মেঘনা নদী ১০ ডাকাত সর্দারের নিয়ন্ত্রণে

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জঃ একশ’ নৌডাকাত সদস্যের কবলে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া ও চাঁদপুরের মতলব পর্যন্ত মেঘনা নদী অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে চাঁদাবাজি ও নৌ-ডাকাতির ঘটনা। গজারিয়া, মতলব ও মুন্সীগঞ্জ চরাঞ্চলের বাংলাবাজারের ১০ ডাকাত সর্দারের নেতৃত্বে এসব ঘটনা ঘটছে। দেশের দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলের হাজার হাজার নৌযানও ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। নৌ-ডাকাত ভয়ে মেঘনা পাড়ের জেলেসহ ৩০-৩৫টি গ্রামের মানুষের নির্ঘুম রাত কাটছে। নৌ-ডাকাতদের তাণ্ডবে নৌযান শ্রমিক, নদী পাড়ের মানুষ ও জেলেদের কাছে মেঘনা নদী হয়ে পড়ে আতঙ্কের জনপদ। ১০ ডাকাত সর্দারের নিয়ন্ত্রণে শতাধিক ডাকাত গ্রুপে বিভক্ত হয়ে দিনে চাঁদাবাজি, রাতে করে ডাকাতি। এসব ডাকাতদের শেল্টার দেয়- যখন যে দল ক্ষমতায় আসে সে দলের স্থানীয় শীর্ষ নেতা। পুলিশ ও নেতাদের ম্যানেজ করেই ডাকাত চক্রটি পার পেয়ে যাচ্ছে। পুলিশ ও এলাকাবাসীর দেয়া তথ্যমতে, দুর্ধর্ষ ডাকাত আব্দুর রহমান ও তার সেকেন্ড ইন্ড কমান্ড গজারিয়ার গুয়াগাছিয়ার ফয়েজ ও রঘুরচরের জাহাঙ্গীর, তার সহযোগী নয়ন, পারভেজ, জসিম, সালাউদ্দিন, শাহপরান, কবির, জিয়া ও স্বপন নিয়ন্ত্রণ করছে মেঘনার নৌ-ডাকাত সিন্ডিকেট। গত পাঁচ বছরে মেঘনার নৌ-ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে প্রায় দুই শতাধিক। হামলায় ডাকাতদের হাতে নিহত হয়েছে কমপক্ষে ১০ জন, আহত হয়েছে ৩ শতাধিক। এ সময় লুট হয়েছে কয়েক কোটি টাকার মালামাল।

ওদিকে- মেঘনায় অন্তত ২ হাজার জেলে নৌকা রয়েছে মাছ ধরার কাজে। বালু কাটার জন্য রয়েছে ২ হাজার ড্রেজার ও বাল্কহেড। এসব নৌযান থেকে ডাকাতরা দিনের বেলায় ৪-৫টি পয়েন্টে চাঁদা আদায় করে, রাতে করে ডাকাতি। নৌ-ডাকাত রোধে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব ও সেনাবাহিনী বিভিন্ন সময়ে প্রায় অর্ধশত ডাকাতকে আটক করে। এসব ডাকাতদের কেউ ১ মাস, ৬ মাস, কেউবা বিভিন্ন মেয়াদে সাজা খেটে জেল থেকে বের হয়ে পুরনো ডাকাতি পেশায় জড়িয়ে পড়েছে। বর্তমানে ২০-২৫ জন ডাকাত বিভিন্ন মেয়াদে জেল খাটছে। গত ৬ মাসে মেঘনায় জেলে নৌকায় ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে ২০-২২টি। এ সময় ডাকাতরা ১০ লাখ টাকার জাল, ৫ লাখ টাকার মাছ লুটে নেয়। এ ঘটনায় ডাকতদের হাতে আহত হয়েছে ৩০-৩৫জন জেলে। চাঁদাবাজির ঘটনা ঘটেছে ২০টি। তালিকাভূক্ত ডাকাতদের মধ্যে রয়েছে বালুয়াকান্দির রিপন, বড় রায়পাড়ার জিয়া, মনির, মেঘনা থানার সাব্বির, ইমন, দাউদকান্দি থানার রাসেল, রুবেল, নতুন চরচাষীর বজলু, কামরুল, উজ্জ্বল, শরিফ, দাউদকান্দির হাকিম, মোছলেম, ভাটিভলাকির মনির, মাসুদ, আনোয়ার, হানিফ, মমিন, পান্না, রঘুরচরের মুক্তার, শাহ আলম, রিপন, মাহবুব, জাহাঙ্গীর, আওলাদ, মাসুম, নাছির, ফারুক, রায়পাড়ার আবুল, জসিম, খোকন, রতন, সেন্টু, গুয়াগাছিয়ার জম্মু মেম্বার, বাবু, রিপন, মেঘনা থানার হরিপুরের মুজিবুর, জাকির, করিম, মাঈন উদ্দিন, করম আলী, হাফিজ, মিজান, ইকবাল, আব্বাস, কাঞ্চন, দাউদকান্দির জসিম, ইমন, মাসুম, কবির, সোনারগাঁওয়ের ইসলামপুরের কবির, খোরশেদ, আনোয়ার, তারা মিয়া, ভলাকির মাসুম, মিন্টু, জামান, দুলাল ও হোসেন্দির রূপম। তাদের কেউ কেউ বর্তমানে জেলে রয়েছে। তবে বেশিরভাগই বাইরে থেকে ডাকাতি করে যাচ্ছে। সূত্র মতে, রায়পাড়া থেকে ভাটিভলাকি মোড় পর্যন্ত জাহাঙ্গীর, শাহপরান, কালীপুর থেকে গুয়াগাছিয়া ও দাউদকান্দি সেতু পর্যন্ত ফয়েজ, নয়ন, জম্মু মেম্বার, পারভেজ, গজারিয়া লঞ্চঘাট থেকে মতলব পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জের বাংলাবাজার কালিরচর গ্রামের বংশগত ডাকাত সর্দার সাইফুদ্দিন মিজি, মিষ্টার মিজি, সোহেল মিজি, উজ্জ্বল মিজি ও কিবরিয়া মিজি নিয়ন্ত্রণ করছে। এছাড়া মেঘনার পাশ্ববর্তী সোনারগাঁও, মতলব, মেঘনা ও দাউদকান্দি থানা এলাকা থেকে গজারিয়া ও বাংলাবাজারের ডাকাতদের সঙ্গে মিশে ডাকাতি করে পালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, নৌ-ডাকাত রোধে প্রতি রাতে পুলিশ মেঘনাসহ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে টহল অব্যাহত রেখেছে। পুলিশের যানবাহন সঙ্কট ও লোকবলের অভাবে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছানো সম্ভব হচ্ছে না। পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই কখনও কখনও ডাকাতরা ডাকাতি করে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

০১৭৪০৯২২৫৯০
বাংলা ২৪ বিডি নিঊজ
দৈনিক আজকালের খবর

Leave a Reply