উত্ত্যক্তকারীরা মারলেন ছাত্রীর চাচাকে

উত্ত্যক্ত করায় প্রতিবাদ জানাতে এসে মুন্সীগঞ্জ পলিটেকনিকেল ইনস্ট্রিটিউটে বখাটে ছাত্রদের হামলার শিকার হয়েছেন এক ছাত্রীর চাচা। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে। হামলার শিকার ওই চাচার নাম জুয়েল জমিদার (৪২)। তিনি মিরকাদিম পৌরসভার নুরপুর এলাকার বাসিন্দা। তার ভাতিজি তরঙ্গ ফারুকী (১৭) ওই ইনস্ট্রিটিটের প্রথম বর্ষের ছাত্রী।

জানা যায়, রোববার জনি নামের তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্র তরঙ্গ ফারুকীকে উত্ত্যক্ত করে। বিষয়টি ফারুকী তার অভিভাবকদের জানালে সোমাবার বাবা গোলাম ফারুক ও চাচা জুয়েল জমিদার ক্যাম্পাসে এসে বিষয়টি প্রিন্সিপালকে জানান এবং বিচার দাবি করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অভিভাবকদের সামনে তরঙ্গ ফারুকীকে ছাত্র জনি আবারো উত্ত্যক্ত করে। এত ক্ষুব্ধ হয়ে চাচা জুয়েল জমিদার জনিকে মারধর করে।

পরে জনির বন্ধুরা একত্রিত হয়ে অভিভাবকদের ওপর হামলা করে। এ সময় তারা চাচা জুয়েলকে মারধর করে। এতে ক্যাম্পাসে উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

প্রিন্সিপাল ইঞ্জিনিয়ার নিহার রঞ্জন দাস বলেন, “ক্যাম্পাসে চরম উত্তেজনার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছিল। পরে দুই পক্ষকে নিয়ে বিষয়টির সমাধান করা হয়েছে।”

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তদন্ত মো. মজিবুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ আসেনি। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

বার্তা২৪

——————————-

ছাত্রী উত্ত্যক্ত নিয়ে পলিটেকনিকে হট্টগোল

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : ছাত্রী উত্ত্যক্ত নিয়ে সদর উপজেলার কমলাঘাটস্থ মুন্সীগঞ্জ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে সোমবার হট্টগোল হয়। এই ঘটনায় আহত উত্ত্যক্তকারী ৫ম সেমিস্টারের ছাত্র জনিকে (২০) মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। লাঞ্ছিত ছাত্রীর চাচা জুয়েল জমিদারকে (৪০) স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি (তদন্ত) মুজিবুর রহমান জানান, সকাল সাড়ে ১০ টার দিকের এই ঘটনায় পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং অবরুদ্ধ ছাত্রীর চাচা জুয়েল জমিদারকে উদ্ধার করে। পুলিশ জানায়, একই ইনস্টিটিউটের ১ম সেমিস্টারের ছাত্রী তরঙ্গ ফারুকীকে কয়েকদিন ধরে উত্ত্যক্ত করে আসছিল জনি। বিষয়টি পরিবারকে জানানোর পরে ছাত্রীর চাচা জুয়েল জমিদার সোমবার অধ্যক্ষ নিহার রঞ্জন দাসকে অবগত করে। অধ্যক্ষের ভূমিকায় সন্তুষ্ট না হয়ে পরে ল্যাবের ক্লাস থেকে জনিকে বের করে এনে মারধর করে জুয়েল। এতে অন্য শিক্ষার্থীরা জুয়েল জমিদারকে আক্রমণ করে। পরে জুয়েল আত্মরক্ষার চেষ্টা করলেও গেইট লক করা থাকায় বের হতে পারেননি। বিপদগ্রস্থ অবস্থায় শিক্ষকরা এসে তাকে রক্ষার চেষ্টা করে। কিন্তু ছাত্ররা জুয়েলকে অবরুদ্ধ করে রাখে। এই খবর বাইরে ছড়িয়ে পড়লে শত শত উত্তেজিত জনতা ইনস্টিটিউটে ঢোকার চেষ্টা চালায়। পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে শিক্ষক নবরতœ দেওয়ান জানান, এই ঘটনায় শিক্ষাদান কার্যক্রম বিঘিœত হলেও পরিস্থিতি এখন শান্ত—।

Leave a Reply