বিএনপির পার্টি অফিসে তাণ্ডব ও যুবদল সভাপতির ওপর হামলার নেপথ্যে……

মোজাম্মেল হোসেন সজল, মুন্সীগঞ্জ: বিএনপির পার্টি অফিসে দলীয় কর্মীদের হামলা ও তাণ্ডবে জেলা যুবদল সভাপতিসহ ২০ দলীয় নেতাকমী আহত হওয়ার ঘটনা নিয়ে মুন্সীগঞ্জে নিন্দার ঝড় বইছে। দলীয় নেতাকমী ছাড়াও সুশীল সমাজের লোকজন এ ঘটনার জন্য বিএনপির দলীয় নেতা কর্মীদের ধিক্কার জানিয়েছে। খোদ জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই নিজেই এ জন্য ক্ষোভ ও ধিক্কার জানিয়েছেন। তিনি গত শনিবার জেলা বিএনপি অফিসের সামনে এ ন্যাক্কারজনক ঘটনায় এক প্রতিবাদ সভায় বলেছেন, মুন্সীগঞ্জের ইসলামপুর থেকে অন্তত ২৫ বার আক্রমণের শিকার হয়েছে বিএনপির পার্টি অফিস। দক্ষিণ ইসলামপুরের সন্ত্রাসী সুলতান ও বাবুল এ হামলার নেতৃত্ব দিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে যুবদলের দুই কেন্দ্রীয় নেতা পদ বঞ্চিতদের উস্কে দিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জেলা বিএনপির একাধিক নেতা জানান। ওই দুই নেতার বাড়ি মুন্সীগঞ্জ জেলায়। এরা হলেন যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম আজাদ ও যুগ্ন-সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী। এছাড়া কেন্দ্র ও জেলার শীর্ষ নেতাদের জানান দিতেই এ হামলা করা হয়েছে বলে দলীয় নেতাদের অভিমত।

১৯৯৫ সালে জেলা যুবদলের সম্মেলন হয়।এরপর আর সম্মেলন দেয়া হয়নি। গজারিয়া উপজেলার বাসিন্দা মুজিবুর রহমান ১৬ বছর ধরে জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদকের পদ আকড়ে ধরে রাখেন। ২৩ বছর ধরে জেলা যুবদলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন শ্রীনগর উপজেলার বাসিন্দা মোয়াজ্জেম হোসেন খান।। দীর্ঘ বছর ধরে সম্মেলন না হওয়ায় জেলা যুবদলের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। সম্মেলন না দিয়ে সভাপতি হওয়ার জন্য মুজিবুর ও তার কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান আহমেদ কেন্দ্রে দৌঁড়ঝাপ শুরু করে।কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় গজারিয়ার যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আ.ক.ম মোজাম্মেল হক। তাদের পক্ষে ছিলেন যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম আজাদ ও যুগ্ন-সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী। এরই মধ্যে ২০১০ সালের ৭ নভেম্বর যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম নিরবের কাছে শহরের দক্ষিণ ইসলামপুর গ্রামের মো: বাবুল মিয়া আহবায়ক হয়ে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি জমা দেয়।দীর্ঘ ৮ মাসেও এই কমিটি আলোর মুখ না দেখলে ওই কমিটির অন্তত ২৩ সদস্য নাম প্রত্যাহারের জন্য যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে লিখিত আবেদন করে।ভেস্তে যায় বাবুলের কমিটি। যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ হয়।


মুন্সীগঞ্জের বাসিন্দা যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির তিন আবদুস সালাম আজাদ মীর নেওয়াজ আলী ও আ.ক.ম মোজাম্মেল হকও গ্র“পে জড়িয়ে পড়ে।ঢাকা থেকে পকেট কমিটি করার জন্য মুজিবুর, সুলতান আহমেদ ও বাবুল তিন জনই সভাপতি প্রার্থী হয়ে কমিটি গঠনে ব্যর্থ হলে গত ১৫দিন আগে এ পদের প্রার্থী হন মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজ ছাএ সংসদের ৩বার নির্বাচিত ভিপি ও মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ২বার কাউন্সিলর তারিক কাশেম খান মুকুল। সুলতান আহমেদ ও বাবুল গজারিয়ার মুজিবুর রহমানকে ঠেকাতে মুকুলকে প্রার্থী হতে উৎসাহ যোগায়। শহরের দক্ষিণ ইসলামপুর বাবুল মিয়া ও সুলতান আহমদের মধ্যে পারিবারিক বিরোধ চলে আসছে দীর্ঘ বছর ধরে। এই দুই পরিবারের মধ্যে শহরে বিএনপির পার্টি অফিসসহ এলাকায় কয়েক দফা হামলা ও মামলা-মোকদ্দমা চলছে।কিন্তু গত ১ ফেব্র“য়ারি কেন্দ্রীয় ভাবে তারিক কাশেম খান মুকুলকে সভাপতি ও ইকবাল হোসেন সম্রাটকে সাধারণ সম্পাদক করে মুন্সীগঞ্জ জেলা যুবদলের কমিটি ঘোষণা করা হলে তারা এক হয়ে ২ ফেব্র“য়ারি ঢাকার কাকরাইলে বসে তারা রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসে ঐক্যবদ্ধ হন। এ সময় তারা এ হামলার পরিকল্পনা করে। নবগঠিত কমিটিতে সুলতান আহমেদ ও বাবুল মিয়াকে সহ-সভাপতি পদে রাখা হয়।

এরপর পরের দিন ৩ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টার দিকে শহরের থানারপুল এলাকায় জেলা বিএনপির পার্টি অফিসে সুলতান আহমেদ-বাবুলের নেতৃত্বে অর্ধ-শতাধিক মাদক বিক্রেতা,মাদকসেবী ও ভাড়াটে সন্ত্রাসী লাঠিসোটা-হকিষ্টিক-রড হাতে পার্টি অফিস ও জেলা যুবদলের সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকলের উপর হামলা চালায়। এ সময় দলীয় ২০ নেতাকর্মী আহত হয়।তারা পার্টি অফিসের চেয়ার-টেবিল ও নীচে দলীয় কর্মীদের ১৫টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে।গুরুতর জখম অবস্থায় জেলা যুবদলের সভাপতি মুকুল (৪৫), মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ আলম (৩০), শ্রীনগর সরকারি কলেজের সাবেক এজিএস নুরুল ইসলাম শাহীনকে (৩৮) প্রথমে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মিডফোর্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় দৈনিক আজকালের খবর ও বাংলা ২৪ বিডি নিউজের সাংবাদিক মোজাম্মেল হোসেন সজলসহ বেশ কয়েকজন দলীয় নেতাকর্মী দীর্ঘ এক ঘন্টা পার্টি অফিসের ভিআইপি কক্ষে অবরুদ্ধ থাকেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তালা ভেঙ্গে তাদের উদ্ধার করেন। ওইদিন জেলা যুবদলের সদ্য ঘোষিত কমিটির নেতৃবৃন্দ সকাল ১০ টার দিকে জেলা বিএনপির পার্টি অফিসে সমবেত হন। এ সময় জেলার শ্রীনগর, মীরকাদিম পৌর এলাকাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে শতাধিক নেতাকর্মী দলীয় অফিসে আসেন। কমিটির সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুলের নেতৃত্বে স্থানীয় সাবেক এমপি, জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাই এবং সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করার উদ্দেশ্যে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। পার্টি অফিসে যুবদল নেতাদের সঙ্গে জেলা বিএনপির যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক আতোয়ার হোসেন বাবুল, জেলা শ্রমিক দলের সদস্য সচিব আব্দুল আজিম স্বপনও এ সময় সেখানে ছিলেন। দলীয় অফিসে বসে ঘরোয়া আলাপচারিতা চলাকালে বেলা ১১ টার দিকে শহরের দক্ষিন প্রান্ত থেকে অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসী লাঠিসোটা-হকিষ্টিক-রড হাতে পার্টি অফিসে আকস্মিক হামলা চালায়। এ সময় পার্টি অফিসের ভেতর চেয়ার-টেবিল, টেলিভিশন ও আসবাপত্র ভাংচুর করা হয়। পরে যুবদলের সদ্য সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুলকে বেধড়ক পেটাতে পেটাতে দ্বি-তল ভবন থেকে নীচে নিয়ে আসলে সড়কের উপর ফেলে পিটিয়ে আক্রোশ মেটায় দলীয় কর্মীরা। এ সময় সুলতান আহমেদ আঙুল দিয়ে মুকুলের দু’ চোঁখ নষ্ট করার চেষ্ঠা চালায়। এ ঘটনায় ওইদিন সন্ধ্যায় পার্টি অফিসে এক জরুরী সভায় মিলিত হয় জেলা যুবদল। সভায় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার দায়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা যুবদলের নবগঠিত কমিটির সহ-সভাপতি সুলতান আহমেদ ও বাবুল মিয়াকে বহিস্কার করা হয়। পরে জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সম্রাট এ বহিস্কার করার কথা নিশ্চিত করেছেন প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply