বাংলা ভাষার জন্য দুঃখ

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
নানা সময়ে রাজনৈতিক কারণে বাংলা ভাষার ওপর আক্রমণ এসেছে। এক সময়ে সংস্কৃত ভাষার দাপট বাংলা ভাষার ওপর চড়াও হয়েছিল। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে দেখা যায়, আরবি, ফার্সি ভাষাও বাংলা ভাষার ওপর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার চেষ্টা চালায়। ব্রিটিশদের শাসনামলে আমরা দেখলাম ইংরেজি ভাষার প্রসার ও কর্তৃত্বে তৎকালীন শিক্ষিত জনগোষ্ঠী দ্বিভাষীতে পরিণত হয়েছিল। কেননা রাষ্ট্রের ভাষা ছিল ইংরেজি। তবুও সে সময় কিন্তু খুব জোরালোভাবে বাংলা ভাষার চর্চা চালানো হয়েছে। ইংরেজির আধিপত্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ছিল। আমাদের সাহিত্যিকরা তাতে জোরালো ভূমিকা রেখেছিলেন। মাইকেল মধুসূদন প্রথমে ইংরেজি ভাষায় লিখতে শুরু করলেও পরবর্তী সময়ে তিনি মাতৃভাষা বাংলায় ফিরে এলেন; এই যে তার নতুন করে বাঙালি হয়ে ওঠা, বাংলা ভাষার চর্চা করা এটা শুধু মাইকেলের একার প্রতিবাদ ছিল না; তার ভেতর দিয়ে এটা সমগ্র বাঙালির, বাঙালি চেতনার প্রতিবাদের বহিঃপ্রকাশ মাত্র। বাংলা ভাষীরা জানত, তারা পরাধীন সে সময়ে বাংলার চর্চা সীমিত ছিল, কিন্তু মানুষের আকাক্সক্ষা ছিল এই পরাধীনতার শৃংখল থেকে বেরিয়ে আসার, তারই পথ অবলম্বন ছিল জোরালোভাবে মাতৃভাষা বাংলার চর্চা। বঙ্কিমচন্দ্রের প্রথম উপন্যাসও কিন্তু ইংরেজিতে রচিত। তিনিও পরবর্তী সময়ে বাংলায় লিখতে থাকেন।
৪৭-এ পূর্ববঙ্গ স্বাধীন হল বটে কিন্তু তখন বাংলা ভাষার ওপর এসে প্রভুত্ব করতে চাইল উর্দু। রেডিও তখন একমাত্র গণমাধ্যম ছিল যা ঘরে ঘরে পৌঁছাত, এছাড়াও সরকারি পত্রপত্রিকার মাধ্যমে আরবি, ফার্সি ভাষা ব্যবহারের ব্যাপক প্রচলন তৈরির চেষ্টা চালানো হয়েছিল। রবীন্দ্রনাথকে বর্জন করার চেষ্টা হয়েছিল, নজরুল ইসলামের ধর্মনিরপেক্ষতা, অসাম্প্রদায়িকতা বাদ দিয়ে তাকে মুসলমান বানানো হচ্ছিল, তার লেখা সম্পাদনা করা হচ্ছিল, তিনি যেখানে ভগবান ব্যবহার করছেন তা কেটে রহমান করা হচ্ছিল। এমনকি আমাদের বর্ণমালা বদলের সরকারি চেষ্টাও চালানো হয়েছিল। কারও পরামর্শ ছিল আরবিতে, কারও কারও মতে রোমান হরফে লেখার প্রচলন করা হোক ইত্যাদি। এর পরের অংশ তো আমাদের সবারই জানা। এক প্রবল বিস্ফোরণের ভেতর দিয়ে ভাষা আন্দোলন করে আমরা আমাদের মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত করলাম এবং সূচনা ঘটল বাঙালি জাতীয়তাবাদের।

অনেক অত্যাচার, জুলুম, নিপীড়ন সহ্য করে বাংলা ভাষা টিকে আছে। এখন দেশ স্বাধীন, রাষ্ট্রভাষা বাংলা কিন্তু আসলে তা রাষ্ট্রের ভাষা হয়নি প্রধান দুটো ক্ষেত্রে; উচ্চশিক্ষা এবং উচ্চ আদালত। আবার ইদানীং দেখা যাচ্ছে বাংলা-ইংরেজি মিশিয়ে কথা বলার একটা নতুন চল তৈরি হয়েছে। ইংরেজি মাধ্যমে পড়াশোনার একটা বিস্তার লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ব্রিটিশ আমলে, পাকিস্তানি আমলেও বাংলা ভাষার পক্ষে জনমত ছিল অন্য ভাষার প্রভূত্বের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ছিল কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশে আজ সেই প্রতিবাদ নেই। সচেতনতা নেই। যা হওয়া অনিবার্য ছিল। এই পরিণতি অপ্রত্যাশিত। আমরা চেয়েছিলাম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, আদালতসহ সবখানে বাংলা ভাষার প্রচলন হোক তা হয়নি। ইদানীং আরও একটি নতুন উৎপাত এসে জুটেছে তা হল হিন্দি চ্যানেলগুলোর মাধ্যমে হিন্দি ভাষা ও সংস্কৃতির দুষ্টপ্রভাব এগুলো শিশুরাও শিখছে তারা হিন্দির দিকে ঝুঁকে পড়ছে। ব্রিটিশ বা পাকিস্তানি শাসনামলেও বাংলার যতটা বিকৃতি তারা করতে পারেনি, স্বাধীন বাংলাদেশে বাংলা ভাষার বিকৃতি ঘটছে তার চেয়ে অনেক অনেক বেশি। আবার আমাদের দেশীয় টিভি নাটকগুলোতেও এক ধরনের গোজামিল দেয়া আঞ্চলিক ঢঙের অদ্ভুত ভাষার চর্চা করা হচ্ছে চরিত্ররা সব সে ভাষায় কথা বলছে। এসব দুঃখজনক। হত্যাশাব্যঞ্জক।

ভাষা আন্দোলনের ৬০ বছর, স্বাধীনতার ৪০ বছর পরে যখন বিশ্বে অজস বাংলাভাষী ছড়িয়ে পড়েছে তখনও আমরা আমাদের বাংলা সাহিত্যের অনুবাদগুলো বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে পারছি না। বিশ্বকে বাংলা সাহিত্যের একটি সামগ্রিকতার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে পারছি না। এই ব্যর্থতার দায়ভার আমাদের। আমাদের শিক্ষিত জনগোষ্ঠী দেখা যায় যে তারা ভালো ইংরেজি পারে না বলে তাদের দুঃখ আছে অথচ তারা যে ভালো বাংলাও পারে না সে ব্যাপারে তাদের মনে কোন দুঃখ নেই।

আমাদের রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাই হয়েছে ভাষাভিত্তিক এই ভাষাভিত্তিক স্বাধীন রাষ্ট্রটিতে মাতৃভাষার চর্চাই প্রধান হিসেবে গৃহীত হবে এটাই স্বাভাবিক। জ্ঞান, বিজ্ঞান, দর্শন, গবেষণা সব কিছু হবে বাংলা ভাষাভিত্তিক এবং এক ব্যাপক চর্চার ভেতর দিয়ে জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রসার ঘটিয়ে সারাবিশ্বে বাংলার মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল; হয়নি।

আজ আমাদের মাতৃভাষাকে পাশ কাটিয়ে এই যে অপরাপর ভাষার চর্চা অর্থনৈতিক দুরবস্থাকে আমরা এজন্য দায়ী করতে পারি। আমাদের দেশপ্রেমের অভাবও রয়েছে। এই যে সমাজে ইংরেজির ব্যবহার এই ব্যবহারের প্রবণতা থেকে সমাজে যে বৈষম্য বাড়ছে আমরা তা চিহ্নিত করতে পারি। যারা ইংরেজির চর্চা করছে তারা নিজেদেরকে অন্যদের কাছ থেকে আলাদা করতে চায় এটা দুঃখজনক। ’৭১-এ আমরা পরিণতি পেলাম বটে কিন্তু প্রত্যাশিত পরিবর্তন আসেনি, তার প্রমাণ এই ভাষা ব্যবহার। ভাষা এখানে বৈষম্যের স্মারকচিহ্ন।

’৭১-এ জয়ের পরেও মাতৃভাষার মর্যাদা অক্ষুণœ রাখতে না পারায় আমাদের এই যে পরাজয় তা বেদনার, কষ্টের। অথচ আমরা যে জয়ী হয়েছি তা মিথ্যা নয়; কাজেই আমাদের পূর্বের ওই সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। ভাষার সঙ্গে শত্র“তা আর মানুষের সঙ্গে শত্র“তা একই। পুঁজিবাদ আমাদের সেই শত্র“, যা ভাষার বিকাশকে, চর্চাকে বাধাগ্রস্ত করছে, সমাজে বাড়াচ্ছে বৈষম্য। এই শত্র“ আমাদের ছিল না স্বাধীনতা অর্জনের পর সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এই পুঁজিবাদ মুক্তি পেয়েছে, অথচ এমন হওয়ার তো কথা ছিল না।

যুগান্তর

Leave a Reply