পৃথক তিনটি অগ্নিকান্ডে পাটের গুদামসহ ২১ বাড়ি-ঘর ও দোকানপাট ভস্মিভূত

মুন্সীগঞ্জ সদর ও টঙ্গীবাড়ি উপজেলার পৃথক তিন স্থানে শনিবার সকাল ও দুপুরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুনের লেলিহান শিখায় ১টি পাটের গুদাম, ১টি বইয়ের লাইব্রেরী ও ২১টি ঘর বাড়ি-দোকানপাট ভস্মিভূত হয়েছে। এ সব অগ্নিকান্ডে প্রায় ৫০ লাখ টাকা ক্ষতি সাধিত হয়েছে বলে ভুক্তভোগীরা দাবী করেছেন। শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় টঙ্গীবাড়ি উপজেলার হাট বালিগাঁও গ্রামে, দুপুর ২ টায় একই উপজেলার পুরাবাজার এলাকায় ও সোয়া ২ টায় সদর উপজেলার হাতিমারা এলাকায় এ সব অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। অগ্নিকান্ডের ঘটনাগুলোতে কোথাও ফায়ার সার্ভিসের দমকল কর্মীরা তাৎক্ষনিক ভাবে ঘটনাস্থলে পৌছতে পারেনি। স্থানীয় বাসিন্দারা নিজেরাই আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে টঙ্গীবাড়ি উপজেলার হাট বালিগাঁও গ্রামের মালেক মিয়ার বসত ঘরে বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে প্রথম আগুন লাগে। পরে মুহুর্তের মধ্যে পার্শ্ববতী ঘর বাড়িতে আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়লে মালেক মিয়ার ৫টি, নারায়ন দাসের ৭টি, রতন মিয়ার ৩টি, মিন্টুর ২টি ও সেকু মিয়ার ১টি বসত ঘর ভস্মিভূত হয়। এতে প্রায় ৩৫ লাখ টাকার ক্ষতি সাধনের দাবী করেছেন ভুক্তভোগীরা। সদর উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের দমকল কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌছানোর আগেই বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে স্থানীয় বাসিন্দারা পানি ঢেলে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এছাড়া, শনিবার দুপুর ২ টার দিকে টঙ্গীবাড়ি উপজেলার পুরা বাজার এলাকায় বাবু খানের বাড়িস্থ ১টি পাটের গুদামে আগুন লাগে। এতে মুহুর্তে পাটের গুদামে থাকা ১’শ মন পাট ও এক ট্রাক খালি বস্তা পুড়ে ছাঁই হয়ে যায়। এ সময় হেলু খানের ১টি বসত ঘর পুড়ে গেছে। এ আগুনে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি সাধনের দাবী করেছেন বাবু খান ও হেলু খান। পুরাবাজার এলাকার বাসিন্দারা নিজেরাই পানি ঢেলে ও বালি ফেলে এ আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। খবর পেয়ে সদর উপজেলার ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে দেখেন স্থানীয়রা আগুন নিভিয়ে ফেলেছেন। দমকল কর্মীরা জানান, পাটের গুদামে বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে এ আগুন লাগে।

এদিকে, শনিবার বেলা সোয়া ২ টার দিকে জেলা সদরের হাতিমারা এলাকায় ভয়াবহ আগুনে ১টি বইয়ের লাইব্রেরী ও ২টি দোকান ঘর পুড়ে যায়। বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে সাগর লাইব্রেরী থেকে এ আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে ফায়ার সার্ভিস ধারণা করছে। এ আগুনে বইয়ের লাইব্রেরী ছাড়াও অপর একটি টেইলার্সের ও ১টি মেশিনারী দোকান ঘর পুড়ে ছাঁই হয়েছে। এ আগুনে প্রায় ৬ লাখ টাকা ক্ষতি হওয়ার দাবী করেছেন লাইব্রেরী মালিক আবুল হোসেন মাষ্টার। এক ঘন্টার প্রচেষ্টা চালিয়ে স্থানীয়রা এ আগুন নিয়ন্ত্রনে আনার পর ফায়ারের দমকল কর্মীরা সেখানে পৌছান

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

==============

২৫ ঘর ও ৩ দোকান ভস্মীভূত

মুন্সিগঞ্জে দু’টি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ২৫টি বসত ঘর ও ৩টি দোকান পুড়ে গেছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বালিগাঁও ঋষিপাড়ায় অগ্নিকাণ্ডের ছোটবড় ২৫টি ঘর পুড়ে গেছে। শনিবার দুপুর ১২টার দিকে স্থানীয় মালেকের রান্না ঘর থেকে আগুনের সূত্রপাত। মুহূর্তের মধ্যে আগুনের লেলিহান শিখা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

টঙ্গীবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম শহিদুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, স্থানীয়ভাবে পাম্প মেশিন দিয়ে প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। কিন্তু এর আগেই ৫টি বড় ঘর এবং ২০টি ছাপড়া পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

অন্যদিকে দুপুরে হাতিমারা এলাকায় আগুনে ৩টি দোকান পুড়ে গেছে।

হাতিমারা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, আধাঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এ ঘটনায় ১টি টেইলার্স, ১টি লাইব্রেরি, ও ১টি রিকশা গ্যারেজ পুড়ে গেছে।

এতে অন্তত ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তদের দাবি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply