পিপিপির আওতায় পদ্মা সেতু নির্মাণ!

বর্তমান সরকার মেয়াদেই পদ্মা সেতু নির্মাণকাজ শুরু করতে বদ্ধপরিকর সরকার। গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে সময় নষ্ট করতে রাজি নয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন ও অর্থ ছাড় বিলম্ব করলে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) আওতায় যত দ্রুত সম্ভব এ প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিতে চায় এ সরকার। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীও সবুজ সংকেত দিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে ঢাকাস্থ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত তাইওয়াং চ্যুয়ের সঙ্গে বৈঠক শেষে যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে যোগাযোগমন্ত্রী জানান, বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে বর্তমান সরকারের কোনো বৈরিতা নেই। কিন্তু বিশ্বব্যাংক যদি অর্থ ছাড়ে লম্বা সময় নেয়, সেটা আমরা (বর্তমান সরকার) অ্যাফোর্ড করতে পারব না। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণের কাছে যাওয়ার আগেই পদ্মা সেতুর বাস্তব অগ্রগতি নিশ্চিত করতে হবে।
তিনি আরো জানান, ইতিমধ্যে পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিনিয়োগে দেশি-বিদেশি বেসরকারি উদ্যোক্তাদের আগ্রহ বেড়েছে। সুতরাং অযথা কালক্ষেপণ না করে বিওওটির মাধ্যমে ড্রিলিং শুরু করতে চাই। এ বিষয়ে সবার সহযোগিতা দরকার এবং সহযোগিতার ক্ষেত্র বাড়ছে।

যোগাযোগমন্ত্রী আরো বলেন, বর্তমান সরকার আমলেই দেশের অর্থনীতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ এই সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করতে হবে। বর্তমান সরকার কিছুতেই পদ্মা সেতু বিসর্জন দিতে পারে না। আগামী দেড় থেকে দুবছর সময়ের মধ্যে সেতু নির্মাণের মূল কাজ শুরু করা না হলে নির্বাচনী ইশতেহারে রক্ষা করা যাবে না। আর এতে জনগণকে দেওয়া প্রতিশ্রতি ভঙ্গ হবে। যা কোনোভাবেই মানা সম্ভব না।

যোগাযোগমন্ত্রী কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠক প্রসঙ্গে জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের বিষয়ে কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত প্রস্তাবে সম্মতি প্রকাশ করেছেন বলে যোগাযোগমন্ত্রী দাবি করেন। এ ছাড়া বিআরটিএকে ডিজিটালাইজেশন করা এবং ৭টি বিভাগীয় জেলায় ড্রাইভিং ইনস্টিটিউট করার বিষয়েও কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দেশি-বিদেশি একাধিক প্রতিষ্ঠিত কোম্পানি পিপিপির আওতায় পদ্মা সেতু নির্মাণে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এর আগে মালয়েশিয়া ও চীনের দুটি কোম্পানিও পদ্মা সেতুতে অর্থায়নের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছিল। সাবেক যোগযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্পে অর্থায়ন স্থগিত করে।

দেশি-বিদেশি চাপে সরকার যোগোযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে সৈয়দ আবুল হোসেনকে সরিয়ে দিলেও এই প্রকল্পে অর্থায়নে বিশ্বব্যাংক এখনো স্পষ্ট করে কিছু জানায়নি এমনকি কবেনাগাদ অর্থ ছাড় করা হবে সে বিষয়েও কোনো আভাস না দেওয়ায় গতকাল প্রথমবার যোগাযোগমন্ত্রী পিপিপির আওতায় পদ্মা সেতু নির্মাণের আভাস দিলেন।

ডেসটিনি

Leave a Reply