বিভক্তির রাজনীতিতে অস্থির মুন্সীগঞ্জ আওয়ামীলীগ

বিভক্তির রাজনীতিতে অস্থির হয়ে উঠেছে মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ। দলীয় কোন্দলে নেতাকর্মীরাও দু’গ্রুপে বিভক্ত। বিভক্তির রাজনীতির কারনে দলটির সাংগঠনিক গতিও ফিরে পারছে না। দলীয় নেতাকর্মীরা দু’গ্রুপে বিভক্ত হয়ে সাংগঠনিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর মুন্সীগঞ্জ আওয়ামীলীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন গ্রুপ এখন অনেকটা দু:সময় কাটিয়ে দলীয় কর্মকান্ডে গতি ফিরে পেয়েছেন। তার সঙ্গে রয়েছেন- মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। অপর শিবিরে রয়েছেন-মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলী, আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-দপ্তর সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুজ্জামান আনিছ। এই গ্রুপটির সঙ্গে আরো বেশ কিছু শীর্ষ নেতা রয়েছেন। আনিছুজ্জামানের সঙ্গে মহিউদ্দিনের বিরোধ বাঁধে ২০০৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আপন ভাতিজা তাপস হত্যাকে ঘিরে। এতে মহিউদ্দিন পরিবার দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। ছোট ভাই আনিছুজ্জামান বাদী হয়ে বড় ভাই জেলা আ’লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ও তার ছেলে ফয়সাল বিল্পবসহ ১৮ দলীয় নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় তারা জেল হাজত খাটেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জের আ’লীগের রাজনীতি উত্ত্যপ্ত হয়ে উঠে।

আনিছ শিবিরে অনেকেই এগিয়ে আসেন। এই হত্যাকে কেন্দ্র করে মহিউদ্দিন-আনিছ পরিবারে ফাটলের সুযোগ নিয়ে স্থানীয় আ’লীগের রাজনীতিতে অনেকেই লাইম লাইটে চলে আসার চেষ্টা চালায়। ওয়ান ইলেভেনের সময় মহিউদ্দিন শীর্ষ সন্ত্রাসী লিষ্টে নাম আসার পর তিনি আত্মগোপনে চলে যান। এ সুযোগকে কাজে লাগায় মহিউদ্দিন বিরোধীরা। মহিউদ্দিনের অনুপস্থিতিতে সদর আসনে ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারই কাছের লোক হিসেবে পরিচিত এম ইদ্রিস আলী দলীয় মনোনয়ন পান। মনোনয়ন পেয়ে আ’লীগের গনজোয়ারে তিনি এমপি নির্বাচিত হন। এমপি নির্বাচিত হওয়ার পরই মহিউদ্দিনের সঙ্গে তার বিরোধ দেখা দেয়। এরপর ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারির উপজেলা নির্বাচনে মহিউদ্দিনের বড় ছেলে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফয়সাল বিল্পব চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হন। একই পদে প্রার্থী হন মহিউদ্দিনের ছোট ভাই আনিছুজ্জামান। নির্বাচনে মহিউদ্দিনের অনুপস্থিতিতে বিপুল ভোটের ব্যবধানে আনিছুজ্জামান জয় লাভ করেন। ২০১০ সালে ১৭ জানুয়ারির মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে মহিউদ্দিন পুত্র ফয়সাল বিল্পব মেয়র পদে প্রার্থী হন। প্রার্থী হয়-জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান। বিরোধীতার কারনে নির্বাচনে আনিছুজ্জামান, এম ইদ্রিস আলীসহ স্থানীয় আ’লীগের নেতারা বিল্পব ঠেকাও নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করে।

নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী একেএম ইরাদত মানুর সঙ্গে সামান্য ভোটের ব্যবধানে বিল্পব পরাজিত হন। আনিছুজ্জামান-এম ইদ্রিস আলীর প্রার্থী বিপুল ভোটের ব্যবধানে তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন। সব মিলিয়ে ভাইপো হত্যাকে ঘিরে জেলা আ’লীগের রাজনীতিতে মহিউদ্দিন কোনঠাসা হয়ে পড়েন। অনেকইে সুযোগে বুঝে ইদ্রিস আলী-মৃনাল কান্তি গ্রুপে হাত মেলায়। বিভিন্ন দলীয় কর্মসূচীগুলোও দু‘গ্রুপে বিভক্ত হয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা পালন করেন। গত ২৯ ডিসেম্বর শহরের থানারপুল চত্বরে বিজয়ের ৪০ বছর পর মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য উদ্বোধন করা হয়। দলীয় বিরোধীতার কারনে এই ভাস্কর্যের মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে জেলা আ’লীগ সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ছিলেন অনুপস্থিত। এম ইদ্রিস আলী ও আনিছুজ্জামানের নেতৃত্বে এই অনুষ্ঠান পরিচালিত হয়। এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন-প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুত-জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড.তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম। ক্ষমতার ৩ বছরে মহিউদ্দিন গ্রুপ কোনঠাসা হয়ে অনেকটা নিস্ক্রিয় হয়ে পড়ে। গেলো ২১ ডিসেম্বর জেলা আ’লীগের সভাপতি, বঙ্গবন্ধুর চীফ সিকিউরিটি অফিসার ও সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন। এরপর মহিউদ্দিন ও তার অনুসারীরা রাজনীতিতে নতুন করে শক্তি ফিরে পায়। অনেকেই এখন নতুন করে মহিউদ্দিন শিবিরে ফিরে আসছেন। চাঞ্চ্যতা ফিরে এসেছে মহিউদ্দিন ও তার সমর্থকদের মধ্যে।

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ

Leave a Reply