সিরাজদিখানে কালী মন্দিরের প্রতিমা ভাংচুর

সিরাজদিখানের চোরমর্দ্দন গ্রামের কালী মন্দিরের প্রতিমা ভেঙে ফেলেছে সন্ত্রাসীরা। পুলিশ ও মন্দির কর্তৃপক্ষ জানায়, সিরাজদিথান থানার চোরমর্দ্দন মণি পাড়া কালী মন্দিরে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা শনিবার সকালে ৬ টার সময় পূজা দিতে গেলে কালী প্রতিমা, ডাকিনী, যোগিনী এবং মহাদেব মূর্তির হাত-মাথা ভেঙ্গে পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে তা পরিদর্শন করে। এদিকে বাৎসরিক পূজা হওয়ার ১১ দিনের ব্যবধানে সিরাজদিখানে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনা ঘটায় এলাকা জুড়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মাঝে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। চোরমর্দ্দন কালি মন্দিরের সভাপতি বাবু বসন্ত দাস বলেন,আমরা সংখালঘু বিধায় আমাদের ধর্মকেও সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা করতে পারি না। মন্দির সেবায়েত সুদেব দাস বলেন, আমরা এ জঘন্য কাজের কঠোর বিচার চাই। এ ব্যাপারে সিরাজদিখান থানার ওসি শেখ মাহবুবুর রহমান জানান, একটি চক্র এই ন্যক্কারজনক কাজ গোপনে করে যাচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি তা শনাক্তের জন্য। আশা করছি দ্রুত এসব সন্ত্রাসীকে আটক করা হবে। তবে আতঙ্কের কিছু নেই। এ ব্যাপারে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিকে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে বিবৃতি দিয়েছেন জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এ্যাডভোকেট অজয় চক্রবর্তী , সাধারণ সম্পাদক সমর ঘোষ।

দ্যা নিউজ সেভেনটি ওয়ান
==========================

সিরাজদিখানে মন্দিরের প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগ

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার চোরমর্দ্দন গ্রামের কালী মন্দিরের প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করে সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, শনিবার দিনগত রাতে দুর্বৃত্তরা চোরমর্দ্দন গ্রামের কালী মন্দিরের চারটি প্রতিমা ভাংচুর করেছে।

এ দিকে কালী মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুরে প্রতিবাদ জানিয়ে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট অজয় চক্রবর্তী বাংলানিউজকে জানান, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

এছাড়া ওই কালী মন্দিরের সভাপতি বসন্ত দাস বাংলানিউজকে বলেন, ‘দুর্বৃত্তদের কবল থেকে মন্দিরের প্রতিমা পর্যন্ত নিরাপদ নয়।’

এ ব্যাপারে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে সিরাজদিখান থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply