারধরের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাকে মারধর করা হয়নি। কথা শেষে তিনি চলে যেতে চাইলে তাকে ধরে বসিয়ে দেয়া হয় মাত্র।

‘এখনো আছি, তারা মানছে না’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের চলতি দায়িত্বে থাকা আবুল হোসেন সিকদার বলেন, ২০১১ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত আনোয়ারা বেগম উপাচার্যের দায়িত্বে ছিলেন। পরে সরকার মেয়াদ বর্ধিত না করায় তিনি এ পদ থেকে অপসারিত হন। তবে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডে আছেন। গতকালের ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্রায় ছয় মাস ধরে আনোয়ারা বেগম বিশ্ববিদ্যালয়ে আসছেন না। গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে এক প্রকার অবৈধভাবে উপাচার্যের চেয়ারে বসেন। এ প্রসঙ্গে সাবেক রাষ্ট্রপতির স্ত্রী আনোয়ারা বলেন, প্রায় পাঁচ মাস ব্যাংককে সাবেক রাষ্ট্রপতির চিকিৎসা শেষে গত ৫ জানুয়ারি তারা দেশে ফেরেন। এ কারণে তিনি ক্যাম্পাসে যাননি।

অধ্যাপক আনোয়ারা বলেন, নতুন উপাচার্য নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত আমি দায়িত্বে আছি। তাছাড়া এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে চিঠিও দেয়া হয়েছে; কিন্তু এখন সেটা তারা মানছে না। ।

এ প্রসঙ্গে নিবন্ধক কবির হোসেন বলেন, তার নামসহ তিন জনের একটি প্যানেল রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হলেও তিনি তা অনুমোদন করেনি।

দিনের শেষে

Leave a Reply