মন্ত্রিসভায় রদবদল

রাহমান মনি
জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা তার মন্ত্রিপরিষদে রদবদল এনেছেন। গত ১৩ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জনাকীর্ণ এক সাংবাদিক সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি এই ঘোষণা দেন। নতুন মন্ত্রী পরিষদে ৫টি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে নতুন মুখ, ৫ জন মন্ত্রীকে অপসারণ এবং ১২ জন অপরিবর্তিত (মন্ত্রণালয় পরিবর্তন) রয়েছেন। শুক্রবার সকালে মন্ত্রিপরিষদের এক বৈঠক আহ্বান করে তিনি সকলকে তাদের কাজের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ রদবদলের ব্যাখ্যা করেন।

বাদকৃত মন্ত্রীদের মধ্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ইয়াসুয়ো ইতিচকাওয়া ওকিনাওয়াতে একটি গণ-ধর্ষণের ঘটনায় বিরূপ মন্ত্রব্য এবং ভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রী কেন্জি ইয়ামাওকা অর্থনৈতিক বিষয়ে স্পর্শকাতর মন্তব্য করায় উচ্চ কক্ষে ব্যাপক সমালোচনা মুখে পড়েন। এই দুইজন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিরোধী দল নিয়ন্ত্রিত উচ্চ কক্ষে গত ডিসেম্বর মাসে নিন্দা প্রস্তাব পাশ হয়।
নতুন মুখদের মধ্যে কাসুইয়া ওকাদা উপ- প্রধানমন্ত্রী, তোশিও ওগাওয়া বিচার মন্ত্রণালয়, নাওকি তানাকা প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জিন মাৎসুবারা কনজুমার অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রী/কেবিনেট এবং বিশেষ দায়িত্বে নিয়োজিত মন্ত্রী, এবং হিরোফুমি হিরানো শিক্ষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া ও টেকনোলোজী বিষয়ক মন্ত্রীর পদ পেয়েছেন। উপ- প্রধানমন্ত্রী ওকাদা সামাজিক নিরাপত্তা এবং কর সংক্রান্ত মন্ত্রীর দায়িত্ব একই সঙ্গে পালন করবেন।

পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ পদে নতুন মুখদের নিয়োগ দিলেও অর্থমন্ত্রী এবং পরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদসহ মন্ত্রিসভার ১২টি পদে কোনো পরিবর্তন আনেননি প্রধানমন্ত্রী নোদা, অপর তিনজন মন্ত্রীকে তিনি বাদ দিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে একের পর এক ভুল পদক্ষেপ নেয়া এবং স্পর্শকাতর ইস্যুতে নেতিবাচক মন্তব্যের অভিযোগ রয়েছে। তাদের মধ্যে একমাত্র মহিলা সদস্য সুরাতা রেনহো অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং স্পষ্টবাদী হিসেবে সাধারণ জনগণের মধ্যে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। ২০১০-এর সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী বারো কোটি পঁচাত্তর লাখ দশ হাজার (৬,৫৪,৩০,০০০ জন নারী, ৬,২৩,০০,০০০ জন পুরুষ) জন সংখ্যার মোট ৫১.২% মহিলা হলেও প্রধানমন্ত্রী নোদার মন্ত্রিপরিষদে কোনো নারী মন্ত্রীর স্থান হয়নি। যদিও প্রতিটি সেক্টরে নারীদের অংশগ্রহণ রয়েছে এবং প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই নারীরা গুরুত্ব পূর্ণ আসনে আসীন রয়েছেন।

১৩ জানুয়ারি সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী নোদা মাত্র ৫ মিনিট বক্তব্য রাখেন এবং ১৫ মিনিট সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। বিদেশি সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানো হলেও এই দিন বিদেশি সাংবাদিকদের প্রশ্ন করার কোনো সুযোগ দেয়া হয়নি।

জাপানে গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন কেউ বেফাঁস মন্তব্যের জন্য যেখানে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন, তিরস্কৃত হন, বরখাস্ত হন; সেখানে বাংলাদেশে স্বপদে বহাল থেকে পুরস্কৃত হন। বাংলাদেশ এবং জাপানের সংসদীয় গণতন্ত্রের পার্থক্যটা বোধহয় এখানেই, যদিও জাপান-বাংলাদেশ পার্লামেন্টোরিয়ান এসোসিয়েশন নামে একটি সংগঠনের অস্তিত্ব রয়েছে। বাংলাদেশের মাননীয় সংসদ সদস্যগণ সে সুযোগে জাপান সফর করার সুযোগও পান।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply