প্রত্মতত্ত্ব আমাদের অতীতের সাথে ভবিষ্যতকে পরিচয় করে দেয়

মুন্সীগঞ্জে ভারতীয় হাই কমিশনার
মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় ভারপ্রাপ্ত হাই কমিশনার সঞ্জয় ভট্টাচার্য বলেছেন, পুরনো প্রতœতত্ত্ব আমাদের অতীতের সাথে ভবিষ্যতকে পরিচয় করে দেয়। প্রত্মতত্ত্ব ইতিহাস ও ঐতিহ্য একটি জাতির ইতিহাস বহন করে, যা শত শত বছরের ইতিহাসের ধারক। যথাযথভাবে খননের মাধ্যমে এসব ইতিহাস ও ঐতিহ্য খুঁজে বের করা জরুরী। এগুলো খুঁজে বের করা সম্ভব হলেও ইতিহাসের স্বাক্ষীগুলোকে ভবিষ্যতের কাছে নিয়ে আসতে হবে। তিনি শনিবার মুন্সীগঞ্জের রামপাল রঘুনাথপুরে প্রতœতাত্ত্বিক খনন কাজ প্ররিদর্শনকালে একথা বলেন।

ভারতীয় হাইকমিশনার পরে স্বপরিবারে বিআইডব্লিউটিএ’র তিস্তা জাহাজে করে লৌহজংয়ের মাওয়ায় পদ্মা নদীতে আনন্দ ভ্রমন। নদী ভ্রমন শেষ লৌহজংয়ের অগ্রসর বিক্রমপুর পাঠাগার এবং শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল যদুনাথ রায় বাহাদুর জমিদার বাড়িতে ‘বিক্রমপুর যাদুঘর ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র’ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

ভারতীয় হাইকমিশনার পদ্মার নৈশরগিক দৃশ্য অভিভূত হয়ে বলেন, আমাজানসহ বিশ্বের অনেক নদ-নদী দেখার সুভাগ্য আমার হয়েছে। কিন্তুর এ নদী নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাসই করতান না, পদ্মা এখানে এত বিশাল ও মনে রাখারমত সুন্দর। তিনি আরও বলেন, নদীর সাথে বাংলাদের মানুষের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। সেটা নদীর টানে হউক কিংবা গান গাওয়ার তালেই হউক না কেন। বাংলাদেশ আসলেই নদী মার্তৃক বাংলাদেশ।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন সহধর্মীনি রানু ভট্টাচার্য, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব নুরুল আমিন, প্রতœ্তাত্ত্বিক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শফিকুল ইসলাম, অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি নূহ উল আলম লেনিন, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম, লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক এমদাদুল হক প্রমূখ। দিনব্যাপী কর্মসূচী শেষে বিকালে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন।

======================

বিক্রমপুর পরিদর্শনে ভারতীয় হাইকমিশার

মুন্সীগঞ্জ তথা বিক্রমপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য স্বচক্ষে দেখার জন্য সস্ত্রীক সফরে এসেছেন ভারতীয় ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার সঞ্জয় ভট্টাচার্য। আজ শনিবার সকালে তিনি পরিদর্শন করেন সদরের রামপাল ইউনিয়নের রঘুরামপুরে প্রত্নতাত্ত্বিক খনন কাজ। অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে উদ্যোগে এ খনন কাজ চলছে। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী রানু ভট্টাচার্য, প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের মহাপরিচালক শফিকুল ইসলাম, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব নূরুল আমিন, অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি নূহ-উল-আলম লেনিন, তার স্ত্রী কাজী রোকেয়া সুলতানা, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের অধ্যাপক ড. সুফি মোস্তাফিজুর রহমান, অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হাসান, জেলা প্রসাশক আজিুল আলম, প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ-ই-হাসান তুহিন, তথ্য কর্মকর্তা (বেতার) সমির বিশ্বাস, সাংবাদিক কাজী মহম্মদ আশরাফ, হাসান জুয়েল প্রমুখ। পরে তিনি লৌহজং পদ্মায় নৌভ্রমনে। বিকেলে তিনি শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুলের বালাসুর এলাকায় নির্মিতব্য বিক্রমপুর যাদুঘর পরিদর্শন করেন।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply