অটোরিকশা চালিয়ে সিরাজদিখানের বেকার যুবকরা নতুন জীবন পেয়েছে

ইকবাল হোছাইন ইকু : পরিবেশবান্ধব ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সার সংখ্যা সিরাজদিখানে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে একদিকে যেমন পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা পাচ্ছে। অপরদিকে উপজেলার কয়েকশত বেকার যুবকের নতুন করে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। চালকরা জানান, ভাড়ায় নিয়ে অটোরিকশা স্থানীয় কিছু বেকার যুবক সিরাজদিখানের বালুর চর, গয়াতলা, কমলাপুর, সিরাজদিখান বাজার, কুসুমপুর, ইছাপুরা, সিংপাড়া, বেতকা, মালখানগর, নিমতলা, নেছারাবাদ এলাকার বিভিন্ন সড়কে চালিয়ে তাদের পরিবারে আর্থিক সচ্ছলতা ফিরিয়ে এনেছে। আবার অনেকে ব্যাংক বা এনজিওর কাছ থেকে ঋণ গ্রহণ করে নিজেই অটো রিকশা কিনে চালাচ্ছে। যারা ভাড়ায় চালাচ্ছে তাদের প্রতিদিন অটো মালিককে ৫শ টাকা জমা দিতে হয়। ওইসব অটো চালকরা সব কিছু মিলিয়ে প্রতিদিন এক এক জন ২শ টাকা থেকে ৩শ’ টাকা আয় করে বাড়ি ফিরেন।

তবে এ অটোতে জ্বালানি তেলের সাশ্রয় থেকে রক্ষা পেলেও বিদ্যুতের প্রয়োজন। বিদ্যুতের লেডশেডিং কারলে ব্যাটারিতে ঠিক ঠাক মতো চার্জ না হলে চালকদের ওই দিন বসে থাকতে হয়। দোসরপারার অটো চালক সাইফুল (১৯) জানান, আগে বেকার ছিলাম, বন্ধু বান্ধবদের সাথে আড্ডা দিয়ে সময় কাটাতাম। বাড়িতে গেলেই আম্মায় গালমন্দ করতো। সারাদিন খরচা করে এখন দুই/তিনশ টাকা বাড়িতে দেই। একই কথা বললেন নিমতলার অটো চালক বাবুল, বেতকার মাহিন ও কুসুমপুরের মামুন। ভাসান চরের অটো চালক জাকারিয়া জানান, আগে ৬ জনের সংসার আব্বায় রিকশা চালাইয়া বড় বোইনেবে বিয়ে দিছে। ছোট দুই বোইনই স্কুলো লেখা পড়া করছে। এখন আমি ভাড়াটিয়া অটো চালাইয়া আব্বার হাতে কয়েক দিন আগে ১২ হাজার টেকা দিছি। স্থানীয় সাংবাদিক সৈয়দ মাহমুদ হাসান মুকুট জানান, রিকশায় চলাচলে যে ভাড়া দিতাম এখন অটো বিকশায় অর্ধেক খরচ হয়। মুন্সিগঞ্জ পল্লী বিদুৎ সমিতির সভাপতি জাকির হোসেন জানান, কালো ধোঁয়ামুক্ত এ গাড়িগুলো পরিবেশের কোনো ক্ষতি করেছে না। এছাড়া এ উপজেলায় অনেক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে।

বিডি রিপোর্ট ২৪

Leave a Reply