জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার মেয়র রুলের জবাব দিলেন

মুন্সিগঞ্জের মিরকাদিম পৌরসভার চার খাল রক্ষায় হাইকোর্টের রুলের জবাব দিয়েছেন মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র ও পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক। গতকাল রোববার তাঁরা নিজ নিজ আইনজীবীর মাধ্যমে রুলের জবাব দেন। এ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমি ও জেলা প্রশাসক দুজনই আদালতের রুলের জবাব দিয়েছি।’

দখল হয়ে যাওয়া চার খাল উদ্ধারের বিষয়ে মুন্সিগঞ্জের পুলিশ সুপার বলেন, কেবল মিরকাদিমের চার খাল নয়, জেলার সব খাল থেকে দখলদার উচ্ছেদ করা হবে। খাল উদ্ধারের ক্ষেত্রে কাউকে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এ যাবৎ খালগুলো দখলমুক্ত করতে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, আরও কী কী করা হবে, তার বিস্তারিত জানিয়ে পুলিশ সুপার রুলের জবাব দিয়েছেন।
রুলের জবাব দেওয়ার পর মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রুলের জবাব দিয়েছি।’

মেয়র জানান, খাল রক্ষায় পৌরসভার পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসনকে সব রকম সহযোগিতা দেওয়া হবে। এলাকার পরিবেশ রক্ষায় স্থানীয় সাংসদ এম ইদ্রিস আলী সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।

এদিকে খাল দখলের ঘটনায় নোটিশ পাওয়া ১৬ জন দখলদারের আজ সোমবার হাইকোর্টে হাজির হওয়ার কথা রয়েছে। হাইকোর্টের নোটিশ পাওয়া মিরকাদিম পৌরসভা বিএনপির সভাপতি জসিমউদ্দিন আহমেদ আজ আদালতে হাজির হবেন বলে জানিয়েছেন।

খাল উদ্ধারে নেওয়া অভিযান প্রসঙ্গে ভূমি অফিস সূত্র জানায়, মঙ্গল, বুধ ও শনিবার—এই তিন দিনে জেলা প্রশাসন মিরকাদিম পৌরসভার নয়নের খাল, রিকাবীবাজার খাল, গোপপাড়া খাল ও ফেচন্নীর খাল থেকে ১১৩টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে। উচ্ছেদ করা স্থাপনার মধ্যে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাদের স্থাপনাও ছিল।

গতকাল খাল এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, দু-একজন রিকাবীবাজার খালের অবৈধ স্থাপনা স্ব-উদ্যোগে সরিয়ে নিচ্ছেন। তবে খালের পশ্চিমপাড়ার কিছু অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও উত্তর পাশের অনেক অবৈধ স্থাপনা এখনো রয়ে গেছে।

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ প্রসঙ্গে রামগোপালপুর এলাকার বাসিন্দা লিমন ইকবাল জানান, ওই চার খালের পাশে অনেক খাসজমি আছে। এসব খাসজমি দখল করেও স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে। ভূমি অফিস অনেক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেও খাসজমি দখলদারদের এখনো উচ্ছেদ করেনি। তিনি বলেন, খাল রক্ষার পাশাপাশি সরকারের খাসজমিও দখলমুক্ত হওয়া উচিত।

মিরকাদিম খাল রক্ষা কমিটির সদস্যসচিব মাহফুজ আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, উচ্ছেদ করা খালে দ্রুত খননের ব্যবস্থা না নিলে সেখানে আবার আস্তে আস্তে স্থাপনা গড়ে উঠবে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করা উচিত।

১৯ জানুয়ারি প্রথম আলোর শেষ পৃষ্ঠায় ‘নয়নের খাল আর নয়ন জুড়ায় না’ শিরোনামে মুন্সিগঞ্জের চারটি খাল নিয়ে প্রতিবেদন ছাপা হয়। ওই প্রতিবেদন হাইকোর্টের নজরে আসায় ওই দিনই বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে দখলদারদের কাছ থেকে কেন খালগুলো উদ্ধার করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। একই সঙ্গে আদালত সংবাদে প্রকাশিত ১৬ জন দখলদারকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন।

প্রথম আলো

Leave a Reply