কোলের শিশুকে খুন করলেন মা

কোলের শিশুকে গলা কেটে হত্যা করলেন এক মা। নিহত শিশুটির নাম সামির। বয়স মাত্র ছয় মাস। মঙ্গলবার সকালে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার কেওয়াটখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ শিশুর মা রুনা লায়লাকে (৩০) গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ বেলা ১১টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার ও তার মাকে আটক করে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। গ্রামবাসী শিশুকে দেখতে বাড়িতে ভীড় জমায়।

জানা যায়, ওই গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী মো. শাহ আলম সকালে ঘর থেকে বাইরে যান। পরে ফিরে দেখেন শিশু সামির রক্তাক্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে।

ছয় মাসের এই শিশুকে কেনো হত্যা করা হয়েছে, তাৎক্ষনিকভাবে তা জানা যায়নি। তবে তার ঘাতক মা মস্তিস্ক বিকৃত বলে পরিবারের সদস্যরা জানান।

শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। তার মাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে তিনি নির্বাক রয়েছেন।

ওসি আরো জানান, শিশুটির জন্মের পর থেকে রুনা লায়লা মানুষিক বিকারগ্রস্থ বলে পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন। তবুও ঘটনার তদন্ত চলছে।

বার্তা২৪
==================

মুন্সীগঞ্জে ৬ মাসের শিশুপুত্রকে জবাই করে হত্যা: ঘাতক মা জেল হাজতে

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ:

নিহত শিশু

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে আজ মঙ্গলবার সকালে ৬ মাসের কোলের শিশুপুত্রকে নিজ হাতে জবাই করেছে রুনা লায়লা (৩২) নামের এক পাগলিনী মা। নিজ বসত ঘরের ভিতর শিশু পুত্র সামিরকে চেপে ধরে ধারালো ছোরা দ্বারা গলা জবাই করে অভাগিনী এ মা।

নিহতের বাবার আহাজারি

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে জেলার শ্রীনগর উপজেলার কেয়টখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বেলা ১১ টার দিকে পুলিশ বসত ঘরের বিছানায় শোয়ানো অবস্থায় শিশু সামিরের লাশ উদ্ধার করে। এ সময় পুলিশ পাগলিনী মা রুনা লায়লাকে গ্রেফতার ও রক্তমাখা একটি ছোরা জব্দ করেছে। শ্রীনগর থানার ওসি মিজানুর রহমান বাংলা ২৪ বিডি নিউজকে জানান, নিহত সামিরের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য দুপুর ২ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় অভাগিনী মা রুনা লায়লাকে আসামী করে বাহরাইন প্রবাসী স্বামী শাহ আলম বাদী শ্রীনগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেফতারকৃত মা রুনা লায়লাকে দুপুরে মুন্সীগঞ্জের আদালতে প্রেরন করেছে পুলিশ। পরে বিকেলে আদালত তাকে জেল হাজতে প্রেরন করেছে। মানসিক ভারসাম্যহীন স্ত্রী রুনার জন্য মসজিদের হুজুরের কাছ থেকে পড়াপানি আনতে সকাল ৮ টায় ঘর থেকে বের হন স্বামী শাহ আলম। এ সময় রুনার কাছেই ছিল ৬ মাসের শিশুপুত্র সামির। ২ মাস ধরে ঢাকার ল্যাব এইড কার্ডিয়াক হাসপাতলের মনোরোগ ডাক্তার মোহীত কামালের তত্বাবধানে অভাগিনী রুনার চিকিৎসা চলছিল বলে স্বামী শাহ আলম জানিয়েছেন। পুত্র হন্তারক রুনার এটি দ্বিতীয় সংসার। ১০ বছর আগে প্রথম স্বামীর ঔরষজাত সন্তানকে ব্লেড দিয়ে পুচিয়ে পুচিয়ে হত্যা করে এই রুনা।

ঘাতক মা লায়লা

এ ঘটনায় জেল হাজতবাস ও প্রথম সংসার ভেঙ্গে গেলে চিকিৎসার মধ্য দিয়ে ২ বছর আগে সুস্থ্য হয়ে উঠে রুনা। দেড়-বছর পূর্বে জেলার শ্রীনগর উপজেলার কেয়টখালী গ্রামের ডাক্তারপাড়ার শাহ আলমের সঙ্গে একই উপজেলা দেউলভোগ গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীনের মেয়ে রুনার দ্বিতীয় বিয়ে হয়।

স্বামী শাহ আলম জানান, হুজুরের কাছ থেকে পড়া পানি আনতে গেলে ফাঁকা ঘরের ভেতর আকস্মিক নিজ শিশুপুত্রকে জবাই করে মা। মানসিক ভারসাম্য হীন রুনার চিকিৎসা চলছিল। তবে, এ ঘটনা কোন মতেই মেনে নিতে পারছেন না স্বামী শাহআলম। ঘটনার পর অভাগিনী মা রুনা নির্বাক হয়ে পড়েছে। গ্রেফতারের পর তাকে শ্রীনগর থানায় আনা হলে পুলিশের নারী সদস্যদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে রুনা কেবল নির্লিপ্ত হয়ে ফেল ফেল করে চারপাশে তাকানো ছাড়া কোন কথাই বলেনি। পুত্র হন্তারক রুনার প্রথম বিয়ে হয় জেলার লৌহজং উপজেলার নওপাড়া গ্রামের ইতালী প্রবাসী মোখলেছুর রহমানের সঙ্গে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

=================

মুন্সীগঞ্জে শিশু সন্তানকে হত্যা করেছেন মানসিক ভারসাম্যহীন মা

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে মানসিক ভারসাম্যহীন মা তার ৬ মাসের শিশু সন্তানকে গলা কেটে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে কেওয়াটখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে।

খবর পেয়ে বেলা ১১টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির লাশ উদ্ধার ও ঘাতক মা রুনা লায়লাকে (৩০) আটক করে।

জানা গেছে, শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর ইউনিয়নের কেওয়াটখালী গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী শাহ আলম সকালে বসতঘর থেকে বাইরে যান। পরে ঘরে গিয়ে দেখতে পান তার ৬ মাসের শিশু সন্তান সামির রক্তাক্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে।

বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। গ্রামবাসী শিশুটিকে দেখতে ওই বাড়িতে ভিড় জমায়। পরে খবর পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

নিহত শিশুর বাবা শাহ আলম বাহরাইন থাকেন। সম্প্রতি তিনি দেশে আসেন। ৬ মাসের এই শিশুকে কেন হত্যা করা হয়েছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে ঘাতক মা রুনা লায়লা মানসিক ভারসাম্যহন বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছে।

শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, ঘাতক মা রুনা লায়লাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে তিনি নির্বাক।

সামির নামের এই শিশুটির জন্মের পর থেকে মা রুনা লায়লা মানসিক বিকারগ্রস্ত ছিলেন বলে পরিবারের লোকজন জানিয়েছে। তাকে সুস্থ করার জন্য ডাক্তার ও কবিরাজি চিকিৎসা করা হলেও কোনো উন্নতি হয়নি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
=========================

মুন্সীগঞ্জে মানসিক ভারসাম্যহীন মা তার শিশু সন্তানকে জবাই করে হত্যা

শামীম বেপারী: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে মানসিক ভারসাম্যহীন মা তার ৬ মাসের শিশু সন্তানকে গলা কেটে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে কেওয়াটখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। খবর পেয়ে বেলা ১১টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির লাশ উদ্ধার ও ঘাতক মা রুনা লায়লাকে (৩০) আটক করে। জানা গেছে, শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর ইউনিয়নের কেওয়াটখালী গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী শাহ আলম সকালে বসতঘর থেকে বাইরে যান। পরে ঘরে গিয়ে দেখতে পান তার ৬ মাসের শিশু সন্তান সামির রক্তাক্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। গ্রামবাসী শিশুটিকে দেখতে ওই বাড়িতে ভিড় জমায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। নিহত শিশুর বাবা শাহ আলম বাহরাইন থাকেন। সম্প্রতি তিনি দেশে আসেন। ৬ মাসের এই শিশুকে কেন হত্যা করা হয়েছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে ঘাতক মা রুনা লায়লা মানসিক ভারসাম্যহন বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছে। শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, ঘাতক মা রুনা লায়লাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে তিনি নির্বাক। সামির নামের এই শিশুটির জন্মের পর থেকে মা রুনা লায়লা মানসিক বিকারগ্রস্ত ছিলেন বলে পরিবারের লোকজন জানান।

==========================

মুন্সীগঞ্জে নিজ সন্তানকে জবাই করেছে মা

মা আটক, চাকু উদ্ধার

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার পূর্ব কেইটখালী গ্রামে মা নিজের সন্তানকে জবাই করে হত্যা করেছে। মঙ্গলবার সকালে (পৌনে ৯টায়) নিজ ঘরে মা রুনা লায়লা (৩২) চাকু দিয়ে জবাই করে পুত্র ছমির মিয়াকে (৬ মাস)। পুলিশ ঘাতক মাকে আটক করেছে এবং রক্তাক্ত চাকু উদ্ধার করেছে। নিহত শিশুটির লাশ ময়না তদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ মর্গে পাঠিয়েছে। এই ঘটনায় শিশুটির পিতা শাহ ্আলম ব্যাপারী বাদী হয়ে স্ত্রীকে আসামী করে শ্রীনগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

শ্রীনগর থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, শিশুটি জন্মের পর থেকে মা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। মা রুনা রাতে ঘুমাতেন না। শিশুটির পিতার নাম শাহ্ আলম ব্যাপারী। সে বাহরাইন প্রবাসী ছিলেন। তবে দেড় বছর ধরে দেশে ফিরে বর্তমানে কৃষি কাজ করেছেন। রুনা লায়লা শ্রীনগর উপজেলার দেউলভোগ গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীনের কন্যা।

রুনা তার দ্বিতীয় স্ত্রী। প্রথম স্ত্রী ক্যান্সারে মারা যাওয়ার পর রুনাকে বিয়ে করেন। প্রথম সংসারেও সন্তান রয়েছে, সেই ঘরের দুই কন্যা বর্তমানে নানা বাড়ি বসবাস করেন। রুনারও এটি দ্বিতীয় বিয়ে, প্রথম সংসারে জন্ম নেয়া ২১ দিন বয়সী কন্যা সন্তানকেও পুকুরে ফেলে দিয়ে হত্যা করে। এই ঘটনা ঘটায় লৌহজংয়ের উপজেলার নওপাড়ার সুরপাড়া গ্রামের ১ম স্বামীর বাড়িতে। এ কারণেই প্রায় সাত বছর আগে ১ম স্বামী মোখলেছুর রহমানের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়। তবে কন্যা শিশুটি হত্যা ঘটনায় কোন মামলা হয়েছিল কিনা পুলিশ তা নিশ্চিত করতে পারেনি। তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হাফিজ জানান, তথ্যানুসন্ধানে জন্য লৌহজং থানাকে অবগত করা হয়েছে। পারিবারিকভাবে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেনি। তবে এব্যাপারে লৌহজং থানার ওসি মো. আব্দুল্লাহ জানান, তার থানায় এমন কোন রেকর্ড খুঁেজ পাওয়া যায়নি। লৌহজং উপজেরার নওপাড়া গ্রামের বাসিন্দা রশিদ শিকদার জানান, পুকুরে ফেলে দিয়ে সন্তান হত্যার ঘটনাটি সত্য। এর পরই স্বামীর সাথে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়। তবে এই ঘটনায় কোন মামলা হয়েছে বলে জানা নেই।

রুনা লয়লার মানসিক ভারসাম্য হারানো সম্পর্কে মুন্সীগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. বনদীপ লাল দাস বলেন, এটাকে “প্র“য়ের পেরিয়েলে সাইক্রোসি” রোগ বলা হয়। সন্তান জন্ম হওয়ার পর এই রোগে মা মানসিক রোগী হয়ে যেতে পারেন। তিনি জানান, এই রোগে আক্রান্ত হলে রোগী মানুষিক ভারষাম্য হারিয়ে ফেলেন। তাই শিশুটিকে আলদা রেখে সঠিক চিকিৎসা দেয়া জরুরি। সঠিক চিকিৎসায় রোগী সাধারণতঃ চার মাস থেকে ছয় মাসের মধ্যে আবার সুস্থ হয়ে উঠেন। দেশের প্রায় ২ শতাংশ মা এই রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকেন বলে তিনি জানান।

====================

Leave a Reply