আজ কবি ইমরুল চৌধুরীর ৭১তম জন্মবার্ষিকী

কবি ইমরুল চৌধুরীর জন্ম ১৯৪০ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার গজারিয়া গ্রামে। তাঁর পিতার নাম মরহুম আবদুল লতিফ চৌধুরী। মাতা মরহুমা খোদেজা বানু। ১১ ভাই ও ৩ বোনের ভিতর তাঁর অবস্থান দশম সন্তান হিসাবে। পিতা মরহুম আবদুল লতিফ চৌধুরী ছিলেন ডাক বিভাগের পোস্ট মাস্টার। পোস্ট মাস্টার হিসাবে তাঁর পিতার বেশীর ভাগ চাকুরিজীবন কেটেছে বিক্রমপুরের বিভিন্ন অঞ্চলে। সে কারণে ইমরুল চৌধুরীর শৈশব কেটেছে বৈদ্যের বাজার, বজ্রযোগিনী, আব্দুল্লাহপুর, মীরকাদিম, সিরাজদিখান ও মুন্সীগঞ্জে। কৈশোর কেটেছে নারায়ণগঞ্জ ও শেষ অবধি গেন্ডারিয়া ঢাকায়। ঢাকার গভঃ মুসলিম হাইস্কুল থেকে ১৯৫৮ সালে ম্যাট্রিক, জগন্নাথ কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরবর্তী পর্যায়ে দর্শন শাস্ত্রে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন।

পিতৃ প্রদত্ত নাম মেসবাহ উদ্দীন চৌধুরী। লেখালেখির কারণে তিনি ইমরুবল ইসলাম চৌধুরী ছদ্মনাম ধারণ করেন। পরবর্তী পর্যায়ে সংক্ষিপ্ত আকারে ইমরুল চৌধুরী হিসাবে পরিচিত হন।

লেখার প্রতি আগ্রহ প্রায় শৈশব থেকেই। তার প্রথম ছড়া প্রকাশিত হয় আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী সম্পাদিত মিল্লাত পত্রিকার কিশোর দুনিয়ায়। তারপর থেকে তার ছড়া, রূপকথা এবং ছোটদের গল্প বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ১৯৬০ এর দিকে দৈনিক সংবাদের ছোটদের বিভাগ খেলাঘর এর সঙ্গে তিনি ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। ১৯৬০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অবস্থায় সাহিত্য আন্দোলন Ô¯^v¶iÕ এর সঙ্গে সংযুক্ত ছিলেন। ¯^v¶i পত্রিকার সম্পাদকও ছিলেন তিনি। ষাটের দশকে যে কজন কবি ও সাহিত্যিক আজ সাহিত্য অঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত তাদের সকলের আগে ইমরুল চৌধুরী লেখক হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন তার বিখ্যাত ছোটদের গল্পগ্রন্থ ‘ভূতের সাথে ষাট সেকেন্ড এর মাধ্যমে। ১৯৬৩ সালে বইটি প্রকাশ করেছিল লিঙ্কম্যান প্রকাশনী সংস্থা। তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ অন্ধকার ব্যতিরেকে প্রকাশিত হয় ১৯৬৯ সালে। তখন তিনি করাচীতে রেডিও পাকিস্তানে সংবাদ পাঠক হিসাবে কর্মরত।

শৈশব ও কৈশোর থেকেই তিনি লেখালেখি ও সঙ্গীত শিক্ষার ওপর অনুরক্ত ছিলেন। এক সময় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত, সেতার ও ভায়োলিনে সঙ্গীত শিক্ষালাভ করেন। কিন্তু লেখালেখি ছিল তার প্রধান বিষয়। লেখক হবার জন্য তিনি একসময় ১৯৫৮ সালে কলকাতা পালিয়ে গিয়েছিলেন। তখন থেকেই তিনি সুনির্মল বসু, নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়, শিবরাম চক্রবর্তী ও সুকুমার রায়ের ভক্ত ছিলেন। কলেজ জীবনে এসে তার মার্ক্সীয় দর্শন ও সাহিত্যের প্রতি আগ্রহ ঘটে। সুকান্ত ভট্টাচার্য, সুভাষ মুখোপাধ্যায়, নাজিম হিকমত ও মায়াকোভস্কির সাহিত্যের ওপর আসক্তি ঘটে।

তারুণ্যে এসে তিনি তার কন্ঠের কারণে ১৯৬০ সালে রেডিও পাকিস্তান, ঢাকায় ঘোষক হিসাবে যোগদান করেন। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার অব্যবহিত পরে তিনি রেডিও পাকিস্তান করাচি থেকে সংবাদ পাঠক হিসাবে যোগদানের ডাক পান ১৯৬৫ সালে। সেই থেকে পূর্ণাঙ্গ ব্রডকাস্টার হিসাবে জীবন শুরু হয়। করাচি অবস্থানকালে সংবাদ পাঠ ছাড়াও বিজ্ঞাপন সংস্থা জে, ওয়াল্টার থমসনে কপিরাইটার হিসাবে যোগদান করেন। সংবাদ পাঠ ও বিজ্ঞাপন দুটোকেই তার পেশা বলা যায়। করাচি অবস্থানকালে ১৯৬৯ সালে তিনি বৈবাহিক সূত্রে আবদ্ধ হন। তার স্ত্রী জাহিদা ইমরুল। তার প্রথম সন্তানের জন্ম হয় ১৯৭১ সালে করাচিতে। বর্তমানে তিনি তিন পুত্র সন্তানের জনক। বাংলাদেশের ¯^vaxbZvi পর তিনি ১৯৭৩ সালে করাচি থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন এবং যথারীতি বাংলাদেশ বেতারে সংবাদ পাঠ ও বিজ্ঞাপন সংস্থা কারুকৃৎ এ নিয়োজিত থাকেন। ১৯৯১ সালে তিনি রেডিও বাংলাদেশ থেকে নিয়মিত সংবাদ পাঠক হিসাবে ইস্তফা প্রদান করেন। যদিও ২০০০ ও ২০০১ সালে তিনি অনিয়মিতভাবে কিছুদিন সংবাদ পাঠে নিয়োজিত ছিলেন। বর্তমানে তিনি একটি বিজ্ঞাপন সংস্থা এ্যাডকিং লিমিটেড এর কর্ণধার।

সংবাদ পাঠ থেকে সরে এসেছেন বটে, তবে আবার ফিরে গিয়েছেন লেখালেখির জগতে। তার সামপ্রতিক প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের এক আলোচনায় কবি আল মাহমুদ লিখেছেন, ইমরুল চৌধুরীর খ্যাতি ও প্রতিপত্তি সৃষ্টি হয় সংবাদ পাঠক হিসাবে। ইমরুবল চৌধুরী খবর পড়ছি। আমার জানা মতে তার আগ থেকেই তিনি কবিতা নিয়ে ফুসুর-ফাসুর শুরু করেছিলেন।

নিজের ভেতর এক প্রবল তাগিদেই তিনি আবার লেখার জগতে ফিরে আসেন। ২০০২ সালে তিনি প্রথমদিকে কিশোরদের জন্য হাসির গল্প এবং পরবর্তী পর্যায়ে কাব্যভুবনে আভির্ভূত হন।

ইতোমধ্যে তার কিশোর গল্প ইমুসমগ্র ও ইমুসমগ্র-২ প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া প্রকাশিত হয়েছে ইমু মিঞার কড়চা। এছাড়া তাঁর আরও তিনটি ছড়া গ্রন্থ ইমু মিঞার কড়চা-২, পরীর দেশে রাখাল রাজা ও সিংহ কেন বনের রাজা প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে।

তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের সংখ্যা মোট নয়টি। কাব্যগ্রন্থগুলো হচ্ছে অন্ধকার ব্যতিরেকে, শোণিতে হৃৎ কলম, নক্ষত্রের বস্তি উচ্ছেদ, না ঘুঙুর না খঞ্জনি, পাতালে আর্তনাদ, সব অন্ধকার আমার ঘরে, লাবণির জন্য বৃষ্টির কবিতা বৃষ্টির মৌন সংলাপ ও শবের পাশে কেউ নেই।

২০১০ সালে সোনারং প্রকাশ করেছে তাঁর সম্পাদিত গ্রন্থ পূর্ণিমার মধ্য বয়সে বিউটি বোর্ডিং।

তিনি ত্রৈমাসিক কবিতা পত্রিকা কালের যাত্রার সম্পাদক।

৭১তম জন্মবার্ষিকীর দিনে আজ গজারিয়ায় তাঁকে সংবর্ধনা প্রদানের মাধ্যমে প্রেক্ষাপট গজারিয়া নামে একটি সংগঠনের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হচ্ছে।

জন্মদিনে কবি ইমরুল চৌধুরীকে জানাই শত শুভেচ্ছা।

এক নজরে

ইমরুবল চৌধুরী

(মেসবাহ উদ্দিন চৌধুরী)

জন্ম : গজারিয়া, মুন্সীগঞ্জ, ২৩ ফেব্রুয়ারী ১৯৪০ খ্রি.

পিতা : আবদুল লতিফ চৌধুরী

মাতা : খোদেজা বানু

ভাইবোন :

আমিনুল হক চৌধুরী

জহুরুল হক চৌধুরী

মাহবুবুর রহমান চৌধুরী

চৌধুরী মাহতাব উদ্দিন

নুরুল ইসলাম চৌধুরী

ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী

ইমরুল চৌধুরী

মোরশেদ আহমেদ চৌধুরী

বর্ণালী চৌধুরী

সুলতানা চৌধুরী

স্ত্রী : জাহিদা চৌধুরী রেবা

সন্তান :

তামের হিসামেত চৌধুরী

সামির শাহতাব চৌধুরী

নাসিফ বিন ইমরুল চৌধুরী

পড়াশোনা : এম. এ (দর্শন), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

পেশা : কর্ণধার, এ্যাডকিং লিমিটেড

প্রথম বই : ভূতের সাথে সাত সেকেন্ড

প্রকাশিত গ্রন্থ :

ভূতের সাথে সাত সেকেন্ড

অন্ধকার ব্যতিরেকে

ইমু মিঞার কড়চা

ইমুসমগ্র

ইমুসমগ্র-২

ইমু মিঞার প্রত্যাবর্তন

ইমু মিঞার বিবর্তন

শোণিতে হৃৎ কলম

নক্ষত্রের বস্তি উচ্ছেদ

না ঘুঙুর না খঞ্জনি

পাতালে আর্তনাদ

সব অন্ধকার আমার ঘরে

লাবণির জন্য বৃষ্টির কবিতা

বৃষ্টির মৌন সংলাপ

শবের পাশে কেউ নেই

পরীর দেশে রাখাল রাজা

সিংহ কেন বনের রাজা

সম্পাদনা : ¯^v¶i (সাহিত্য পত্রিকা), কালের যাত্রা (সাহিত্য পত্রিকা), পূর্ণিমার মধ্যবয়সে বিউটি বোর্ডিং (সংকলন)

প্রকাশের অপেক্ষায় :

ইমু মিঞার কড়চা-২

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply