মসজিদের সিড়ির নিচ থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জ সদরের ফিরিঙ্গিবাজার এলাকায় মসজিদের সিড়ির নিচ থেকে শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে আলভী চৌধুরী (৬) নামে শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে ফিরিঙ্গিবাজার এলাকার জীবন চৌধুরীর ছেলে। মুক্তারপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, মুসুল্লিরা তার রক্তাক্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়।

লাঠি দিয়ে শিশুটির মুখে ও মাথায় আঘাত করে হত্যার পর সেখানে লাশ ফেলে রেখে গেছে বলে ধারণা করছেন তিনি।

সদর থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতানউদ্দিন আহমেদ বাংলানিউজকে জানান, কে কী কারণে শিশুটিকে হত্যা করেছে তা সনাক্ত করা যায়নি। তবে রহস্য উদঘাটনের লক্ষ্যে পুলিশ মাঠে নেমেছে বলে তিনি জানান।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি সংগ্রহ
========================

ছয় মাসের মাথায় খুন হলো আরেক ভাই

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় একটি মসজিদের সিড়ির বাইরে থেকে এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, ছয় মাস আগে যার আরেক ভাইও খুন হয়।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি আবুল বাশার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, শনিবার দুপুরে উপজেলার ফিরিঙ্গি বাজার পাতিপাড়া জামে মসজিদের সিড়ির নিচে মো. আলভি নামে ৭ বছর বয়সী শিশুটির লাশ পাওয়া যায়।

আলভি ফিরিঙ্গি বাজারের ব্যবসায়ী জীবন চৌধুরির ছোট ছেলে। গত রোজায় আলভীর মেজ ভাই মো. আশিকের (১১) মৃতদেহ উদ্ধার করা হয় বাড়ির একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে। সেই হত্যা মামলার আসামিরা এখন কারাগারে রয়েছে।

পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে ওসি জানান, শনিবার সকাল ১১টার দিকে আলভি হঠাৎ নিখোঁজ হয়। পরে জোহরের নামাজ শেষে মুসল্লিরা বের হওয়ার পথে আলভির লাশ দেখে পুলিশে খবর দেয়।

তিনি বলেন, “গলায় গামছা প্যাঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে আলভীকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।”

ছয় মাসের মাথায় একই পরিবারের দুটি শিশু খুন হওয়ার ঘটনায় কোনো যোগসূত্র আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে আবুল বাসার জানান।

সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতান মিয়া জানান, বাসার গৃহকর্মীর অনৈতিক সম্পর্কের ঘটনা দেখে ফেলায় গত অগাস্টে খুন হয় আলভীর ভাই আশিক। গ্রেপ্তারের পর ওই গৃহকর্মী ও তার সহযোগী আদালতে খুনের কথা স্বীকার করে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply