গজারিয়ায় যুবদল-স্বেচ্ছাসেবকদলের দুই সেক্রেটারীর আধিপত্যের লড়াই

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় চলছে দুই সেক্রেটারীর লড়াই। তাদের ব্যক্তিগত এ যুদ্ধ এখন চলে এসেছে রাজনীতিতে। জেলা পর্যায় কমিটির দুই সেক্রেটারীর আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গজারিয়া উপজেলা বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা এখন দুইভাগে বিভক্ত। গ্র“পের দুই দল নেতারই বিরুদ্ধে রয়েছে স্থানীয় আওয়ামীলীগের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে উঠার অভিযোগ। এই দুই দলতোর একজন হলেন জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান ও অপরজন হলেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক ইদ্রিস মিয়াজী মহন।

আকষ্মিকভাবে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর ইদ্রিস মিয়াজী মহন গজারিয়া উপজেলার রাজনীতিতে আলোচনায় উঠে আসে। জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান ও স্বেচ্ছাসেবকদলের সাধারণ সম্পাদক ইদ্রিস মিয়াজী মহন পরিবারের মধ্যে পূর্ব বিরোধকে কেন্দ্র করে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব মাথা চাড়া দিয়ে উঠে। গেলো কোরবানি ঈদের পর দিন ৮ নভেম্বর গজারিয়ায় ওই দুই নেতার মধ্যে বাক বিতন্ডাকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ২জন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়। বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনাও ঘটে। এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি মেম্বার সরল খা এবং মহনের ছোট ভাই মিলন বাদী হয়ে যুবদল নেতা মুজিবুরকে প্রধান আসামি করে গজারিয়া থানায় পৃথক ২টি মামলা দায়ের করেন। তারা দুইজনই স্থানীয় আওয়ামীলীগের দুই নেতার শেল্টার নেয়।

গজারিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা রেফায়েত উল্লাহ খান তোতার শেল্টারে যুবদল নেতা মুজিবুর রহমান ও কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা হাফিজুর রহমান খান হাফিজের শেল্টার নেয় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা ইদ্রিস মিয়াজী মহন। হাফিজ ও তোতা আপন চাচাতো ভাই। গেলো ইউপি নির্বাচনে এই পরিবারের মধ্যেও বিরোধ দেখা দেয়। হাফিজের বাবা বকুল খান ছিলেন ইমামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর যুবদল নেতা মুজিবুর রহমান হন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। মহাজোট ক্ষমতায় আসার পর গেলো ইউপি নির্বাচনে যুবদল নেতা মুজিবুর প্রার্থী হননি। ওই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে যুবদল নেতা মুজিবুর গজারিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান তোতা খানের ছোট ভাই আজিমউদ্দিন খান জিতুকে এবং হাফিজুর রহমান খানের ভাই জিন্নাহ খানকে সমর্থন দেয় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা মহন। নির্বাচনে জিন্নাহ খান জয়ী হলে বিরোধ তুঙ্গে উঠে।

গজারিয়া উপজেলা বিএনপির একাধিক নেতা জানান, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার আগে গজারিয়া উপজেলা যুবদলের সভাপতি হুমায়ুন ছিলেন জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল হাইয়ের সামান্য বেতনভুক্ত কর্মচারি। জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান ছিলেন বিশ্বস্ত কর্মী। ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর মুজিবুর ও হুমায়ুন গজারিয়ায় ওই সময়ের সংসদ সদস্য আবদুল হাইয়ের ডান-বাম বনে যান। বিএনপি ক্ষমতাসীন হলে আবদুল হাইয়ের চাকরি ছেড়ে হুমায়ুন চলে আসে গজারিয়ায়। মুজিবুর- হুমায়ুন গজারিয়া বিএনপির রাজনীতিতে একচ্ছত্র অধিপতি বনে যায়। বালু মহাল, টেন্ডার ভাগ-বাটোয়ারা, ক্লিঙ্কার ব্যবসাসহ অর্থনৈতিক সব সিন্ডিকেটই চলে যায় যুবদলের ওই দুই নেতার নিয়ন্ত্রণে। জেলা বিএনপির সভাপতি, সাবেক এলজিআরডি উপমন্ত্রী আবদুল হাইয়ের নামে গজারিয়া ও মুন্সীগঞ্জ বালু মহালসহ অন্যান্য খাত থেকে প্রতিদিন ৭০-৮০ হাজার টাকা উত্তোলিত করা হতো। উত্তোলিত এই টাকার পুরোটাই লুটে নেয় হুমায়ুন।

এর সঙ্গে যুবদল নেতা মুজিবুরও জড়িত বলে ওই সূত্রগুলো জানায়। বিএনপি ক্ষমতার শেষ বছরে বিএনপি নেতা আবদুল হাই জানতে পারেন তার নামে উত্তোলিত ওই টাকা হুমায়ুন হাতিয়ে নিয়েছেন। এতে আবদুল হাই ক্ষিপ্ত হয়ে হুমায়ুনকে ধিক্কার জানায়। এরপরই গজারিয়ার রাজনীতি থেকে হুমায়ুন আউট হয়ে যায়। বিএনপির রাজনীতিতে আবদুল হাই ক্লিনম্যান হিসেবে পরিচিতি। কিন্তু গজারিয়ায় বিএনপির রাজনীতিতে যুবদলনেতা মুজিবুর আবদুল হাইয়ের ডান হাত হিসেবেই রয়ে গেছেন। বিএনপির অনেক ত্যাগি নেতা মুজিবুরের সঙ্গে কুলিয়ে উঠতে না পেরে রাজনীতি থেকে দুরে সরে রয়েছেন। ২০০৯ সালের নভেম্বর মাসে সম্মেলনে গজারিয়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম পিন্টুকে পদ হারাতে হয়। এদিকে ওই সম্মেলন উপজেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক করা হয় আতাউর রহমান আরজুকে। অথচ তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর এলাকার ভোটার এবং সেখানে জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে জড়িত বলে বিএনপি নেতাকর্মীদের অভিযোগ।

কোনঠাসা হয়ে রয়েছে বাউশিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল খায়ের, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক দুই সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান, সাইদুর রহমান, উপজেলা যুবদলের সাবেক সহ-সভাপতি সাইফুল শিকদার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাবেক সভাপতি রিপন ফরাজী। গেলো ইউপি নির্বাচনে মুজিবুর- হুমায়ুনের বিরুদ্ধে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রাথীদের বিপক্ষে ইলেকশন করার অভিযোগ উঠেছে। যুবদল নেতা মুজিবুর তার নিজ ইউনিয়ন ইমামপুরে বিএনপি সমর্থিত আলোকে চেয়ারম্যন পদে প্রার্থী করান। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী জিতুকে নিয়ে মাঠে নামেন। তার প্রার্থী জয়ী হতে পারেননি। নির্বাচনে ইমামপুরের সাবেক চেয়ারম্যান বকুল খানের ছেলে ও যুবলীগ নেতা হাফিজের ভাই জিন্নাহ জয়ী হয়। ভবেরচর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে উপজেলা বিএনপির সভাপতি প্রফেসর গিয়াসউদ্দিনের বিপক্ষে কাজ করেন। কিন্তু গিয়াসউদ্দিনের বিজয় ঠেকাতে পারেননি তিনি। গজারিয়া সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হন বিএনপি নেতা আহসান উল্লাহ। তার বিরুদ্ধে কাজ করেন সাবেক যুবদল নেতা হুমায়ুন। নির্বাচনে তিনি ভোট ৩৫ ভোট কম পেয়ে পরাজিত হন। এর আগে আহসান উল্লাহ গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩ বার চেয়ারম্যান ছিলেন।

এদিকে গত ১৬ আগষ্ট আকষ্মিকভাবে জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের কমিটি কোন রকম সম্মেলন ছাড়াই কেন্দ্র থেকে অনুমোদন হয়ে যায়। কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদে মহন মিয়াজীর স্থান হওয়ায় অনেকেই অবাক হন। অনেকের মতে মুজিবুরের রাজ্যের ভাগ বসাতেই মহনের হঠাৎ এ পদ লাভ। গজারিয়া স্থানীয় আওয়ামীলীগের শক্তিশালী অংশটি এই মুহুর্তে রয়েছে মহনের পক্ষে। সঙ্গে রয়েছে তার আপন চাচা জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি নাছির মিয়াজীও। আওয়ামীলীগের এই শক্তি স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা মহন মিয়াজীর পক্ষে থাকায় বিএনপি ও তার সহযোগি সংগঠনের ত্যাগি, পদ বঞ্চিত ও মুজিবুর দ্বারা নির্যাতিত নেতা কর্মীরা রয়েছে মহন মিয়াজীর সমর্থনে। এদিকে, এক সময় সম্পর্কে ফাটল থাকা সাবেক ছাত্রদল নেতা রফিকুল ইসলাম মাসুম জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের পদ হারিয়ে এখন নতুন করে সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন জেলা যুবদল নেতা মুজিবুরে সঙ্গে। জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাইয়ের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতককারী সাবেক যুবদল নেতা হুমায়ুনের সম্পর্ক না থাকলেও যুবদল নেতা মুজিবুর রহমান তাকে সঙ্গে তার দল ভারী করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে বিএনপির স্থানীয় একাধিক নেতার অভিযোগ। নেতৃত্ব হারাবার ভয়ে সম্মেলন না দিয়ে কেন্দ্রীয় যুবদলের শীর্ষ নেতাদের ম্যানেজ করে ১৫ বছর ধরে জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদকের পদটি দখল করে রাখারও অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।

Leave a Reply