মিরকাদিম পৌরসভার চার খাল দখলদার উচ্ছেদ শুরু

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিম পৌরসভার নয়নের খাল, রিকাবীবাজার খাল, ফেচন্নীর খাল ও গোপপাড়া খালের দখলকৃত সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ মঙ্গলবার শুরু হয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের খালিদ মেহেদী হাসানের উপস্থিতিতে উচ্ছেদকর্মীরা সকল থেকে এই উচ্ছেদ শুরু করে। অনেকে দখলদার নিজেরাই তাদের স্থাপনা সরিয়ে নিচ্ছে। এর আগে ২১৮ দখলদারকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নোটিশ দেয়।

খালের উপর গড়ে উঠা তৃতীয় তলা ভবনসহ সকল কাঁচাপাকা স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে। ঐতিহ্যবাহী নয়নের খাল জুড়ে গড়ে উঠেছিল বহু স্থাপনা। পাশের রিকাবীবাজার খাল, ফেচন্নীর খাল ও গোপপাড়া খালেরও একই চিত্র। বিপুল সংখ্যক পুলিশের উপস্থিতিতে শতাধিক কর্মী এই দখল উচ্ছেদ করে চলছে। এলাকাবাসীর দাবী শুধু উচ্ছেদ নয়, পরিবেশ রক্ষায় খালের নব্যতাও ফিরিয়ে আনতে হবে।

অবৈধ স্থাপনা তাদের লাল ক্রস চিহ্ন দিয়ে জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম অবৈধ দখলদারদের স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার জন্য সোমবার গণনোটিশ জারি করে মাইকিং ছাড়াও জেলা প্রশাসকের এই ঘোষণা বিভিন্ন স্থানে টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়। এই নোটিশের সময় পার হওয়ার পরই শুরু হয় এই উচ্ছেদ। সকল দখলদার উচ্ছেদ না হওয়া পর্যন্ত এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

ঐতিহ্যবাহী বন্দর নগরী মিরকাদিমে পরিবেশ সুরক্ষা ছাড়াও খালগুলোর যৌবন ফিরিয়ে এনে ধলেশ্বরী নদীর সাথে পুনঃ সংযোগ স্থাপনে এলাকার নৌ যোগাযোগও পুনঃ প্রতিষ্ঠিত করা হবে বলে জানান মিরকাদিম পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহিন। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের মাধ্যমে এই অঞ্চলের নৌযোগাযোগ, পয়ঃনিস্কাশন এবং জীববৈচিত্রে সুরক্ষার মাধ্যমে এই পরিবেশের সুরক্ষার দাবী জানিয়েছেন খাল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক হেলাল উদ্দিন। বিনোদপুর রামকুমার উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মুক্তার হোসেন জানান, মূল খাল উদ্ধার করে এক সময়ের ব্যবসা কেন্দ্র মিরকাদিমের পুরনো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে হবে। তবেই এই উচ্ছেদ সফল হবে। দখলদার তালিকার মধ্যে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ নেতাসহ এলাকার প্রভাবশালীদের নাম রয়েছে।

Leave a Reply