সৌদি থেকে ফিরেই ক্ষমা নথিতে স্বাক্ষর করলেন মহিদুলের পুত্র

কুয়েতে ৩ বাংলাদেশীর শিরচ্ছেদ ঠেকাতে
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : কুয়েতে শিরচ্ছেদ দন্ডপ্রাপ্ত তিন বাংলাদেশী যুবকের ক্ষমার নথিতে বুধবার স্বাক্ষর করেছেন নিহত মহিদুলের পুত্র মুজিবুর রহমান। তিনি বুধবার ভোরে সৌদি থেকে দেশে ফিরেন। পরে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর ইউএনও অফিসে এসে ননজুডিশিয়াল স্ট্যাম্পের ক্ষমা পত্রে স্বাক্ষর করেছেন। সিঙ্গাইর ইউএনও নাসরিন সুলাতানা রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রাতেই এই কাগজ ঢাকায় পৌছানোর কথা রয়েছে। এর আগে সোমবার মহিদুলের অপর সন্তান কন্যা রাজনীন বেগম এবং মহিদুলের তিন ভাই ক্ষমা পত্রে স্বাক্ষর করেন। মহিদুলের পুত্র মুজিবুর রহমান জানান, দেশের ভাবমূর্তি রক্ষার কথা চিন্তা করেই শিরচ্ছেদ দন্ডপ্রাপ্ত তিন বাংলাদেশীকে ক্ষমা করতে রাজি হয়েছেন এবং দেশে ফিরছেন।

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর পরিচালক (কল্যাণ) মহসিন চৌধুরী জানান, ইংরেজীতে লেখা সোমবারের ক্ষমাপত্রটি আরবীতে অনুবাদ করে কুয়েতে পাঠানো হয়েছিল। তবে এই অনুবাদ তাদের পছন্দ হয়নি। বিষয়টি বুধবার বিকালে কুয়েত থেকে তাদের অবগত করা হয়েছে।

তাই কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশী আইনজীবীর মাধ্যমে তৈরী করা অনুবাদ প্রক্রিয়া চলছে। এটি পাওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ক্ষমাপত্রটি বৃহস্পতিবার পাঠানোর প্রচেষ্টা চলছে। তিনি বলেন, “আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে দেশ তথা জাতির কথা ভেবেই আমাদের নাগরিকদের বিদেশে নিজেদের পরিচালিত করা উচিত। যাতে বর্হিবিশ্বে আমাদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। ধর্মীয় অনুভূতি ও শহীদের রক্তের কথা চিন্তা করেই সকল অপকর্ম থেকে বিরত থাকা উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

কুয়েতে বাংলাদেশী দ্রুতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারী (লেবার) আলী রেজা সিদ্দিকীর সাথে এই তিন বাংলাদেশী যুবকের শিরচ্ছেদ ঠেকানো নিয়ে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রয়েছে উল্লেখ করে মহসিন চৌধুরী বলেন, নিহত মহিদুলের পুত্র সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে এসে ক্ষমা চুক্তিতে স্বাক্ষর করায় আর কোন জটিলতা আপততঃ নেই।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম বলেন, বর্হিবিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি রক্ষায় মুন্সীগঞ্জের দুই সহোদরসহ তিন বাংলাদেশীর শিরচ্ছেদ ঠেকাতে যেখানে যা প্রয়োজন সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ের যাচ্ছি। এদিকে দন্ডপ্রাপ্তদের পরিবারগুলোর মধ্যে চরম উৎকণ্ঠার মধ্যেও এই আশার আলো দেখছেন।

