সাংবাদিক দম্পতি খুনের ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ থেকে দুই যুবক আটক

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনী হত্যায় জড়িত সন্দেহে মুন্সীগঞ্জ থেকে গতকাল শুক্রবার ভোরে দু’যুবককে আটক করা হয়েছে। তারা হলো_ মুরাদ হোসেন (৩০) ও তার চাচাতো ভাই আল-আমিন (২৫)। কঠোর গোপনীয়তার মধ্যে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ তাদের আটক করে। মোবাইল কললিস্টের সূত্র ধরে ওই দুই যুবককে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এর আগে বুধবার রাতে গাজীপুর থেকে আরও দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছিল। এদিকে গতকাল পর্যন্ত সাংবাদিক দম্পতি হত্যার ঘটনায় কাউকে গ্রেফতারের কথা স্বীকার করেনি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। কেন কী কারণে মুন্সীগঞ্জ থেকে দু’যুবককে আটক করা হয়েছে_ এ ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু বলছে না পুলিশ।

১০ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজাবাজারের ৫৮/এ/২ নম্বর হোল্ডিংয়ে রশিদ লজের ছয়তলা ভবনের পঞ্চম তলার ফ্ল্যাটে (এ-ফোর) নৃশংসভাবে খুন হন সাগর-রুনী। এ ঘটনায় রাজধানীসহ দেশব্যাপী প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এ ঘটনায় রুনীর ভাই নওশের আলম শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেছেন। মামলাটি বর্তমানে ডিবি পুলিশ তদন্ত করছে। ঘটনার পর থেকে পুলিশ বেশ ক’জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলেও বিষয়টি পুলিশ গোপন রাখে।

সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জ শহরের জমিদারপাড়া এলাকার নিজ বাড়ি থেকে শুক্রবার রাত ৪টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশ মুরাদকে আটক করে। মুরাদকে আটকের দেড় ঘণ্টা পর তার চাচাতো ভাই আল-আমিনকে আটক করা হয়। মুরাদের বাসায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানের সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন মুন্সীগঞ্জ সদর থানার উপপরিদর্শক নারায়ণ চন্দ্র। নারায়ণ সমকালকে বলেন, চাঞ্চল্যকর একটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকার ডিবি পুলিশ মুরাদকে আটক করেছে। এর বেশি আমার জানা নেই। এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খান বলেন, সংবাদকর্মীদের কাছেই দুই যুবকের আটকের বিষয়টি আমি জানতে পারি।

দু’যুবককে আটকের কারণ অজানা থাকায় তাদের স্বজনদের মাঝে নানা আশঙ্কা ভর করেছে। মুরাদের বাবা মহিউদ্দিন বেপারী ওরফে মহি সমকালকে জানান, সাদা পোশাকধারী পুলিশ মুরাদকে আটক করে বাসা থেকে নিয়ে যায়। তারা যাওয়ার দেড় ঘণ্টা পর পাশের ঘর থেকে মুরাদের চাচাতো ভাই আল-আমিনকে তারা ধরে নিয়ে যায়। আল-আমিনকে সদর থানায় রাখা হয়েছে।

আল-আমিনের বাবা জামালউদ্দিন ও স্বজনরা সদর থানা পুলিশের কাছে শুক্রবার দেখা করেও দু’ব্যক্তিকে আটকের কারণ জানতে পারেননি। থানা পুলিশের কাছ থেকে আল-আমিনকে ছেড়ে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়। মুরাদের স্ত্রী শারমিন বলেন, আমার স্বামী একজন ইলেকট্রিক মিস্ত্রি। তাকে কী কারণে আটক করেছে তা ভেবেই পাচ্ছি না।

সমকাল
——————————-

সাংবাদিক দম্পতি খুনের ঘটনায় মুন্সীগঞ্জে এক ব্যক্তি আটকের গুঞ্জন!

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকান্ডে মুরাদ হোসেন (৩০) নামের এক ব্যক্তিকে মুন্সীগঞ্জ শহরের জমিদারপাড়া এলাকার নিজ বাড়ি থেকে শুক্রবার ভোর ৪ টায় আটক করা হয়েছে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। আটক মুরাদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকার ডিবি পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সে একজন ইলেক্ট্রিক মিস্ত্রী। তার বাবার নাম মহিউদ্দিন বেপারী। মুরাদের আটকের দেড়ঘন্টা বাদে ভোর সাড়ে ৫ টায় তারই চাচাতো ভাই আল-আমিন (২৫) নামের অপর আরো এক ব্যক্তিকে আটক করে ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশের টিম। তাকে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে। এ দু’ব্যক্তির আটকের ঘটনায় জেলা পুলিশ বিভাগ বেশ গোপনীয়তা পন্থা অবলম্বন করে চলেছে। জেলা পুলিশ বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মুরাদ নামের এক ব্যক্তির আটকের কথা স্বীকার করেছে। আটকের কারণ জানেন না বলে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে মন্তব্য করছেন সদর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: আবুল বাশার। মুরাদ ও আল-আমিনের আটকের ঘটনায় গোটা মুন্সীগঞ্জ শহরে নানা গুঞ্জন চাউর হয়েছে। তবে স্থানীয় পুলিশ এ ব্যাপারে মুখ বন্ধ করে রেখেছে।

এ প্রসঙ্গে জেলা পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খানের কাছে সাগর-রুনি হত্যাকান্ডে এক ব্যক্তিকে মুন্সীগঞ্জ শহর থেকে আটকের কথা জানতে চাইলে তিনি আকাশ ভেঙ্গে পড়েন। এ সময় তিনি সেল ফোনে বলেন- কয়েকজন সাংবাদিকই মোবাইল ফোনে কল করে আমাকে এ খবর জানিয়েছেন। এতে স্থানীয় পুলিশ বিভাগ মুরাদ নামের ব্যক্তি আটক হওয়ার কথা নিশ্চিত করলেও সাংবাদিক দম্পতি খুনের ঘটনায় তাকে আটক করা হয়েছে কিনা-তা এড়িয়ে চলছেন। তবে, দেশের চাঞ্চল্যকর ঘটনায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের একাধিক সূত্র।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
======================

মুন্সীগঞ্জে ২ যুবক গ্রেফতার নিয়ে নানা গুঞ্জন

ঢাকা ডিবি পুলিশের একটি টিম মুন্সীগঞ্জ থেকে মুরাদ বেপারী (৩০) ও আলামিন নামের ২ যুবককে গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে শহরের মালপাড়া থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। ঢাকা ডিবি পুলিশের একটি টিম মুন্সীগঞ্জ থানা পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে এ অভিযান চালায়।

শুক্রবার সকাল থেকেই মুন্সীগঞ্জে এ দু’যুবকের গ্রেফতার নিয়ে নানা গুঞ্জন চলছে। গ্রেফতারকৃতরা ঢাকায় সাংবাদিক দম্পতি সাগর ও রুনি হত্যা মামলার আসামি বলে গুঞ্জন। তবে এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ গ্রেফতার বিষয় অস্বীকার না করে কৌশলে প্রশ্ন এড়িয়ে যান।

অন্যদিকে গ্রেফতার করা দুই যুবকের মধ্যে মুরাদকে শুক্রবার ভোরেই ঢাকায় নিয়ে গেছেন ডিবি পুলিশের টিম। এ সময় আলামিন নামের অপর এক যুবককে মুন্সীগঞ্জ পুলিশের হেফাজতে রেখে যায়। বর্তমানে আলামিন মুন্সীগঞ্জ থানা হাজতে রয়েছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল বাশার অভিযানের কথা স্বীকার করে জানান, কি মামলায় আসামি গ্রেফতার করেছে তা থানা পুলিশকে অবগত করেনি। গ্রেফতার হওয়া আসামিদের প্রশ্ন তিনিও কৌশলে এড়িয়ে যান।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি/তদন্ত) মো. মজিবর রহমানও অভিযানের কথা স্বীকার করে কোন মামলার আসামি সে ব্যাপারে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান।

ঢাকা ডিবি পুলিশের সঙ্গে অভিযানে থাকা সদর থানার এস আই নারায়ণ জানান, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে অভিযানের সময় উপস্থিত ছিলাম। তারা গ্রেফতারের পরই আসামিকে নিয়ে ঢাকায় রওনা হয়ে যান।

গ্রেফতারকৃত মুরাদের পিতা মহিউদ্দিন বেপারী জানান, ডিবি পুলিশের টিম বাড়িতে অভিযানের শুরুতেই একটি মোবাইল নাম্বারের কথা জিজ্ঞেস করে। এতে মুরাদ ওই নম্বরটি তার দাবি করলে তারা আর কোনো কথা না বলে গ্রেফতার করে ঢাকায় নিয়ে যায়।

তাকে কোন মামলায় গ্রেফতার করা হলো তা জানতে চাইলেই ডিবি পুলিশ কিছু বলেনি। মোবাইলের কললিস্টের সূত্র ধরে মুরাদকে গ্রেফতার করা হয় বলে ডিবি পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

One Response

Write a Comment»
  1. Amra R kono Joj Mia Natok dekhte chai na / Zodi ei 2 jon joreeto hoyeo thake , era to chuno puti , eder dhorte eto somoy laglo keno ???

Leave a Reply