বিএনপি অফিস ভাঙচুরের ঘটনায় যুবদলের পাল্টাপাল্টি মামলা

মুন্সীগঞ্জে বিএনপি অফিস ভাঙচুর এবং যুবদলের ২ গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। নবগঠিত জেলা যুবদলের সভাপতি তারেক কাশেম খান মুকুল বাদী হয়ে বুধবার রাতে বিএনপি ও যুবদলের ৭ নেতাকর্মীকে আসামি করে মামলা করেছেন। এর সোয়া ৩ ঘণ্টা পরেই জেলা যুবদলের নবগঠিত কমিটির সহসভাপতি মো. সুলতান মিয়া বাদী হয়ে দায়ের করা পাল্টা মামলায় প্রধান আসামি করেছেন তারেক কাশেম খান মুকুলকে।

দুটি মামলায় ৩ ফেব্রুয়ারি ঘটনাস্থল মুন্সীগঞ্জ শহরের সুপার মার্কেটের বিএনপি অফিস উল্লেখ করলেও সময় উল্লেখ করা হয়েছে ভিন্ন। প্রথম মামলায় সময় উল্লেখ করা হয়েছে দুপুর দেড়টা। ২য় মামলায় সময় উল্লেখ করা হয়েছে সকাল ১১টা।

এবিষয়ে সদর থানার ওসি আবুল বাসার বাংলানিউজকে জানান, মামলা দুটি দায়ের হওয়ার পর পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। তবে এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি।

তিনি জানান, তারেক কাশেম খান মুকলের দায়ের করা মামলায় ২য় প্রধান আসামি করা হয়েছে শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদুল্লাহ ওরফে শহিদ কমিশনারকে।

প্রধান আসামি করা হয়েছে তার বড়ভাই বিএনপি নেতা মো. খোরশেদ আলমকে। তাদের অপর ভাই ওয়ার্ড বিএনপি নেতা বজলুর রহমানকে করা হয়েছে ৩য় প্রধান আসামি। জেলা যুবদলের সভাপতি সুলতান মিয়াকে করা হয়েছে ৪র্থ আসামি।

এছাড়া ছাত্রদল নেতা ভিপি শাহরিয়ারসহ এ মামলায় মোট ৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

অন্যদিকে, সুলতান মিয়ার দায়ের করা মামলায় তারেক কাশেম খান মুকুল ছাড়াও ৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

এমামলায় অপর আসামিরা হচ্ছেন- সদর উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহামনের ছোট ভাই যুবদল নেতা মিজানুর রহামন, জেলা বিএনপির বিশেষ সম্পাদক সাইদুর রহমান, তার ভাই শহর বিএনপির ২নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন ও তাদের অপর ভাই বিএনপি কর্মী আবদুর রশীদ।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার শহরের সুপার মার্কেট চত্বরে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে নবগঠিত জেলা যুবদলের সভাচলাকালে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে বিএনপি কার্যালয়ে ব্যাপক ভাঙচুর হয় এবং এতে কয়েক নেতাকর্মী আহত হয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply