পদ্মা সেতু বাঁক নিচ্ছে মালয়েশিয়ার দিকেই!

বিশ্বব্যাংকের ব্যাপারে অবস্থান ও কৌশল চূড়ান্ত করতে যাচ্ছে সরকার
পার্থ সারথি দাস: পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে চীন বা অন্য কোনো দেশ নয়, মালয়েশিয়ার সঙ্গেই সমঝোতা স্মারক চূড়ান্ত করার পথে হাঁটছে সরকার। একই সঙ্গে এ প্রকল্পে উন্নয়ন সহযোগীদের সমন্বয়ক বিশ্বব্যাংকের ব্যাপারে সরকারের অবস্থান ও কৌশল শিগগিরই স্পষ্ট করে ফেলা হবে বলে জানিয়েছে একাধিক সূত্র। সেই লক্ষ্যে সরকারের ভেতরে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে জোর তৎপরতা। এসব বিষয় নিয়ে আগামী রবিবার একটি আন্তমন্ত্রণালয় সভার আয়োজন করা হয়েছে।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের উত্থাপিত দুর্নীতির অনুসন্ধানকাজ ঝুলে আছে কানাডীয় পুলিশের ধীর তদন্তে। এ তদন্ত শেষ না হলে বিশ্বব্যাংক থেকে কোনো সাড়া মিলবে কি না কিংবা এ তদন্ত শেষ হওয়ার আগেই বিশ্বব্যাংকের ঋণচুক্তি বাতিল করা এই মুহূর্তে সম্ভব কি না, তা নিয়ে নীতিনির্ধারকদের মধ্যে নানা মতের সৃষ্টি হয়েছে।
এ ছাড়া একটি অভিযোগের অনুসন্ধান শেষে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) থেকে এ বিষয়ে চিঠি পাঠানো হলেও গত দুই সপ্তাহে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে কোনো উত্তর মেলেনি।
প্রকল্পের ইন্টিগ্রিটি অ্যাডভাইজার ও প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান নিজের পদকে ‘সদ্গুরু’র পদ উল্লেখ করে কালের কণ্ঠকে বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে বিভিন্ন প্রস্তাব এবং বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তির বিষয়ে সরকার চাইলে যেকোনো সিদ্ধান্তই নিতে পারে।

জানতে চাইলে সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক ও অন্য আরো তিনটি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সঙ্গে সরকারের অবস্থান দ্রুতই পরিষ্কার হয়ে যাবে। কয়েক দিন ধরে অর্থমন্ত্রী ও যোগাযোগমন্ত্রীও এ ব্যাপারে বক্তব্য দিচ্ছেন। আসলে আমরা এ প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়ন করতে চাইছি।’

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ইকবাল মাহমুদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিশ্বব্যাংকের ঋণচুক্তি বাতিলসংক্রান্ত বিষয়ে কিছুই আমরা জানি না। বিশ্বব্যাংক থেকেও কিছু বলা হয়নি।’
চূড়ান্ত হচ্ছে মালয়েশিয়ার সঙ্গে সমঝোতা স্মারক : সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, দক্ষিণ কোরিয়া ও চীনসহ আরো কয়েকটি দেশ ও সংস্থা পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তাদের পক্ষ থেকে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে নিয়মিত যোগাযোগ করা হচ্ছে। এর মধ্যে মালয়েশিয়া সরকারের প্রস্তাবটিই একমাত্র আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব। মালয়েশিয়ার আগ্রহই সবচেয়ে বেশি। মালয়েশিয়া সমঝোতা স্মারকের বিষয়টি গত বুধবার সে দেশের মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন হয়েছে। মালয়েশিয়ার পাঠানো খসড়া সমঝোতা স্মারক এর আগের দিন সেতু ভবনে পেঁৗছে। এর পর থেকে দেশের স্বার্থ অগ্রাধিকার দিয়ে স্মারকটি যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মালয়েশিয়ার পাঠানো খসড়া সমঝোতা স্মারকের বিভিন্ন দিক আমরা খতিয়ে দেখছি। দেশের স্বার্থ অক্ষুণ্ন রেখেই আমরা এ খসড়া চূড়ান্ত করব। আগামী রবিবার সেতু বিভাগে অনুষ্ঠেয় বৈঠকে এ বিষয়ে মতামত নেওয়া হবে। বৈঠকে যোগাযোগ, রেলপথ, আইন, অর্থ, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। এ খসড়ার ব্যাপারে সব প্রতিনিধির মতামত নেওয়া হবে। বৈঠকে অন্যান্য দেশের আগ্রহের বিষয়টিও বিবেচনায় থাকবে।’

স্পষ্ট হবে সরকারের অবস্থান : পদ্মা সেতু প্রকল্পের ইন্টিগ্রিটি অ্যাডভাইজার প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান প্রকল্পকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশের অবস্থান সম্পর্কে কালের কণ্ঠকে বলেন, বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তি ছয় মাস বাড়ানো হয়েছে। এ অবস্থায় বিভিন্ন দেশের ও সংস্থার প্রস্তাব আসছে। বিভিন্ন ধরনের চিন্তাভাবনা ও আলোচনা চলছে। কিন্তু এখনো চূড়ান্ত কিছু হয়নি। বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি বাতিল হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তা করতে গেলে তেমন কোনো ধরনের কাগজপত্র তৈরি করতে হয় না, সময়ও লাগে না। বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে তা হঠাৎ বাতিল করা হবে_এমন সিদ্ধান্তের কথা আমি জানি না। প্রকল্পে স্বচ্ছতার বিষয়টি তদারকি করতে আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। আমার জানা মতে, প্রকল্পে দুর্নীতি ও অনিয়মের কোনো প্রমাণ মেলেনি। দুদকের তদন্তে দুর্নীতির প্রমাণ না পাওয়ার বিষয়টি সরাসরি বিশ্বব্যাংককে জানানোর কথা।’

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আরাস্ত খান (বিশ্বব্যাংক ও এফএবিএ) কালের কণ্ঠকে বলেন, বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তি বাতিল হবে কি না, এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, ‘বিশ্বব্যাংকসহ চারটি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সঙ্গে ঋণচুক্তি বাতিল হবে কি না, এ বিষয়ে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে একাধিক বৈঠক করে আমরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে নতুন কোনো প্রস্তাব সামনে রেখে এগোতে গেলে এই ঋণচুক্তি বাতিল, না বহাল রাখা যাবে, এ নিয়ে সর্বসম্মত মতামত নেওয়া দরকার। আইনি জটিলতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে মতামত নেওয়া হবে। বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে সরকারের অবস্থান কী হবে, এ নিয়েও বিশেষজ্ঞদের মতামত প্রয়োজন হবে। পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে কৌশল ঠিক করতে আমরা রবিবার আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকের আয়োজন করেছি।’

সেতু বিভাগের পরিচালক (কর্মসূচি ও তদারকি) সানোয়ার আলী কালের কণ্ঠকে বলেন, আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকে যুগ্ম সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন। বিভিন্ন দেশের প্রস্তাব ও মালয়েশিয়ার সমঝোতা স্মারকের বিষয়ে সবার মতামত নেওয়া হবে।

কানাডীয় তদন্তের অপেক্ষায় দুদক : বিশ্বব্যাংক গত সেপ্টেম্বর মাসে পদ্মা সেতু প্রকল্পে পরামর্শক নিয়োগ ও দরপত্রের প্রাক-যোগ্যতা বাছাইয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে অর্থায়ন স্থগিত করে। এর মধ্যে দরপত্রে প্রাক-যোগ্যতা যাচাইয়ের ক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগটির অনুসন্ধান শেষ করেছে দুদক। কিন্তু পদ্মা সেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগটির অনুসন্ধান শেষ হয়নি। এ অভিযোগের বিষয়ে বাংলাদেশ অংশের অনুসন্ধান শেষ হয়েছে। কানাডা পুলিশও বিষয়টির তদন্ত করছে। কানাডা পুলিশের তদন্ত শেষ হওয়ার সঙ্গে দুদকের এ অনুসন্ধান শেষ হওয়ার কথা। কবে নাগাদ এ তদন্ত শেষ হবে তাও অনিশ্চিত। অ্যাটর্নি জেনারেলের মাধ্যমে ওই তদন্তের রিপোর্ট সংগ্রহের জন্য কানাডীয় পুলিশের কাছে চিঠি দিয়েছিল দুদক।

তবে পদ্মা সেতু প্রকল্পে প্রাক-যোগ্যতা যাচাইয়ের দরপত্রে দুর্নীতি হয়নি_এমন তথ্য বিশ্বব্যাংককে জানিয়েছে দুদক। দুদক সূত্রে জানা গেছে, দুই সপ্তাহ হয়ে গেলেও বিশ্বব্যাংক থেকে এ ব্যাপারে কোনো প্রতিক্রিয়া মেলেনি। দুদকের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা যেদিন সংবাদ সম্মেলন করেছি, সেদিনই বিশ্বব্যাংকের কাছে চিঠি পাঠিয়েছি। তবে অন্য অনুসন্ধানটির কাজ শেষ হওয়া নির্ভর করছে কানাডিয়ান তদন্তকাজের ওপর।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply