‘পদ্মা সেতু নির্মাণে শিগগির মালয়শিয়ার চুক্তি’

পদ্মা সেতু নির্মাণ বিষয়ে শিগগিরই মালয়শিয়ার সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হবে বলে জানিয়েছেন সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। কবে নাগাদ মালয়শিয়ার সঙ্গে সমঝোতা স্বাক্ষর হচ্ছে সে বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি; যদিও দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইতিমধ্যে বলেছে, আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি এ স্মারক সই হবে।

এ সমঝোতা স্মারকের ক্ষেত্রে মালয়শিয়া অনেকগুলো শর্ত দিয়েছে উল্লেখ করে সেতু সচিব বলেন, “প্রস্তাবগুলো বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সম্পর্কিত। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে এ বিষয়ে বৈঠক করা হয়েছে।”

বিশ্ব ব্যাংক, না মালয়শিয়া- পদ্মা সেতু কার সহযোগিতায় হবে এ বিষয়ে এক মাসের মধ্যে সিদ্ধান্ত হবে বলে যোগাযোগমন্ত্রীর বক্তব্য দেওয়ার চার দিনের মাথায় (রোববার) ‘শিগগির সমঝোতা স্মারক সইয়ের’ কথা বলেন সেতু সচিব আনোয়ারুল ইসলাম।

মালয়শিয়ার শর্ত বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “অনেকগুলো শর্ত দিয়েছে তবে তা এখন বলা যাচ্ছে না।”

“সমঝোতায় শর্তের বিষয়গুলো থাকবে না, তবে মূল চুক্তিতে এ শর্তগুলো রাখা হবে।”

এ সেতু নির্মাণে মালয়শিয়া ছাড়া কোনো দেশ আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেয়নি বলেও জানান তিনি।

রোববার সেতু ভবনে পদ্মা সেতু নির্মাণে মালয়শিয়ার প্রস্তাব বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন সচিব।

পদ্মা সেতু বিষয়ে বিশ্ব ব্যাংকসহ অন্যান্য দাতা সংস্থার চুক্তি বাতিল বিষয়ে সচিব আনোয়ারুল করিম বলেন, “গত বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত একটি চিঠি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সিদ্ধান্ত অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ বা সেতু ভবনে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।”

২৯০ কোটি ডলারের ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংক ১২০ কোটি ডলার দিতে সরকারের সঙ্গে চুক্তি করলেও পরে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে অর্থায়ন স্থগিত করে। এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৪ কোটি ডলার ঋণ দেওয়ার চুক্তি করলেও তারাও অর্থ ছাড় করেনি।

বিশ্ব ব্যাংকের অভিযোগ তদন্ত করে দুর্নীতি দমন কমিশন বলেছে, অভিযোগের কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি।

বিশ্ব ব্যাংকের অভিযোগের পর যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে অন্য মন্ত্রণালয়ে সরিয়ে দেওয়া হয়।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply