পদ্মা সেতুতে দুর্নীতি প্রমাণে ব্যর্থ হলে দাতাদের টাকা নেবো না: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুনরায় সংশ্লি­ষ্ট দাতা সংস্থার প্রতি বহুল প্রতীতি পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণের আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, তারা অভিযোগ প্রমাণে ব্যর্থ হলে সরকার তাদের তহবিল গ্রহণ করবে না। বৃহস্পতিবার নগরীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইডিইবি)’র ১৯তম জাতীয় সম্মেলন ও ৩৫তম কাউন্সিল অধিবেশন উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, “মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে আমরা মিথ্যা অভিযোগে মোড়ানো কোনো তহবিল গ্রহণ করতে পারি না।”

তিনি বলেন, “এই বিশাল প্রকল্পের ব্যাপারে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পরপরই সরকার তা তদন্তের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)’কে অনুরোধ করে। কিন্তু দুদক এখনো পর্যন্ত এই প্রকল্পে কোনো প্রকার অনিয়ম খুঁজে পায়নি।”

শেখ হাসিনা বলেন, “কোনো দেশ অথবা ফার্ম এগিয়ে এলে সরকার পদ্মা সেতুর মতো বিশাল প্রকল্পগুলো সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে (পিপিপি) অথবা বিল্ট, অপারেট ও ট্রান্সফার (বিওটি)’র ভিত্তিতে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।”

তিনি বলেন, “দাতা সংস্থাগুলোর অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্পগুলো ওইসব সংস্থার দেয়া নানা শর্তের কারণে দ্রুত বাস্তবায়ন করা যায় না। অথচ কোনো শর্ত না থাকায় সরকার তার নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করতে সমর্থ হয়।”

প্রধানমন্ত্রী বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকারকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে পুনরায় ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, “অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে এই দেশপ্রেমিক বাহিনী দেশকে একটি বিপর্যয় থেকে রক্ষা করেছে। তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, “এ ধরনের জঘন্য ষড়যন্ত্র করে কেউ ক্ষমা পাবে না।”

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা ইঞ্জিনিয়ারদের প্রতি কাজের মান বজায় রাখার পাশাপাশি জনগণের করের টাকা ও রাষ্ট্রীয় সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, “আপনারা মাঠ পর্যায়ের উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করেন। তাছাড়া আপনাদের মাধ্যমে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ৮৫ ভাগ বাজেট ব্যয় হয়- সুতরাং আপনাদের সততা, ত্যাগ ও দক্ষতার ওপরই কাজের মান বজায় রাখা ও রাষ্ট্রীয় সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নির্ভর করে।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আইডিইবি সভাপতি একে এম এ হামিদ। বক্তৃতা করেন আইডিইবি সহ-সভাপতি জাফর আহমেদ সাদেক ও সাধারণ সম্পাদক মো. শামসুর রহমান।

শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি দক্ষ মানবসম্পদের চেয়ে কোনো সম্পদই বড় নয়। এ কারণে আমরা জনশক্তিকে দক্ষ মানব সম্পদে পরিণত করতে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।”

তিনি বলেন, তার সরকার সারাদেশে ১২টি বিজ্ঞান ও কাগিগরি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং এক হাজার ৮শ’ বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি বৃত্তিমূলক কোর্স চালু করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারি উদ্যোগে তিনটি মহিলা ইনস্টিটিউটসহ ৪৯টি পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। তাছাড়া এ ধরনের ২০৫টি ইনিস্টিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বেসরকারি উদ্যোগে।

তিনি বলেন, বৃত্তিমূলক শিক্ষ প্রসারে প্রতি উপজেলায় একটি মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসহ আরো ২৫টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এবং একটি করে কারিগরি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আইটি জ্ঞানসমৃদ্ধ কোনো ব্যক্তি ক্ষুদ্র উৎপাদন কর্মকাণ্ড শুরু করতে চাইলে তার জন্য মূলধনের ব্যবস্থা করা হবে। কর্মসংস্থান ব্যাংকসহ তফসিলী ব্যাংকের মাধ্যমে সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আইসিটি’র বিপুল সম্ভাবনা কাজে লাগাতে তথ্য-প্রযুক্তির ওপর একটি টাস্কফোর্সও গঠন করা হয়েছে।”

তিনি বলেন, ১৯৯৭ সালে তার পূর্ববর্তী সরকারের আমলে প্রকৌশলীদের পেশাগত সমস্যা সমাধানে উচ্চ পর্যায়ের এক কমিটি গঠন করা হয়েছিল কিন্তু পরবর্তী বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার এ কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়ন করেনি। তিনি বলেন, ওই সুপারিশের আলোকে বর্তমান সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

তার সরকার সব সময় সাধারণ মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করে একথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, “কৃষিখাতে সমন্বিত ব্যবস্থা নেয়ার ফলে ইতোমধ্যে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের পথে রয়েছে। পাশাপাশি দেশের রফতানি আয় অব্যাহতভাবে বাড়ছে এবং মাথাপিছু আয় ৮২৮ ডলার অতিক্রম করেছে।”

তিনি বলেন, যানজট নিরসনে বেশ কয়েকটি ফ্লাইওভার ও এক্সপ্রেসওয়ে নির্মিত হচ্ছে। এছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ হাইওয়ে ৪-লেনে উন্নীত হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে সংশ্লি­ষ্ট ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ৫ জন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারকে আইডিইবি ক্রেস্ট দেন।

বাসস

Leave a Reply