ছিনতাইকারী সন্দেহে ৫ তরুন-তরুনীকে গনপিটুনি

মুন্সীগঞ্জ শহরের কাছে ছিনতাইকারী সন্দেহে ৫ তরুন-তরুনীকে গনপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে বিক্ষুব্ধ জনতা। শনিবার রাত ১০ টার দিকে শহরের কাছে জিয়সতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় সন্দেহভাজন তরুন-তরুনী রিপন (২৪), রানা (২৩), রাকিব (২৬), মনু (১৯) ও শারমিন আক্তারকে (২০) মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ওই তরুন-তরুনীকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গ্রেফতার দেখিয়ে রোববার সকালে সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সদর থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই সুলতান আহমেদ জানান, শনিবার রাতে শহরের থানারপুল চত্বর থেকে ঘুরে বেড়ানোর কথা বলে ৫ তরুন-তরুনী ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ভাড়া করে। পরে শহরের কাছে জিয়সতলা এলাকায় গেলে আরোহী তরুন-তরুনীরা অটোরিকশাটি ছিনতাইয়ের প্রচেষ্টা চালায় বলে চালক দাবী করে। এ সময় অটোরিকশার চালক ডাকাত বলে আর্ত-চিৎকার করলে এলাকাবাসী ছুটে এসে তরুন-তরুনীদের পাকড়াও করে গনপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তরুন-তরুনীকে উদ্ধার করে। তরুন-তরুনীদের দাবী- অটোরিকশা ছিনতাই করতে যাননি তারা। তারা ঘুরে বেড়ানোর উদ্দেশ্যে অটোটি ভাড়া করে। অটোরিকশার ভাড়া নিয়ে চালকের সঙ্গে তাদের দ্বন্ধ বাঁধলে এক পর্যায়ে চালক চালাকি করে ডাকাত ডাকাত চিৎকার করলে তারা বিপদে পড়েন।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

=================

মুন্সিগঞ্জে ডাকাত সন্দেহে নারীসহ ৫ জনকে গণপিটুনি

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার জিহসতলায় ডাকাত সন্দেহে নারীসহ ৫ জনকে গণপিটুনির পর পুলিশে সোপর্দ করেছে গ্রামবাসী। শনিবার রাত সাড়ে ১১টায় এ ঘটনা ঘটে। গণপিটুনির শিকার স্থানীয় গণপাড়ার বিল্লাল শেখের কন্যা শারমিন আক্তার দৃষ্টি (২০), বণিক্যপাড়ার হামিদ হালদারের পুত্র রিপন (২৪), বিনোদপুরের মিছির আলী মাদবরের পুত্র রানা মিয়া (২৫), পঞ্চসারের মৃত আব্দুর রহমানের পুত্র মনু মিয়া (১৯) ও রাকিবকে (২৫) পুলিশি পাহারায় মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সদর থানার ওসি আবুল বাশার আহতদের বরাত দিয়ে জানান, শারমিন আক্তার দৃষ্টি বান্ধবী বিথী আক্তারকে(২২) সঙ্গে বাড়ি থেকে বের হন। পঞ্চসারের এআর ক্লিনিকের কাছে বান্ধবী বিথী আক্তারকে নামিয়ে রেখে দৃষ্টি অটোরিকশা নিয়ে পঞ্চসার থেকে শুখবাসপুর রওনা হন। পথে চার যুবক তার অটোতে ওঠে। জিহসতলা অতিক্রমকালে যুবকরা অটোরিকশা চালককে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এবং শারমিন আক্তার দৃষ্টিকে ওড়না দিয়ে মুখ বাধার সময় ‘ডাকাত ডাকাত’ বলে চিৎকার দেন। গ্রামবাসী এসে তাদের ঘিরে ফেলে এবং ৫ জনকেই ডাকাত ভেবে গণপিটুনি দেয়। তবে অটো নিয়ে চালক পালিয়ে গেছে।

পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। সঠিক ঘটনা উদঘাটনে পুলিশ তদন্তে নেমেছে। আহত রাকিবের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply