নিম্ন আদালতের রায় হাইকোর্টে টিকল না

মুন্সীগঞ্জের ফাইভ মার্ডার
এম বদি-উজ-জামান: সাড়ে ১০ বছর আগে প্রকাশ্য দিবালোকে পুলিশের উপস্থিতিতে মুন্সীগঞ্জে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ পাঁচজনকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় নিম্ন আদালতের দেওয়া রায় পুরোপুরি টিকল না হাইকোর্টে। নারকীয় ওই হত্যাকাণ্ডের মামলায় নিম্ন আদালত ১৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিলেও হাইকোর্ট পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত অন্য ১০ জনের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে নিম্ন আদালত ৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিলেও হাইকোর্ট দুজনের সাজা বহাল রেখে অন্য সাতজনকে খালাস দিয়েছেন।

বিচারপতি মো. ফজলুর রহমান ও বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন। আদালত দুই দিন ধরে রায় দেন। মামলায় নিম্ন আদালত মোট ৩৭ জন আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেন। এর মধ্যে ১৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড, ৯ জনকে যাবজ্জীবন এবং ১২ জনকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দেন। হাইকোর্ট ৩৭ জনের মধ্যে ১৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন, বাকি ১৮ জনকে খালাস দিয়েছেন।

বহুল আলোচিত এই ফাইভ মার্ডার মামলায় নিম্ন আদালত ২০০৫ সালের ১২ জুলাই এক রায়ে আইয়ুব আলী (সাবেক চেয়ারম্যান) ও তাঁর ছেলে মাহফুজ, মান্নান শাহ, আবদুস সালাম ওরফে কেটু সালাম, কুটি চান্দ, ফারুক গাজী, মোবাইল মান্নান, তিন সহোদর নাজির আলী, নিজাম আলী ও মিজান আলী, সবুজ আলী, রিপন, শফিউল আজম দফাদার, হাসেম ও জাবেদ আলীকে মৃত্যুদণ্ড দেন। হাইকোর্ট এদের মধ্যে আইয়ুব আলী, কুটি চান্দ, ফারুক গাজী, নাজির আলী ও নিজাম আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন। অন্য ১০ জনের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ ছাড়া নিম্ন আদালত আয়েশা খাতুন ও তাঁর ছেলে বাদশা, সালাম শিকদার ও তাঁর ছেলে মাহফুজ, মিন্টু, আবদুর রব রবা, মিঠু, শওকত আলী ও জয়নাল আবেদীন ওরফে জয়নাল মোক্তারকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। হাইকোর্ট এই ৯ জনের মধ্যে জয়নাল মোক্তার ও শওকত আলীর সাজা বহাল রেখে অন্য সাতজনকে খালাস দিয়েছেন।
হাইকোর্টে আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল কে এস নবী, শ ম রেজাউল করিম, মোহাম্মদ আবু হানিফ প্রমুখ। বাদীপক্ষে ছিলেন আমিনুল ইসলাম সানু।
নিম্ন আদালত সামছুদ্দিন বেপারী, হোসেন মেম্বার, টিটন খান, পিয়ার আলী, আলেক, সাইদ চৌধুরী, মরম আলী, নান্নু শিকদার, রফিক শিকদার, জসিম, রতন চক্রবর্তী ও মাসুদ (বাবা শেখ শাহজাহান)_এই ১২ জন আসামিকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছিলেন। হাইকোর্ট তাঁদের মধ্যে পিয়ার আলী ও জসিমের সাজা বহাল রেখে বাকি ১০ জনকে খালাস করে দিয়েছেন।

নিম্ন আদালত এ হত্যাকাণ্ডকে নৃশংস ও বর্বর উল্লেখ করে রায়ে বলেছিলেন, প্রশাসন ও পুলিশ নির্লিপ্ত না থেকে সময়মতো পদক্ষেপ গ্রহণ করলে এই ব্যক্তিরা নির্মমভাবে নিহত হতো না।

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানার বাগড়া এলাকায় ২০০১ সালের ৭ জুলাই প্রকাশ্য দিবালোকে সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত হয়। এর মধ্যে শ্রীনগর থানা বিএনপির সহসভাপতি মনোয়ার আলী, তাঁর ভাই বাদশাসহ চারজনকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে পিটিয়ে, কুপিয়ে ও গুলিতে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহত মনোয়ার আলীর স্ত্রী মেহেরুন নেসা বাদী হয়ে ৬৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পুলিশ ২০০৩ সালের ৩০ নভেম্বর ১০৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়। ২০০৪ সালের ১৬ মে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয় এবং ১৪ জুলাই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। মামলায় ৭৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৩ জনের সাক্ষ্য নেওয়ার পর ২০০৫ সালের ১২ জুলাই রায় ঘোষণা করা হয়। রায়ের বিরুদ্ধে কারাবন্দিরা আপিল করেন। এই আপিলের ওপর দীর্ঘ শুনানি শেষে গত ১৭ ও ১৮ জানুয়ারি দুই দিন ধরে রায় দেন হাইকোর্ট।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply