জিয়ার জন্মবার্ষিকী

রাহমান মনি
শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৭৬তম জন্মবার্ষিকী পালন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জাপান শাখা। জিয়ার ৭৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ২২ জানুয়ারি রোববার টোকিওর কোইওয়া বুনকা সেন্টারে এক আলোচনাসভার আয়োজন করে। জাপান বিএনপির সহসভাপতি আলমগীর হোসেন মিঠুর পরিচালনায় আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপি জাপান শাখার সভাপতি আলহাজ নূর ই আলম (নূর আলী)। এ সময় মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল করীম রেজা। আয়োজনে সহযোগিতায় ছিল জাপান শাখার অঙ্গসংগঠনসমূহ।

দলের প্রতিষ্ঠাতার জন্মবার্ষিকী পালন উপলক্ষে টোকিও ছাড়াও চিবা, সাইতামা, কানাগাওয়া, তোচিগি, গুনমা, ইকরাকি প্রিফেকচার গুলি থেকে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনসমূহের নেতাকর্মীগণ উপস্থিত থেকে আলোচনাসভায় অংশ নেন।

আলোচনাসভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের ধারণা এবং স্বনির্ভর জাতি হিসেবে বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর শুরুটা করেছিলেন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। বাংলাদেশ আজ সার্বভৌমত্বের হুমকিতে রয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশের বর্ডার এলাকায় পাখির মতো নিরস্ত্র মানুষ গুলি করে মারা হচ্ছে। গত বছরের শুরুতে ফেলানীকে মেরে কাঁটাতারে ঝুলিয়ে যে উপহার দেয়া হয়েছিল নতজানু সরকার কোনো প্রতিবাদ না করায় বছরের শেষটা তারা হাবিবকে উলঙ্গ করে নির্যাতন করেছে তা হাসিনা সরকারের উলঙ্গতাই প্রকাশ পায়। তারা আরও বলেন, আশরাফ যখন বলেন সীমান্তে হত্যাকাণ্ড নিয়ে সরকার চিন্তিত নয় তখন আমরা রাগে, ক্ষোভে বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। একই ভাষায় প্রণব বাবুও বলেন সীমান্তে এমন হত্যাকা- আগেও হয়েছে, এখনও হচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও হবেÑ এই হলো দুই দেশের বন্ধুত্বের নমুনা। বাংলাদেশকে তারা আরেকটি সিকিম বানিয়ে ভারতকে উপহার দিতে চায়।

সর্বশেষ সশস্ত্রবাহিনীর ঘটনা নিয়ে বক্তারা বলেন, সশস্ত্রবাহিনীর ঘটনায় আমরাও উদ্বিগ্ন এবং ভারতের পত্রিকায় ভাষা আর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের মুখের কথা যখন একই হয়ে যায় তখন চিন্তিত না হয়ে পারি না। বাংলাদেশের মিডিয়ায় যা প্রকাশ পায় না তা ভারতে প্রকাশ পেয়ে যায়, এর কারণ কি? তদন্তাধীন কোনো বিষয় নিয়ে আমরা মন্তব্য করতে চাই না।

তারা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলেই শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারি হয়, ইচ্ছা করে পুঁজিবাজার ধ্বংস করে দেশকে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করে ভারতের হাতে তুলে দেয়ার জন্য এই কারসাজি করা হয়।

বক্তারা বলেন, গ্যাস সঙ্কটের জন্য নতুন গ্যাস সংযোগ দিচ্ছে না, গৃহস্থালি কাজেও মানুষ গ্যাস পাচ্ছে না, বিদ্যুতের বেলায়ও একই, পানির জন্য মানুষ কলসি মিছিল করছে অথচ সরকার সেদিকে কোনো খেয়াল করছে না। তারা শুধু ক্ষমতায় থাকায় শেষ চেষ্টা করে যাচ্ছে দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করে।

তারা বলেন, দেশের এহেন ক্লান্তিলগ্নে জিয়াউর রহমানের দূরদর্শিতার কথা গভীরভাবে উপলব্ধি করছি। বাকশাল প্রতিষ্ঠা করে একদলীয় শাসনে দেশ দুর্ভিক্ষের কবলে পড়ে, না খেয়ে মারা যাওয়ার পরিণাম সামনে কলাপাতা ব্যবহার, মা-বোনদের ইজ্জত রক্ষায় কাপড়ের বদলে জাল পরার পরিস্থিতি থেকে জিয়া বাংলাদেশকে অথনৈতিক সমৃদ্ধ করেছিলেন। তাই তার মতো নেতা দেশে আজ বড়ই প্রয়োজন। শিশু জিয়া তো আর বার বার জন্ম হবে না। ১৯৩৬ সালের ১৯ জানুয়ারি বগুড়ার গাবতলীর বাগবাড়ীতে একবারই জন্ম নিয়েছিল।
সব শেষে সকলে নৈশভোজে মিলিত হয়।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply