যদুনাথ কুন্ডের জমিদার বাড়িতে মিউজিয়াম নির্মান বন্ধের দাবীতে বিক্ষোভ

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুলে তৎকালীন জমিদার যদুনাথ কুন্ডের বাড়িতে লিজ নিয়ে বিক্রমপুর মিউজিয়াম নির্মান বন্ধের দাবীতে শুক্রবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে শত শত নারী-পুরুষ। সেখানতার বিস্তীতৃর্ণ সম্পত্তিতে লীজ ভোগী সনাতন ধর্মালম্বরীরা এ বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এছাড়া, শুক্রবার বিকেলে যদুনাথ কুন্ডের বাড়ি এলাকা পরির্দশন করেছেন ঢাকা থেকে আগত সনাতন ধর্মালম্বী নেতৃবৃন্দ। বিকেল ৪ টার দিকে যদুনাথ কুন্ডের বাড়ি পরিদর্শন করেন- ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. দূর্গা দাস ভট্রাচার্য, লেখক-সাংবাদিক-গবেষক ও মানবাধিকার কর্মী সালাম আজাদ, হিন্দু-বৌদ্ধ ঐক্য পরিষদের-কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট তাপস পাল, ক্যাপ্টেন (অব:) সচীন কর্মকার প্রমুখ।

এদিকে, সনাতন ধর্মালম্বী নেতৃবৃন্দের পরিদর্শনে আসার খবরে বিকেল ৪ টার দিকে যদুনাথ কুন্ডের বাড়িতে লীজ সত্বভোগী শত শত নারী-পুরুষ সেখানে জমায়েত হয়। পরে তারা বিভিন্ন শ্লোগান লেখা সম্বলিত ফেষ্টুন, ল্পেকার্ড নিয়ে বিােভ মিছিল বের করে। এ সময় ফেষ্টুন ও ল্পেকার্ডে “জাদুঘর চাইনা, চাই হাসপাতাল, চাই স্কুল” -লেখা শোভা পায়।
অন্যদিকে, ঢাকা আগত নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কথা বলেছেন স্থানীয় সনাতন ধর্মালম্বী নারী-পুরুষ। তারা জানান, এক বছরের লীজ নিয়ে অগ্রসর বিক্রমপুর নামের একটি সংগঠন যদুনাথ কুন্ডের জমিদার বাড়িতে বিক্রমপুর মিউজিয়াম নির্মানে হাত দিয়েছেন। মিউজিয়াম নির্মানের লক্ষে ওই জমিদার বাড়ি এলাকায় স্থাপনা নির্মান করে বসবাসরত কতিপয় সনাতন ধর্মালম্বীদের উচ্ছেদে ইতিমধ্যে শ্রীনগর উপজেলা প্রশাসন নোটিশ প্রদান করেছে। এতে ২ দিন আগে জমিদার বাড়ির বেদখলদার মোয়াজ্জেম হোসেন মিঠু নামের এক ব্যক্তিকে সেখান উচ্ছেদ করা হয়েছে। এ ঘটনায় অপরাপর দখলকারীদের মধ্যে উচ্ছেদ আতংক দেখা দিলে শুক্রবার বিকেলে শত শত দখলদার নারী-পুরুষ বিক্রমপুর মিউজিয়াম নির্মান বন্ধে এ বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি যদুনাথ কুন্ডের বিশাল আয়তনের সম্পত্তির চারপাশ প্রদনি করেন। উচ্ছেদ হওয়া মোয়াজ্জেম হোসেন মিঠু দাবী করেন- তিনি সরকার থেকে লীজ এনে সেখানে দীর্ঘ দিন ধরে বসবাস করে আসছেন।

কলামিষ্ট-বুদ্ধিজীবী সৈয়দ আবুল মকসুদ আসেননি-

অন্যদিকে, শুক্রবার যদুনাথ কুন্ডের বাড়িতে দেশের বিশিষ্ট কলামিষ্ট, লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদের আসার কথা থাকলেও তিনি আসেননি। ওই জমিদার বাড়ি পরিদর্শন ও বেদখলের সচিত্র দৃশ্য দেখার উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে এই কলামিষ্টের আসার খবরে সেখানে শত শত নারী-পুরুষ বিকেল জুড়ে অপোমান ছিলেন। শেষ পর্যন্ত তিনি সেখানে আসেননি। তবে, বিকেলে যদুনাথের জমিদার বাড়ি পরিদর্শন করে গেছেন- ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. দূর্গা দাস ভট্রাচার্য, লেখক-সাংবাদিক-গবেষক ও মানবাধিকার কর্মী সালাম আজাদ, হিন্দু-বৌদ্ধ ঐক্য পরিষদের-কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট তাপস পাল, ক্যাপ্টেন (অব:) সচীন কর্মকার।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
———————–

মুন্সীগঞ্জে জমিদার যদুনাথ রায়ের বাড়ির পুরাকীর্তি রক্ষার দাবি

শুক্রবার বিকেলে শ্রীনগরের ভাগ্যকুল বালাসুরের জমিদার যদুনাথ রায়ের বাড়ির পুরাকীর্তি রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। ক্ষমতাসীন নেতার এক এনজিওকে লিজ দেয়া এই বাড়ি উদ্ধার করে অনতিবিলম্বে পুরাতত্ত্ব বিভাগের মাধ্যমে এটি সংরক্ষণের দাবি নিয়ে জমিদার বাড়ির সামনে নারী, শিশু ও বৃদ্ধসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়। মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

মানববন্ধনকারীরা জানিয়েছেন, জমিদার বাড়ির পুরাকীর্তি সংরক্ষণ না করে জাদুঘরের নামে একটি নতুন ভবন নির্মাণ করায় জমিদার বাড়ির জৌলস বিনষ্ট হচ্ছে। অবৈধভাবে ‘অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন’ নামের একটি এনজিও জমিদার বাড়িটি লিজ নিয়ে পুরাকীর্তি বিনষ্ট করেছে। যারা বেআইনীভাবে এই জমিদার বাড়ির পুরাকীর্তি লিজ দিয়েছেন তাদেরও শাস্তি দাবি করেছেন মানববন্ধনকারীরা। এ সময় মানববন্ধনকারীরা অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক নূহ-উল-আলম লেনিনকে দায়ী করে নানা সেøাগান লেখা প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুন প্রদর্শন করেন। প্ল্যাকার্ডে ‘বিনোদন কেন্দ্র নয়, মেয়েদের জন্য স্কুল চাই’, ‘বিনোদন কেন্দ্র নয় হাসপাতাল চাই’, ‘ভূমিদস্যু লেনিনের বিচার চাই’, ‘সিরাজ শিকদারকে আশ্রয়দাতা লেনিন বিচার চাই’সহ নানা সেøাগান লেখা ছিল।

মানববন্ধন শেষে ঢাকা থেকে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক দুর্গাদাস ভট্টাচার্য, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীস্টান এক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক তাপস পাল, ক্যাপ্টেন (অব) সচিন কর্মকার, লেখক সালাম আজাদসহ ব্যক্তিগণ বিশাল এই জমিদার বাড়ি পরিদর্শন করে বিস্ময় প্রকার করেন। তারা বলেন, আমাদের এই অমূল্য পুরাকীর্তি এভাবে সংস্কারহীন এবং এনজিও’র হাতে তুলে দেয়ার ঘটনা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক দুর্গাদাস ভট্টাচার্য বাড়িটি দর্শন শেষে জানান, রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী এই সম্পতি এভাবে লিজ দেয়ার বিধান নেই। এছাড়া অযতœ আর অবহেলায় অরক্ষিতভাবে বিশাল এই জমিদার বাড়ি বিনষ্ট হওয়ায় দৃশ্য দেখিয়ে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেন।

ঐতিহ্যবাহী এই রাজবাড়িটির এই অবৈধ লিজ বাতিল করে ভূমিদস্যুদের হাত থেকে রক্ষা করে সরকারের পুরাতত্ত্ব অধিদফতরের অধীনে নিয়ে এই সংরক্ষণের দাবি জানিয়ে লেখক সালাম আজাদ বলেন, এই জাতীয় সম্পদ এভাবে গ্রাস করার অপতৎপরতা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। জমিদারের ভবন, জেনারেটর, পানির পাম্প জাহাজ ভেড়ানোর ঘাট, মন্দিরসহ মনোরম কারুকাজের বহু নিদর্শন বিনষ্ট হতে চলেছে।

এই এনজিওটি অনেক সম্পদ বিনষ্ট করেছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। মোয়াজ্জেম হোসেন মিঠু, হালিমা বেগম, হালিনী বেগম, মাজেদা বেগম, বাবুল মাঝি এবং আজহার হোসেন জানান, তারা বিশাল এই জমিদার বাড়ির বাইরের অংশে জমিদার বাড়ির মর্যাদা রক্ষা করেই লিজ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছিলেন। কিন্তু এখন এনজিওটি ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে তাদের বাড়িঘর ভেঙ্গে তাড়িয়ে দিচ্ছে।

অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের মুন্সীগঞ্জ কেন্দ্রের সভাপতি জাহাঙ্গীর হাসান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, লিজ নেয়া জায়গায় কিছু ঘর তুলেছিল, তা এই স্থানীয় প্রশাসন ভেঙ্গে দেয়ার কারণে কিছু লোক সমস্যার সৃষ্টি করছে। তিনি জানান, বৃহত্তর স্বার্থেই জাদুঘর করা হচ্ছে। কিছুই সরানো হয়নি। জাদুঘর শুরু হলে এভাবেই সংরক্ষিত হবে। বৃহত্তর স্বার্থেই এটি করা হয়েছে। তবে নূহ-উল-আলম লেনিনের সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি। শ্রীনগর উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা সৈয়দা নুর মহল আশরাফী জানান, বিধি মোতাবেকই অগ্রসর বিক্রপুরকে এই জমিদার বাড়ি লিজ দেয়া হয়েছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply