পদ্মা সেতুর কাঠামো হবে স্টিলের

রাশেদ মেহেদী
পদ্মা সেতুর মূল কাঠামো হবে স্টিলের। প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম সমকালকে বলেন, বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে এ সেতুর মূল কাঠামো হিসেবে ‘স্টিল ট্রাস গার্ডার’ চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ পদ্ধতিতে সেতু নির্মাণ করলে কম সময়ে অধিক টেকসই সেতু নির্মাণ করা সম্ভব হবে বলেও তিনি জানান। বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, একই সঙ্গে সড়ক ও রেলপথ সংযোজন করার বিষয়টি বিবেচনায় ‘স্টিল ট্রাস গার্ডার’ পদ্ধতিই হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য কাঠামো। এ পদ্ধতিতে নির্মিত পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজের স্থায়িত্ব এবং ব্যবহার উপযোগিতার উদাহরণ থেকেই এ পদ্ধতি বেছে নেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, স্টিল ট্রাস কাঠামোতে কংক্রিট কাঠামোর চেয়ে সময় কম লাগলেও ব্যয় কিছুটা বেশি হবে। মালয়েশিয়ার ক্যাবিনেটে অনুমোদিত এমওইউর সারসংক্ষেপ এবং বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাবেও এ সেতুর কাঠামো হিসেবে স্টিলের কাঠামোর কথা বলা হয়েছে। মালয়েশিয়ার প্রস্তাবে ‘স্টিল ট্রাস গার্ডার’ এবং বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাবে ‘টু লেভেল স্টিল ট্রাস ব্রিজ উইথ এ কংক্রিট টপ ডেক স্লাব’-এর কথা বলা হয়েছে। অবশ্য দেশের প্রথম বহুমুখী এবং সবচেয়ে দীর্ঘ বঙ্গবন্ধু সেতু কংক্রিট গার্ডারে নির্মাণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সংশ্লিষ্ট একজন প্রকৌশলী সমকালকে বলেন, স্টিল ট্রাস সেতুর নির্মাণ ব্যয় কিছুটা বেশি। তবে কংক্রিটের সেতুর চেয়ে স্টিল ট্রাস সেতু নির্মাণে সময় অনেক কম লাগে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণের প্রথম পর্যায়ে এর সঙ্গে রেলপথ অন্তর্ভুক্ত ছিল না। নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরুর পর এর সঙ্গে রেলপথ সংযোজনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এ কারণে সড়কের সমতলেই রেলপথ সংযোজন করা হয়। এর ফলে এই সেতুর নির্মাণকালীন বেশ কিছু ত্রুটি থেকে যায়। বঙ্গবন্ধু সেতুতে যে ফাটল তার অন্যতম উৎস এই নির্মাণকালীন ত্রুটি। এ কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণের ক্ষেত্রে শুরু থেকেই কংক্রিটের অবকাঠামোর বিকল্প অনুসন্ধান করা হয়েছে।

যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, পদ্মা সেতুর নির্মাণ প্রক্রিয়ার শুরুতে ২০১০ সালে কংক্রিট এবং স্টিলের মূল কাঠামো রেখে দুটি নকশা উপস্থাপন করা হয়। পরে বিশেষজ্ঞরা বিশ্লেষণ করে দেখেন, কংক্রিটের সেতু নির্মাণে যেখানে প্রায় পাঁচ বছর লেগে যাওয়ার কথা, সেখানে স্টিলের কাঠামো তৈরিতে সময় লাগবে প্রায় সাড়ে তিন বছর। কংক্রিট কাঠামোতে সড়ক ও রেলপথ একই সঙ্গে সংযোজনের জন্য সেতু নির্মাণে বেশ কিছু জটিলতা এবং নির্মাণজনিত ত্রুটি স্বীকার করে নিতে হবে। স্টিলের কাঠামো টু-লেভেল সেতু করলে সে ধরনের কোনো ত্রুটি কিংবা জটিলতা থাকবে না। তবে বর্তমান বাজার অনুযায়ী স্টিলের কাঠামোর জন্য ব্যয় বেশি পড়বে। এ কারণে স্টিল ট্রাস গার্ডার পদ্ধতিটি চূড়ান্ত হওয়ার পর ২০০৭ সালের ২০ আগস্ট পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা ৭৫ লাখ টাকা অনুমোদন করে একনেক। পরে ২০১১ সালের ১১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত একনেকে এ সেতুর ব্যয় বাড়িয়ে ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ টাকা সংশোধিত ব্যয় অনুমোদন করা হয়। সূত্র জানায়, ব্যয় বৃদ্ধির কারণ শুধু স্টিলের কাঠামো নয়, কয়েক বছরের ব্যবধানে সার্বিকভাবে নির্মাণ সামগ্রীর ব্যয় বৃদ্ধি এবং ডলারের বিপরীতে টাকার মান পড়ে যাওয়ার বিষয়টিও রয়েছে। স্টিল ট্রাস সেতুতে মরিচা প্রতিরোধের জন্য নির্দিষ্ট সময় পর পর (এক, দুই বা তিন বছর পর) রঙ করার প্রয়োজন হবে।

এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী সমকালকে বলেন, যে কয়েকটি পদ্ধতিতে সড়ক ও রেলপথ একত্রে রেখে সেতু নির্মাণ করা হয়, তার সব ক’টি বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে স্টিল ট্রাস পদ্ধতি সর্বোত্তম। এ পদ্ধতিতে মূল কাঠামো হবে স্টিলের, তবে উপরিভাগের যে অংশের ওপর দিয়ে গাড়ি চলবে তা হবে কংক্রিটের। সেতুর দুটি স্তর থাকবে। ওপরের স্তর দিয়ে গাড়ি চলবে, আর নিচের স্তর দিয়ে চলবে ট্রেন। তিনি বলেন, এ সেতু নির্মাণের ব্যয় কংক্রিট কাঠামোর সেতু নির্মাণ ব্যয়ের প্রায় সমান। তবে কংক্রিটের সেতুর চেয়ে কম সময়ে নির্মাণ করা সম্ভব। স্টিল ট্রাস পদ্ধতির সেতু অনেক বেশি টেকসই হওয়ার বিষয়টিও প্রমাণিত। পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ এই পদ্ধতির সেতুর একটি বড় উদাহরণ। এ সেতুর ১০০ বছর পূর্তি হতে যাচ্ছে কিছুদিনের মধ্যেই। তিনি বলেন, স্টিল ট্রাস পদ্ধতিতে সেতু নির্মাণের কমপক্ষে ২৫ বছর কোনো ধরনের মেরামতের প্রয়োজন হবে না। প্রতি দশ বছর পর রঙ করার প্রয়োজন হতে পারে। ফলে নির্মাণ পরবর্তী সময়ে রক্ষণাবেক্ষণেও অতিরিক্ত ব্যয়ের সম্ভাবনা নেই।

এ ব্যাপারে পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম সমকালকে বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য বিশেষজ্ঞদের মতামত অনুযায়ী স্টিল ট্রাস গার্ডার পদ্ধতিই চূড়ান্ত করা হয়েছে। বিশ্বব্যাংক কিংবা মালয়েশিয়া অথবা অন্য কোনো দাতা সংস্থা_ অর্থায়ন যেখান থেকেই হোক, পদ্মা সেতুর মূল কাঠামো হবে স্টিলের।

সমকাল

Leave a Reply