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাগবাড়ী বিবন্ধী গ্রামের নুরু ঢালীর দুই পুত্র ইকবাল ঢালী (২৫) ও হৃদয় ঢালী (২৩) এবং কুমিল্লার তিতাস উপজেলার দক্ষিণ বলরামপুর গ্রামের রবিউলের পুত্র মো. রমজানের (২৬) শিরশ্চেদের দন্ডাদেশ দেয় কুয়েতী আদালত। কুয়েতে কার চালক চালাতেন মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার পূর্ব বান্ধাইল গ্রামে মহিদুল। তিনি ২০১০ সালের ১৬ এপ্রিল খুন হওয়ায় ঘটনায় এই তিনি স্বদেশীকে দন্ডাদেশ দেয় কুয়েতের আদালত। এই রায়ের পর বাংলাদেশের ভাবমূর্তির কথা চিন্তা করে তাদের জীবন রক্ষায় পরিবার তথা বাংলাদেশ সরকার চেষ্টা শুরু করে।

কুয়েতের আইনানুযায়ী নিহতের পরিবার ক্ষমা করলেই কেবল দন্ড মওকুফ করা যায়। তাই মহিদুলের পরিবারের কাছে ক্ষমার জন্য দন্ডপ্রাপ্তদের পরিবার প্রশাসনে মধ্যস্থতায় গত বৃহস্পতিবার সিঙ্গাইর ইউএরও অফিসে বৈঠকে বসেন। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দন্ডপ্রাপ্তদের পরিবার মহিদুলের রক্তের মূল্য বাবদ ২১ লাখ টাকা যৌথ হিসাবে সোমবার জমা দিয়েছেন।

================

কুয়েতে ৩ বাংলাদেশির শিরচ্ছেদ হচ্ছে না

কুয়েতে শিরচ্ছেদে দন্ডিত তিন বাংলাদেশির ক্ষমাপত্রে স্বাক্ষর করেছেন নিহত মহিদুলের ছেলে মুজিবুর রহমান।

বুধবার ভোরে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর ইউএনও কাযালয়ে নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিত ওই ক্ষমাপত্রে স্বাক্ষর করেন তিনি।

এর আগে সোমবার মহিদুলের মেয়ে রাজনীন বেগম এবং মহিদুলের তিন ভাই ক্ষমাপত্রে স্বাক্ষর করেন।

সিঙ্গাইরের উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাসরিন সুলাতানা রাতে এই তথ্য নিশ্চিত করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “রাতেই এই কাগজ ঢাকায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে।”

কুয়েতে ২০১০ সালের ১৬ এপ্রিল মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার পূর্ব বান্ধাইল গ্রামে মহিদুল খুন হন।

ওই ঘটনায় মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাগবাড়ী বিবন্ধী গ্রামের নুরু ঢালীর দুই ছেলে ইকবাল ঢালী (২৫) ও হৃদয় ঢালী (২৩) এবং কুমিল্লার তিতাস উপজেলার দক্ষিণ বলরামপুর গ্রামের রবিউলের ছেলে মো. রমজানের (২৬) শিরশ্চেদের দ- দেয় কুয়েতের একটি আদালত।

কুয়েতের আইন অনুযায়ী নিহতের পরিবার ক্ষমা করলেই কেবল দ- মওকুফ করা যায়। বাংলাদেশ সরকারের প্রচেষ্টায় ২১ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার শর্তে দন্ডিতদের ক্ষমা করতে রাজি হয় মহিদুলের পরিবার।

মহিদুলের ছেলে মুজিবুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দেশের ভাবমূর্তি রক্ষায় দ-িত তিন বাংলাদেশিকে ক্ষমা করতে রাজি হয়ে দেশে আসেন তিনি।

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর পরিচালক (কল্যাণ) মহসিন চৌধুরী বলেন, ইংরেজিতে লেখা সোমবারের ক্ষমাপত্রটি আরবিতে অনুবাদ করে কুয়েতে পাঠানো হয়। তবে ওই অনুবাদ তাদের পছন্দ না হওয়ায় কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশি আইনজীবীর মাধ্যমে অনুবাদ প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।

“এটি পাওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ক্ষমাপত্রটি বৃহস্পতিবার পাঠানোর চেষ্টা চলছে,” যোগ করেন তিনি।

কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রয়েছে উল্লেখ করে মহসিন বলেন, নিহত মহিদুলের ছেলে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে এসে ক্ষমা চুক্তিতে স্বাক্ষর করায় আর কোনো জটিলতা রইল রা।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply