ইমদাদুল হক মিলনের নূরজাহান

ইফতেখারুল ইসলাম
কাহিনীর বিস্তার, বর্ণনার ব্যাপকতা, চরিত্রসংখ্যা ও তাদের সামগ্রিক সমাজ-পরিচয়, ক্রমবিকাশ ইত্যাদি লক্ষণ বিবেচনায় দীর্ঘ উপন্যাসকে কথাসাহিত্যের প্রায় স্বতন্ত্র একটি উপবিভাগ হিসেবে দেখা যেতে পারে। বাংলা সাহিত্যে দীর্ঘ উপন্যাসের কালজয়ী ঐতিহ্য আছে। গত শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে আমরা এ রকম উপন্যাসে উৎকর্ষের শীর্ষ উদাহরণও দেখেছি। তবে জীবনগতির বিবর্তনে গত কয়েক দশকের কথাসাহিত্যে, বিশেষত বাংলাদেশে এ ধরনের উদাহরণ ক্রমেই হয়ে উঠেছে বিরল ও বিলীয়মান। বিশেষত গ্রাম-জীবনের স্বল্পচেনা জটিল সম্পর্ক ও সংঘাতকে উপন্যাসের সরল কাহিনীপ্রবাহে দীর্ঘ কাল-পরিসরে উন্মোচন করে যাওয়ার কাজটি সহজসাধ্য নয়। এর জন্য গল্পের বুননশৈলী ও ভাষা-দক্ষতার পাশাপাশি অনেক বেশি প্রয়োজন লেখকের ব্যাপক প্রস্তুতির; একটি জনগোষ্ঠীর ভাষা, ধর্মচর্চা, লোকসংস্কৃতি ও দৈনন্দিন জীবনযাপনের অভিজ্ঞান-সমন্বিত নিবিড় পর্যবেক্ষণ। ‘নূরজাহান’ উপন্যাসে সুচারুভাবে বাংলাদেশের একটি পুরো গ্রাম এবং তার পরিবেশ-পরিপার্শ্বকে তুলে ধরেছেন ইমদাদুল হক মিলন। গ্রামের ভেতরকার অনেকগুলো পরিবার, তাদের প্রত্যেকের বাড়িঘর, পেশা, শিক্ষা, অর্থনৈতিক ও সামাজিক শ্রেণী-অবস্থান, তাদের দিনযাপনের বিবরণ ও পারস্পরিক সম্পর্ক, তাদের চারপাশের প্রকৃতি, ঋতুর আবর্তন, নদী, খাল, সড়ক, বৃক্ষরাজি, নতুন নির্মিত মহাসড়ক, চক ও ক্ষেতখোলার সম্পূর্ণ ভূগোল এমন নিবিড়ভাবে তিনি চিত্রায়িত করেছেন যে আমরা পুরো গ্রাম চোখের সামনে দেখতে পাই। দেখতে পাই শুধু তার নদী ও শস্যক্ষেতের প্রকৃতিকে নয়, বহু মানুষের সংসার, জীবনযাপন ও আন্তসম্পর্কের পরিবর্তনশীল জটিলতা মিলিয়ে পূর্ণাঙ্গ বাস্তব গ্রামজীবনকে। নূরজাহান কোনো কল্পিত চরিত্র নয়। সদ্য কৈশোর পেরোনো এই চঞ্চল তরুণী স্বার্থান্ধ ধর্মব্যবসায়ীর হিংস্র নখরে ছিন্নভিন্ন হয়েছে এই বাংলাদেশেরই প্রত্যন্ত এক গ্রামে। তার প্রাণচঞ্চল কৈশোর আর অতি সাধারণ স্বপ্নময় জীবন হারিয়ে গেছে দুশ্চরিত্র স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী মাওলানার অপব্যাখ্যা ও অন্যায় বিধানে। প্রতিবাদী নূরজাহান কঠোরতম শাস্তির মুখোমুখি হয়েছে, সবার সামনে তার এবং তার মা-বাবার ওপর নেমে এসেছে মধ্যযুগীয় নিপীড়ন। শেষ পর্যন্ত এই দুঃসহ অপমানের বোঝা সইতে না পেরে আত্মহননের পথ বেছে নেয় নূরজাহান। নূরজাহানের আত্মহত্যা প্রকৃতপক্ষে এ দেশের ধর্মান্ধ অপবিধানের বিরুদ্ধে প্রথম সোচ্চার প্রতিবাদ। আর এই বাস্তব চরিত্র এবং মর্মান্তিক ঘটনাবলিকে একটি চলিষ্ণু জনপদের পটভূমিতে রেখেই রচিত হয়েছে মিলনের উপাখ্যান।

নূরজাহান- ইমদাদুল হক মিলন। প্রকাশকাল ফেব্রুয়ারি ২০১১। অনন্যা।

সমকালীন মূলধারার বাংলা কথাসাহিত্যে বেশির ভাগ চরিত্র তুলির সামান্য আঁচড়ে, স্বল্প কথায়, কিছু অপূর্ণ ইঙ্গিতে, কিছুটা অস্ফুট রেখে তুলে ধরা হয়। এসব উপন্যাসে সব চরিত্রের পূর্ণাঙ্গ সমাজ-পটভূমি ও শ্রেণী-পরিচয় ধারণ এবং তাদের জীবনধারার সামগ্রিক উন্মোচন সহজলভ্য নয়। কারণ এতে উপন্যাসের আয়তন বেড়ে যায় এবং তা গ্রহণ করতে হলে লেখক, প্রকাশক, পাঠক_সবারই নতুন প্রস্তুতির প্রয়োজন হয়। ‘নূরজাহান’ তাই একাধিক কারণে সাহসী ও ব্যতিক্রমী রচনা। বহু চরিত্রের সমাবেশ ঘটেছে এখানে। সেই সঙ্গে রয়েছে প্রতিটি পরিবারের ছোটবড় সব মানুষের দৈনন্দিন জীবনের পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ। উপন্যাসের দীর্ঘ পরিসরে বর্ণিত রয়েছে এসব চরিত্রের ক্রমবিকাশের কাহিনী। প্রতিটি চরিত্র এবং তাদের সংসারজীবনের খুঁটিনাটি বিস্তার উপন্যাসের আয়তন বৃদ্ধি করলেও কাহিনীর ক্রম-অগ্রগতি, বিশ্বাসযোগ্যতা ও বিকাশের জন্য তারা অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক। গল্পের মূল কাঠামোর জন্য আপাতদৃষ্টিতে অত্যাবশ্যক মনে না হলেও কাহিনীর অনুষঙ্গ হিসেবে পরিবেশ ও পটভূমিকে পূর্ণাঙ্গ ও বাস্তব করে তোলার জন্য এদের গুরুত্ব অসীম। এমনকি অপ্রধান চরিত্রগুলোও নিজের ও তার পরিবার-পরিবেশের সম্পূর্ণ পরিচয় নিয়ে উপস্থিত। কিছু চরিত্র ও পরিবার গ্রামের ভেতরে থেকেও উপার্জন, সম্পদ, প্রভাব ও ক্ষমতার দিক থেকে প্রান্তিক ও গুরুত্বহীন; তবে জনপদের সামষ্টিক পরিচয়ের জন্য অপরিহার্য। এদের ব্যক্তিজীবন, পেশা, দৃষ্টিভঙ্গি ও সামাজিক ভূমিকার বিশদ বর্ণনা এই চরিত্রগুলোকে যেমন স্পষ্টভাবে চিনতে সাহায্য করে, তেমনি এদের দৃষ্টির ভেতর দিয়েই অধিকতর উন্মোচিত হয় প্রধান-অপ্রধান অন্যান্য চরিত্রের বৈশিষ্ট্য। প্রতিটি চরিত্রের অন্তর্জগৎকে মিলন উন্মোচন করতে চেয়েছেন এবং সে জন্য গুরুত্বভেদে বিভিন্ন পদ্ধতি বেছে নিয়েছেন অনেকটা স্বতঃস্ফূর্তভাবেই। কেন্দ্রীয় চরিত্র নূরজাহান অথবা দবির গাছির ক্ষেত্রে তিনি অন্তর্জগৎকে মেলে ধরেছেন চরিত্রটির নিজস্ব ও অনুচ্চারিত ভাবনাকে অবলম্বন করে, নিজের বিশ্লেষণে। আবার অন্য কিছু চরিত্র, যেমন_মাওলানা মান্নান, আতাহার, নিখিল, পারু, মাওলানা তোসারফ আলী, আলফু_এদের ক্ষেত্রে লেখক এদের নিত্যদিনের কর্মে, আচরণে, চলাফেরায়, সংলাপে তুলে ধরতে চেয়েছেন তাদের অন্তর্জগতের অভিসন্ধি, কালিমা, বিষাদ, ন্যায়-অন্যায় বোধ, বোধহীনতা, ক্রোধ এবং নানা রকম দ্বন্দ্ব ও বৈপরীত্যকে। এতগুলো পরিবারের সমন্বয়ে এই পুরো গ্রামকে নৈপুণ্যের সঙ্গে চিত্রিত করা মিলনের জন্য সহজ, কারণ গ্রামের সঙ্গে তাঁর নিবিড় পরিচয়, উপলব্ধি-সঞ্জাত গভীর একাত্মতা এবং যত্নে লালিত মমত্ববোধ। লেখক হিসেবে তিনি শুধু একজন শাণিত দৃষ্টির পর্যবেক্ষক নন, মৃত্তিকা ও জীবনের সঙ্গে তাঁর আজন্ম সংলগ্নতা; যেন তিনি ওই জনপদের ভেতরেই বাস করেন। তাঁর চরিত্রগুলো নিজেদের পরিচয় অনুযায়ী স্বচ্ছন্দে চলাফেরা করে, কথা বলে, বেড়ে ওঠে।

নূরজাহান তার ভাষা, চরিত্র, মনোজগৎ, সমাজ-প্রতিবেশ ও গ্রামজীবনের নিত্য রূপান্তরের বিশদ চিত্রের জন্য এখনই যথাযথ মনোযোগ ও মর্যাদা পাওয়ার উপযুক্ত। পরবর্তীকালে একসময় হয়তো এর প্রতিটি বৈশিষ্ট্য নিয়ে তত্ত্ব-পদ্ধতি ও প্রকরণগত দিক থেকে উন্নতমানের আরো বিস্তারিত আলোচনা ও গভীর গবেষণা হবে। হয়তো মিলনের সমাজ-নিরীক্ষণ, ভাষা অথবা বিস্তারিত আখ্যান থেকে নতুন দৃষ্টিকোণ ও শিল্প-শৈলী অন্বেষণ করবেন ভবিষ্যতের আলোচকরা। এই আলোচনার সূত্রপাত এখনই হওয়া দরকার, যাতে এই অসামান্য উপন্যাসটির শক্তি ও বৈশিষ্ট্যের দিকগুলো চিহ্নিত থাকে এবং প্রধান বার্তাগুলো লিপিবদ্ধ হয়। শেষ পর্যন্ত এই উপন্যাস শুধু সমাজচিত্র নয়, নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি দাঁড়ানো একটি প্রজন্মের নিরুপায় ব্যর্থতার সৃজনশীল ভাষ্য। স্বাধীনতা ও প্রগতির আদর্শ থেকে বিচ্যুতির অবশ্যম্ভাবী পরিণতি সম্পর্কে ব্যাকুল সতর্কবার্তা। ‘নূরজাহান’ মৌলবাদের উত্থান, ধর্মান্ধ নেতৃত্বের প্রাধান্য, প্রহসনমূলক বিচারব্যবস্থা, অপবিধান এবং স্বেচ্ছাচারী আস্ফালনের বিরুদ্ধে সাহিত্যিক প্রতিবাদ_যা শৃঙ্খল, নিপীড়ন ও সাম্প্রদায়িকতা থেকে দেশকে মুক্ত করার আকাঙ্ক্ষা তৈরি করে। (সংক্ষিপ্ত)

কালের কন্ঠ

Leave a Reply